শায়েস্তাগঞ্জে অবৈধ বিদ্যুৎ লাইনে জড়িয়ে দু’পা হারাল ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী

শায়েস্তাগঞ্জে অবৈধ বিদ্যুৎ লাইনে জড়িয়ে দু’পা হারাল ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ রেল স্টেশন এলাকা ছেয়ে গেছে অবৈধ বিদ্যুৎ লাইনে। বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে বছরের পর বছর ধরে বিদ্যুৎ চুরি করে আসছে ওই এলাকার একশ্রেণি দুষ্কৃতিকারীরা। আবার অভিযোগ রয়েছে বিদ্যুৎ চুরির বিষয়টি জানলেও কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। কারণ তাদেরকে দেয়া হচ্ছে মাসোয়ারা।

শুধু বিদ্যুৎ চুরিতেই সীমাবদ্ধ নেই এলাকাটি। যেখানে সেখানে বিদ্যুতের তার ছড়িয়ে থাকায় ঘটছে দূর্ঘটনাও।

সম্প্রতি অবৈধ বিদ্যুৎ লাইনে জড়িয়ে দু’পা হারালো শায়েস্তাগঞ্জ ইসলামী একাডেমীর চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী নদী আক্তার (১০)। সে এখনও রয়েছে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। এছাড়াও ন্যায় বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে নদীর পরিবার।

রোববার এ বিষয়ে পুলিশ সুপার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ভোক্তভূগির পিতা মো. রফিক মিয়া। সে নিজামপুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর এলাকার মৃত এয়াকুব উল্লাহর ছেলে।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, রফিক মিয়া শায়েস্তাগঞ্জ ষ্টেশন রোড এলাকায় একটি ছোট দোকান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। গত ১৫মে সন্ধ্যায় তার কিশোরী কন্যা নদীসহ তার এক সহপাঠী পার্শ্ববর্তী মর্জিনা খাতুন নামে এক মহিলার মালিকানাধীন ভবনের ছাদে বেড়াতে যায়। এসময় বিদ্যুতের মেইন লাইন থেকে আনা খোলা অবস্থায় ছাদে ফেলে রাখা তারের সাথে জড়িয়ে যায় সে। পরে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল পরে সিলেট হয়ে শেখ হাসিনা বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট ঢাকায় প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার দুটি পা হাটু পর্যন্ত কেটে ফেলা হয়। বর্তমানে সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। পরে এ বিষয়ে স্থানীয় মুরুব্বিয়ানদের শরনাপন্ন হয়ে ব্যার্থ হয়ে শায়েস্তাগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত ২২ জুন এসআই ওয়াদুদ ঘটনাস্থলে যান এবং তদন্ত করেন। পরে তদন্তকারী কর্মকর্তার সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে রফাদফা করার প্রস্তাব দেন। কিন্তু তাতে রাজি হননি রফিক মিয়া। তিনি অভিযোগটি এফআইআর করার জন্য অনুরোধ করেন।

গত ১ জুলাই নিজামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ রফিক মিয়া আবারো ওসি’র কাছে গেলে তিনি কোর্টে মামলা করার পরামর্শ দেন। এমতাবস্থায় ন্যায় বিচার পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন তিনি। তাই বিষয়টি আমলে নিয়ে অভিযোগটি এফআইআর করার জন্য পুলিশ সুপার বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com