শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনের ভোট গ্রহন ইভিএমে

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনের ভোট গ্রহন ইভিএমে

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনের ভোট গ্রহন ইভিএমে
শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনের ভোট গ্রহন ইভিএমে

নিজস্ব প্রতিনিধি: উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের শেষ ধাপ তথা পঞ্চম ধাপে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এ ধাপে হবিগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে বিভক্ত হওয়া দেশের ৪৯২তম উপজেলা শায়েস্তাগঞ্জ। ১৮ জুন শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় ভোটগ্রহণ করা হবে। ওই দিন আরো ১৫টি উপজেলায় ভোটগ্রহন করা হবে।

তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২১ মে, যাচাই-বাছাই ২৩ মে। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ৩০ মে এবং ভোটগ্রহণ করা হবে ১৮ জুন।

অন্যান্য উপজেলাগুলো হলো- শেরপুরের নকলা, নাটোরের নলডাঙ্গা, সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ, পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী, বরগুনার তালতলী, নারায়ণগঞ্জ বন্দর, গাজীপুর সদর, রাজবাড়ীর কালুখালী,মাদারীপুর সদর, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর ও বিজয়নগর, কুমিলস্নার আদর্শ সদর ও সদর দক্ষিণ এবং নোয়াখালী সদর উপজেলা।

ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার যুগ্মসচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান জানিয়েছেন, শেষ ধাপে ছয়টি উপজেলায় ইভিএমে ভোটগ্রহণ করা হবে। এগুলো হলো- গাজীপুর সদর, নারায়ণগঞ্জ বন্দর, বাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর, কুমিলস্নার আদর্শ সদর ও সদর দক্ষিণ এবং নোয়াখালী সদর উপজেলা।

এর আগে চতুর্থ ধাপে ৩১ মার্চ ছয়টি উপজেলায় এবং ২৪ মার্চ তৃতীয় ধাপে চারটি উপজেলায় ইভিএমে ভোটগ্রহণ করে ইসি।

সংস্থাটির পক্ষ থেকে বারবার বলা হচ্ছিল, ইভিএমে নির্বাচন শেষ হওয়ার দু’থেকে তিন ঘণ্টার মধ্য ফলাফল প্রকাশ করা যাবে। কিন্তু আগের দুই ধাপে রাত ১১টা নাগাদও ফল প্রকাশ করতে পারেনি ইসি। শুধু তাই নয়, গত ৫ মে অনুষ্ঠিত ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও ইসি ঘোষিত সময় অনুযায়ী ফল প্রকাশ করতে পারেনি। গত সংসদ নির্বাচনেও ইভিএমের চেয়ে ম্যানুয়ালি ফল প্রকাশ হয়েছে তুলনামূলকভাবে দ্রম্নত।

ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার তথ্যানুযায়ী, ইভিএম পরিচালনায় সেনাবাহিনীর একটি টিম কারিগরি সহায়তা দেবে। যেটা সব নির্বাচনেই তারা দিয়ে আসছে। আর সঙ্গে থাকা ইসির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের কর্মকর্তারাও।

বর্তামানে ব্যবহৃত ইভিএম উন্নতমানের বলে দাবি করছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার। প্রতি মেশিন তৈরিতে ব্যয় হয়েছে ২ লাখ ১০ হাজার টাকার মতো, যা সরবরাহ করছে বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি।

ইসির পরিকল্পনা অনুযায়ী, আগামীতে সব নির্বাচনেই ইভিএম ব্যবহার করা হবে। আগামী ২৪ জুনের বগুড়া-৬ আসনের উপ-নির্বাচনেও এ যন্ত্রে ভোট নেবে ইসি।

সংস্থাটির কর্মকর্তারা বলছেন, ইভিএমে ভোট নিলে ব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় প্রায় দ্বিগুণ। কিন্তু সে অনুসারে ভোট পড়ার হার বাড়ছে না। যেখানে ৬০ শতাংশের নিচে ভোট পড়ছে না ম্যানুয়াল ব্যবস্থায় অর্থাৎ ব্যালট পেপারে, সেখানে ইভিএমের ভোট গড়ে ৫০ শতাংশের ওপরে ওঠছে।

ভোটার অ্যাডুকেশন, প্রচারণা ও ভোটিং যথাযথভাবে হচ্ছে না। এ ছাড়া প্রশিক্ষণেও ঘাটতি রয়েছে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে ইসির অতিরিক্ত সচিব মোখলেছুর রহমান বলেন, নতুন প্রযুক্তি ভোটারদের অভ্যস্ত হতে একটু সময় লাগবে। কর্মকর্তাদের দক্ষতাও বাড়বে। আশা করি, সময় যত যাবে ইভিএমেও মানুষ অভ্যস্ত হয়ে পড়বে।

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, ময়মনসিংহ সিটিতে কিন্তু মানুষ উৎসাহের সঙ্গেই ভোট দিয়েছে। একটা আরও বাড়বে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com