শিক্ষার্থীদের আন্দোলন বিষয়ে ৪০ শিক্ষকের ‍বিবৃতি

শিক্ষার্থীদের আন্দোলন বিষয়ে ৪০ শিক্ষকের ‍বিবৃতি

অনলাইন ডেস্ক : নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন বিষয়ে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪০ জন শিক্ষক ‍বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে আন্দোলনের বিভিন্ন দিক বিশ্লেষণ করে সম্ভাব্য করণীয় ও নানা বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তারা।

 

বিবৃতিতে তারা বলেছেন, গত এক সপ্তাহে বাংলাদেশ এক নতুন সামাজিক ঘটনার সাক্ষী হয়ে রইল। প্রজন্ম ২০০০ বলে যাদের অভিহিত করা যায় তাদের নেতৃত্বে গড়ে ওঠা এক সামাজিক আন্দোলন দেখল বাংলাদেশ। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা তাদের নিজ হাতে লেখা সৃজনশীল প্ল্যাকার্ড-ফেস্টুন বহন করেছে, সকাল-সন্ধ্যা আন্দোলনের গান গেয়ে গিয়েছে নিরলস। স্লোগানতুলেছে: “উই ওয়ান্ট জাস্টিস”।

 

সবকিছুই খুব ভালভাবে চলছিল। কিন্তু নিরাপদ সড়ক চেয়ে করা লাগাতার আন্দোলনের ৬ষ্ঠ দিনে আমরা আতংকের সাথে লক্ষ্য করি যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সংগঠনের সদস্য ঢাকার রাজপথ সহিংস কার্যকলাপের মাধ্যমে দখল করে রাখে। গভীর বিস্ময়ে আমরা দেখি যে শাসকদলের বিবিধ অংশ থেকে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের বিরুদ্ধে কুৎসা করে একে প্রশ্নবিদ্ধ করা শুরু হয়।

 

অন্যদিকে শাসকদল শিক্ষার্থীদের ধাওয়া করে, তাদের শান্তিপূর্ণ জমায়েতের উপর সহিংস আক্রমণ করে, নারী শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকদের যৌন নিপীড়ন করে, শিক্ষার্থীদের এলাকার বিভিন্ন বাড়িতে আটকে ফেলে এবং দিনের আলোয় পুলিশের সামনে তাদের শারীরিকভাবে নিপীড়ন করে। বারংবার পুলিশ টিয়ার গ্যাস ও রাবার বুলেট ছুড়ে তাদের মিছিল ও জমায়েতকে ছত্রভঙ্গ করে দেয় এবং তাদের উপর রাবার বুলেট ও জলকামান ব্যবহার করে।

 

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আলোকচিত্রী ও অ্যাক্টিভিস্ট ড শহিদুল আলম এর সবকিছুই ডকুমেন্টশন করছিলেন। তিনি তাই করছিলেন যা তিনি খুব ভাল করেন- ক্ষমতার মুখের উপর তিনি সত্য বলছিলেন। একজন স্বাধীন সাংবাদিক ও আলোকচিত্রী হিসাবে তিনি কর্মরত ছিলেন মাত্র: ভিডিও করেছিলেন চাপাতি হাতে সন্ত্রাসী কীভাবে নিরস্ত্র শিক্ষার্থীদের ধাওয়া করছিল। একবার এইসব সন্ত্রাসীরা ভিডিও করার কারণে তার ক্যামেরাটিও ভেঙ্গে দেয়। এছাড়াও নগরীর বিভিন্ন জায়গায় আগস্টের ৪ ও ৫ তারিখে আরও কয়েকজন আলোকচিত্রী হামলার শিকার হন। ৫ আগস্ট দুপুরের দিকে ড. আলম আল-জাজিরাকে একটি সাক্ষাৎকার দেন। সেখানে তিনি ঢাকার বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে তার পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ হাজির করেন। সাক্ষাৎকার প্রচারিত হবার মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর সেদিন সন্ধ্যায় শহিদুল আলমকে তার বাসভবন থেকে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে যাওয়া হয়।

 

