শেখ হাসিনার নির্দেশ মাদক মুক্ত হবে সোনার বাংলাদেশ বললেন হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা ।

শেখ হাসিনার নির্দেশ মাদক মুক্ত হবে সোনার বাংলাদেশ বললেন হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা ।

শেখ হাসিনার নির্দেশ মাদক মুক্ত হবে সোনার বাংলাদেশ বললেন হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা ।

মোঃ সনজব আলীঃ জেলার চুনারুঘাট আমু চা-বাগানে মাদক মুক্ত পরিবারের সন্ধ্যানে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা। তিনি বলেন, অপরাধীরা কেন অপরাধে সম্পৃক্ত হয়- সেটা খুঁজে বের করার নির্দেশনা দিয়ে তিনি বলেন, “শুধুমাত্র তাদের (অপরাধী) বিরুদ্ধে অ্যাকশন নিলেই যে তারা ভাল হয়ে যাবে তা না। বরং তাদেরকে সমাজের সুস্থ জীবনে ফিরিয়ে আনতে পারাটাও কিন্তু অনেক গুরুত্বপূর্ণ।”

সম্প্রতি আত্মসমর্পণের মাধ্যমে হবিগঞ্জ জল ও বনদস্যুদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরা এবং সরকারের তরফ থেকে তাদের পুর্নবাসনে সহায়তা করার কথাও বলেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা।

গতবছর ডিসেম্বর মাসের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মাদকবিরোধী অভিযান শুরুর পর প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন থানায় কোথাও না কোথাও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে কথিত মাদক কারবারিদের হতাহতের খবর এসেছে। তবে মাদক কারবারিদের তৎপরতা পুরোপুরি বন্ধ করা যায়নি। আমার স্বপন বাস্তবায়ন করতে চাই, মাদক মুক্ত চা বাগান চাই এতে চা-বাগানের সচেতনদের সহযোগীতা কামনা করে পুলিশ সুপার শ্রমিকদের উদ্যেশ্যে বলেন, মাদক পাচার ও সেবন বন্ধ করতে শ্রমিকদের মাঝে আরও সচেতনতার প্রয়োজন।

এক সময় বাগানের লোকজন খুবই অসচেতন ছিল। এখন সবাই সচেতন ঘরে ঘরে শিক্ষিত, প্রায় ঘরে ডাক্তার, পুলিশ, র‍্যাব, বিজিবি আছে।
এর মুল কারণ মাদক সেবন কম।

তিনি মাদকের কুফল আর সুফল ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেন গেল বছর চা-বাগানের ৩ জন ছেলে মেয়ে পুলিশে আমার মাধ্যমে নিয়োগ হয়েছে। তারা খুবই মেধাবী তাদের মেধার ভিত্তিতে যোগ্যতায় চাকুরী পেয়েছে। আপনাদের মাঝে যে পরিবারগুলো মাদকমুক্ত থাকবে তাদের সন্তানরা সুস্বাস্থ্য ও মেধাবী হবে। আর সুস্থ ও মেধাবী সন্তান বড় হয়ে একদিন সরকারি-বেসরকারি চাকুরিসহ বিভিন্ন উচ্চপদস্থ পদে যোগদান করে আপনাদের মুখ উজ্জ্বল করবে।

তিনি আরও বলেন, মাদক যে গ্রহন করে তার ঘরে তার বউ থাকবেনা, পরিবারে অশান্তি বিরাজ করবে শান্তি থাকবেনা। যারা মাদক সেবন করে তাদের চেহারা দেখেলেই চেনা যায়। মাদকমুক্ত দেশ বিনির্মাণে চা-বাগানকে মাদক মুক্ত করতে চাই। চা-শ্রমিকদের মাঝে মাদকমুক্ত পরিবার যত বাড়বে ততই জোরদার হবে মাদকমুক্ত চা-বাগান গড়ার আন্দোলন। এসময় তিনি মাদকের গডফাদারদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন যত বড় অপরাধই হোক না কেন তাকে আইনের আওতায় আসতে হবে।

মঙ্গলবার (০৩ নভেম্বর) বিকালে চুনারুঘাট উপজেলার আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের আমু চা বাগানে চুনারুঘাট থানা আয়োজিত মাদক বিরোধী সচেতনতামূলক বিট সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতাকালে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্লা বিপিএম পিপিএম উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। মূলত তিনি চা-বাগান শ্রমিকদেরকে মাদক থেকে দূরে রাখতেই এই উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচী হাতে নিয়েছেন। পর্যায়ক্রমে ২৪টি বাগানে এরকম কর্মসূচি করা হবে। চুনারুঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ মো: আলী আশরাফ এর সভাপতিত্বে ও ইন্সপেক্টর (তদন্ত) চম্পক দাম এর পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু, আমু চা বাগানের ব্যবস্থাপক জহিরুল ইসলাম,বিট অফিসার এসআই এআই সম্রাট,এএস আই কামাল,সাংবাদিক আব্দুর সভায় উরাজ্জাক রাজু প্রমুখ। সভায় উপস্তিন ছিলেন জাকির হোসেন পলাশ ,শ্রমিক নেতা জোবরাজ ঝড়া,আওয়ামীলীগ নেতা আক্তারুজ্জামান, সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন  প্রমুখ।

উল্লেখ্য, হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্লা বিপিএম পিপিএম জেলার ২৪টি চা বাগানকে মাদকমুক্ত করতে বিভিন্ন কর্মসূচী হাতে নিয়েছেন। এরই ধারাবাহিকতায় আমু চা বাগানের মাদকমুক্ত ২১টি টতপরিবারের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে ক্রেস্ট, ও শতাধিক ছাত্রছাত্রীদেরকে খাতা-কলমসহ বিভিন্ন পুরস্কার তুলে দিয়ে মাদকমুক্ত পরিবার গড়ে তোলার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com