শিশু নির্যাতন বাড়ছে কেন

শিশু নির্যাতন বাড়ছে কেন

শিশু নির্যাতন বাড়ছে কেন
শিশু নির্যাতন বাড়ছে কেন

আল-আমিন আহমেদ জীবন : আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ  আমরা রাস্তাঘাটে বের হলে দেখতে পাই অনেক শিশু রেলস্টেশনে, পরে থাকে। শুধু ঢাকা শহরেই না বিভিন্ন জায়গায় বাসস্ট্যান্ড এবং রেলস্টেশনে, হাজার হাজার শিশু দেখা যায়।  দুই মাস আগের কথা ঢাকা থেকে বাড়িত আশার পথে হটাৎ করে, দেখি রাস্তার পাশে একটি শিশু শুয়ে আছে আমার মনে হয়, এখনো সে মায়ের দুধ ছাড়েনি। দুধের সেই অবুঝ শিশুটি রাস্তায় গড়াগড়ি দিচ্ছে। সেই শিশুটির জন্য বরাদ্দ নেই কোন দোলনা অথবা খেলার জন্য কোন খেলনা, সেই অবুঝ শিশুটিকে দেখলাম নোংরা কাঁদা মাখানো পানির বোতল নিয়ে খেলছে। এতো ছোট, শিশু মা-বাবার কাছে থাকত এইগুলো হচ্ছে, শুধু মা-বাবার কারণে তাঁরা যদি সন্তানের সুখ এবং শান্তি দেখতে চাইতেন, তাহলে শিশুদের সাথে এই ধরনের  নির্যাতন করতেন না। দিন দিন বেড়ে চলছে ঘরে-বাইরে কোথাও যেন নিরাপদ নয় দেশের শিশুরা। পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত খবরে উঠে এসেছে যে, ২০১৯ সালে সারাদেশে ধর্ষণের ঘটনা আগের বছরের চেয়ে বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে।

আমাদের দেশে এ শিশুদের সংখ্যা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর মূলে রয়েছে অজ্ঞতা, দারিদ্র্য, অশিক্ষা ও সচেতনতার অভাব। আমাদের দেশে একশ্রেণির অশিক্ষিত ও দরিদ্র মানুষ রয়েছে, যারা অপরিকল্পিতভাবে শিশুদের জন্ম দিয়ে থাকে। একটা নির্দিষ্ট সময় পরে তাদের পরিত্যাগ করে, ভরণপোষণ দেয় না। তাদের উপরে নির্যাতন করে, সেই শিশুরাই আবার অনেক সময়, টোকাই বা পিচ্চি নামে পরিচিত হয়। খালি গায়ে, খালি পায়ে কিংবা ছেঁড়া জামাকাপড় পরে রেলস্টেশন, বাসস্ট্যান্ড ও শহরের অলিগলি এলাকায়ই এদের বিচরণ। আবার রাতের বেলায়ও যেখানে-সেখানে শুয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। অর্থাৎ এদের জীবনটা হচ্ছে  যেখানে রাত, সেখানেই কাতের মতো।

শারীরিক বল প্রয়োগ করে, কাউকে আঘাত করাই শারীরিক নির্যাতন। শিশুর কান মলা থেকে শুরু করে যেকোনো বড় ধরনের আঘাত এই নির্যাতনের অন্তরভূক্ত। যত কম বয়সে শিশুর ওপর নির্যাতন হবে তত এর ফলাফল মারাত্মক হবে। আবার বয়ঃসন্ধিকালেও কিশোর কিশোরীরা খুবই সংবেদনশীল থাকে তাই এই বয়সে নির্যাতনের প্রভাব খুব বেশি হয়। খুব বেশি নিয়ন্ত্রণ এবং খুব বেশি প্রশ্রয়দান
কোনো কোনো মা-বাবা বা অন্যান্যরা শিশুকে সবকিছুতেই বেশি বেশি নিয়ন্ত্রণ করেন। তার ইচ্ছামতো কিছুই করতে দেন না, বরং  নিজের ইচ্ছা শিশুর উপর চাপিয়ে দেন এবং শিশুর মতামতকে মূল্যায়ন করেন না। আবার অতিরিক্ত প্রশ্রয় দেয়াও শিশুর সুস্থ বিকাশের জন্য অন্তরায়। তাই এই দুটি অবস্থাই শিশুর জন্য মানসিক নির্যাতন শিশুরা ভয়ে ভয়ে থাকা, অবস্তায় হঠাৎ ভেঙ্গে পড়া, নিরাপত্তার অভাব বোধ করা, হীনমন্যতায় ভোগা, অন্যের উপর অতিমাত্রায় নির্ভরশীল হওয়া ইত্যাদি। বাড়ী থেকে, পালিয়ে যাওয়া । এবং আত্মহত্যার চেষ্টা করা, আক্রমনাত্মক হয়ে ওঠা, নেশাগ্রস্থ হওয়া, মাদকাসক্ত হওয়া ইত্যাদি।

শিশুরা কিন্তু সবই বোঝে শুধু বোঝে না যে আসলে তাদের সাথে কী করা হচ্ছে এবং কেনই বা এমনটা করা হচ্ছে।

যে সকল ঘটনা ঘটছে তাতে কোনো শিশুই যে একেবারে নিরাপদে আছে এটা বলা যাবে না। শিশুদের এই যে নিরাপত্তাহীনতা এটা প্রচন্ড একটি উদ্বেগ জনক বিষয়। এটা সমাজের জন্য খুব একটা খারাপ চিত্র বহন করে, খুব খারাপ ম্যাসেজ দেয় যে শিশুরা নিরাপদ না’। অতএব শিশুদের নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com