প্রাথমিকভাবে তাকে কোথায় নেয়া হয়েছে তা জানা যাচ্ছিল না। ভবনের নিরাপত্তারক্ষীদের মতে, অনুপ্রবেশকারীরা নিজেদের ডিবি (গোয়েন্দা শাখার) সদস্য পরিচয় দেয়। তারা জোর করে সিসিটিভি ক্যামেরা ফুটেজ নিয়ে যায় ও সিসিটিভি ক্যামেরায় টেপ লাগায়। ড. আলমকে বলপ্রয়োগ করে একটি হাইএস মাইক্রোবাসে তোলা হয়। বেশি রাতে ঢাকা মেট্রোপলিটান ডিটেকটিভ ব্রাঞ্চ (ডিবি) পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল বাতেন বার্তা সংস্থা ইউএনবিকে জানান যে, চলমান ছাত্র আন্দোলন নিয়ে ফেসবুক পোস্ট সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল ড. আলমকে তার ধানমন্ডির বাসা থেকে আটক করেছে। বাকী রাতটা ড. আলমের পরিবারের সদস্যরা ডিবি অফিসের বাইরে কাটায়। ৬ আগস্ট সকালে তাদের কেবল তার অবস্থান সম্পর্কে জানানো হয়। পরবর্তীতে তাকে আইসিটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়।

 

ড. আলমের স্ত্রী রেহনূমা আহমেদ (একজ ননৃবিজ্ঞানী ও কলাম লেখক) একটি সংবাদ সম্মেলনে জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কি এভাবে কাউকে তুলে নিয়ে যেতে পারে? দুষ্কৃতিকারীরা পারে, আমরা সকলে জানি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যদি এভাবে মানুষকে তাদের ঘর থেকে অপহরণ করতে থাকে তাহলে আমাদের ‘আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী’ শব্দটার অর্থ নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে।’ ব্যারিস্টার সারা হোসেন বলেন, ‘সংবিধানের ধারা ৩৩ অনুসারে, কাউকে গ্রেপ্তার করা হলে, বাহিনীকে অবশ্যই গ্রেপ্তার সম্পর্কে, গ্রেপ্তারকৃতের অবস্থান সম্পর্কে যত দ্রুত সম্ভব জানাতে হবে। ৪৩ ধারা অনুযায়ী, বেআইনিভাবে বা জোরপূর্বক কারো বাসায় প্রবেশ করা যাবে না। রাষ্ট্রের দায়িত্ব প্রত্যেক নাগরিকের যোগাযোগের অধিকার নিশ্চিত করা। এই ক্ষেত্রে রাষ্ট্র দুইটি ধারাকেই লঙ্ঘন করেছে। ’

রেহনুমা আহমেদের সাথে সুর মিলিয়ে বলতে চাই, ড. শহীদুল আলমকে যে প্রক্রিয়ায় অপহরণ করা হয়েছে তা নিন্দনীয়। তাকে অপহরণের দৃশ্যটি দেশে নাগরিকের অধিকার ও আইনের শাসনকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। কোন আইন কি আছে? যদি আইনই না থাকে তবে কিসের ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী’? বাংলাদেশের নাগরিক হিসাবে আমরা বলতে চাই যে, নাগরিককে ব্যাখ্যা জানানো হচ্ছে সরকারের দায়িত্ব। আমরা সরকারের কাছে জানতে চাই কেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সন্ত্রাসীদের মত আচরণ করছে?একের পর এক নাগরিক কেন হামলা ও অপহরণের শিকার হচ্ছেন?

আমারা অবিলম্বে শহিদুল আলমের মুক্তি চাই। তাকে আটক অবস্থায় অত্যাচার করা হয়েছে এবং তার চিকিৎসা সেবা প্রয়োজন, তাকে ৭ দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। যারা সম্পত্তি ধ্বংস করা, হুমকি প্রদান ও আইনানুগভাবে চলতে ব্যর্থতার জন্য দায়ী সেই বাহিনীর কর্মকর্তাদের কর্মকাণ্ড বিষয়ে তদন্ত করতে হবে। নিরাপদ সড়কের দাবিতে করা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে কেন নিপীড়ন আর সহিংসতা করা হলো? পাবলিক ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কেন পুলিশের সহযোগিতায় বহিরাগত সন্ত্রাসীর হামলার শিকার হলেন? ২২ জন শিক্ষার্থীকে কেন দুই দিনের রিমান্ড দেয়া হলো।

 

