শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বললেন ভিসি, অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ববি

শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বললেন ভিসি, অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ববি

শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বললেন ভিসি, অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ববি
শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বললেন ভিসি, অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ববি

লোকালয় ডেস্ক- বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ভিসি প্রফেসর ড. এসএম ইমামুল হক শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলার প্রতিবাদ এবং উক্তি প্রত্যাহারের দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা। দাবি না মানা পর্যন্ত ক্লাস-পরীক্ষা দেবেন না বলে জানিয়েছেন তারা।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে সৃষ্টি হওয়া আন্দোলনকে কেন্দ্র করে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। একই সঙ্গে বৃহস্পতিবার (২৮ মার্চ) বিকেল ৫টার ম‌ধ্যে বিশ্ববিদ্যাল‌য়ের সব হলের আবাসিক শিক্ষার্থী‌দের হল ত্যা‌গের নি‌র্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২৭ মার্চ) রা‌তে বিশ্ববিদ্যাল‌য়ের রে‌জিস্ট্রার স্বাক্ষ‌রিত এক নো‌টি‌শে বলা হয়, স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে অন‌াকাঙ্ক্ষিত ঘটনার প‌রি‌প্রে‌ক্ষি‌তে আইনশৃঙ্খলা প‌রি‌স্থি‌তি ঠিক রাখার স্বা‌র্থে বিশ্ববিদ্যাল‌য় বন্ধ ঘোষণা করা হ‌লো। তবে এর পরও আন্দোল‌ন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে শিক্ষার্থী‌দের একাংশ।

এর আগে বুধবার (২৭ মার্চ) বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বক্তব্য প্রত্যাহার ও ক্ষমা চাওয়ার দাবিতে ক্যাম্পাসে অবস্থান ধর্মঘট করে বিক্ষোভ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীরা। উপাচার্য শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য করে ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলে যে বক্তব্য দিয়েছেন তা প্রত্যাহার ও উপাচার্যের ক্ষমা চাওয়ার দাবি উঠেছে। বুধবার (২৭ মার্চ) সকাল ১০টা থেকে চলা এই বিক্ষোভে ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করেছেন শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) বৈকালিক চা চক্র ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। তবে ওই অনুষ্ঠান শিক্ষার্থীদের জন্য ছিল না। ফলে বিষয়টি নিয়ে অনুষ্ঠানের বাইরে প্রতিবাদ জানান তারা। এ ঘটনায় উপাচার্য প্রফেসর ড. এসএম ইমামুল হক ক্ষুব্ধ হয়ে শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলে সম্বোধন করেন।

এরই প্রতিবাদে এবং ভিসির ওই বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবীতে বুধবার সকাল থেকে ক্লাশ ও পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এই আন্দোলনের সঙ্গে তারা যুক্ত করেছেন আরও ৫ দফা দাবী। এরমধ্যে রয়েছে টিএসসি’তে পাঠদান না করানো, সেমিনার রুমের ভাড়া ৩ হাজার টাকা থেকে কমিয়ে ৫০০ টাকা করা এবং সকল জাতীয় দিবস শিক্ষক-শিক্ষার্থী সমন্বয়ে উদযাপন করা।

এদিকে নোটিশ ওেয়ার পরেও সকাল থেকে একাডেমিক ভবনের সামনে শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়ে ভিসির ‘রাজাকারের বাচ্চা’ উক্তি প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ করছেন। একাডেমিক কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হলেও বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তাদের আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ও হল ত্যাগ না করার ঘোষণা দিয়েছেন। এতে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।

তবে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত না মানলে শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলেছেন ভিসি প্রফেসর ড. এসএম ইমামুল। তিনি বলেন, ‘সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলন বলা হলেও এটি তা নয়। স্বার্থান্বেষী একটি মহলের ইন্ধনে আন্দোলনের নামে অরাজকতার সৃষ্টি করা হচ্ছে। এটা বাড়াবাড়ির পর্যায়ে পড়ে। শিক্ষার্থীরা বিকাল ৫টার মধ্যে হল ত্যাগের পাশাপাশি কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মেনে নেবে বলে আশা করি। এরপরও কেউ ক্যাম্পাসে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করলে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com