শহরের কোথাও কোথাও দলীয় সন্ত্রাসীরা বিভিন্ন বাসায় লুকিয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের উপর নানা আক্রমণ চালাচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। বিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের স্কুল থেকে বহিষ্কারের নানা রকম হুমকি দিচ্ছে।

এসমস্ত কিছুর আমরা জবাব চাই, আইনি ব্যবস্থা নিতে চাই। শিক্ষার্থীদের সুরে সুর মিলিয়ে বলতে চাই-“আমরা ন্যায়বিচার চাই”।

স্বাক্ষরকারীদের নামের তালিকা:

১। আ-আল মামুন, সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতাবিভাগ, রাজশাহীবিশ্ববিদ্যালয়।
২। আইনুন নাহার, অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞানবিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৩। আনু মুহাম্মদ, অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৪। দীনা সিদ্দিকী, অধ্যাপক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়
৫। ফাহিমা আল ফারাবী, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৬। ফাহমিদুল হক, অধ্যাপক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৭। গীতি আরা নাসরিন, অধ্যাপক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৮। কাজী মারুফুল ইসলাম, অধ্যাপক, উন্নয়ন অধ্যায়ন বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৯। মাহমুদুল সুমন, সহযোগী অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞানবিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
১০। মাসুদ ইমরান মান্নু, সহযোগীঅধ্যাপক, প্রত্নতত্ত্ববিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
১১। মির্জা তাসলিমা সুলতানা, অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
১২। মোহাম্মদ তানজীমউদ্দিন খান, সহযোগী অধ্যাপক, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
১২। মোশাহিদা সুলতানা, সহযোগী অধ্যাপক, একাউন্টিং ও ইনফর্মেশন সিস্টেম বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
১৩। পারভিন জলি, সহযোগী অধ্যাপক, ইতিহাস বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
১৪। কাজী অর্ক রহমান, সহকারী অধ্যাপক (ছুটিতে), ইংরেজি বিভাগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়
১৫। রায়হান রাইন, সহযোগী অধ্যাপক, দর্শন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
১৬। রেজওয়ানা করিম স্নিগ্ধা, সহকারী অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
১৭। সামিনা লুৎফা, সহযোগী অধ্যাপক, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
১৮। সাঈদ ফেরদৌস, অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞানবিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
১৯। সায়েমা খাতুন, সহযোগী অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
২০। শাশ্বতী মজুমদার, প্রভাষক, চারুকলা, নৃবিজ্ঞানবিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
২১। কাবেরী গায়েন, অধ্যাপক ও চেয়ারপারসন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
২২। অতনু রব্বানী, সহযোগী অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
২৩। আশিক মুহাম্মদ শিমুল, সহযোগী অধ্যাপক, মনোবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
২৪। সুস্মিতা চক্রবর্ত্তী, অধ্যাপক, ফোকলোর বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
২৫। কাজী মামুন হায়দার, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
২৬। বখতিয়ার আহমেদ, সহযোগী অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
২৭। তাহমিনা খানম, সহকারি অধ্যাপক, ব্যবস্থাপনা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
২৮। মানস চৌধুরী, অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
২৯। সিউতি সবুর, সহযোগী অধ্যাপক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়
৩০। সাঈদ ফেরদৌস, অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৩১। খাদিজা মিতু, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
৩২। আজফার আহমেদ, ভিজিটিং ফ্যাকাল্টি, ইউল্যাব
৩৩। মেহের নিগার, সহকারি অধ্যাপক, বাংলা বিভাগ, ঢাকা বিশ্বিবদ্যালয়
৩৪। মুনাসির কামাল, সহকারি অধ্যাপক, ইংরেজি বিভাগ, ঢাকা বিশ্বিবদ্যালয়
৩৫। রোবায়েত ফেরদৌস, অধ্যাপক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৩৬। সাদাফ নূর-ই-ইসলাম, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
৩৭। SoumyaSarker, Assistant Professor, Department of English, University of Dhaka
৩৮। Sayema Khatun, Associate Professor, Department of Anthropology, Jahangirnagar University
৩৯। Tasneem Siraj Mahboob, Associate Professor, Department of English, University of Dhaka
৪০। Zobaida Nasreen, Associate Professor, Department of Anthropology, University of Dhaka

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com