‘রাতদিন আওয়ামী লীগে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে’

‘রাতদিন আওয়ামী লীগে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে’

যদি প্রধানমন্ত্রী হতাম মতিয়াকে মন্ত্রিসভা থেকে বের করে দিতাম: বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী
যদি প্রধানমন্ত্রী হতাম মতিয়াকে মন্ত্রিসভা থেকে বের করে দিতাম: বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী

ডেস্ক রিপোর্ট: ‘রাতদিন আওয়ামী লীগে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে, সেখানে কি করে যাই যেখানে মতিয়া চৌধুরী, ইনু বসে আছে?’ রোববার রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে ‘৭৫-এর প্রতিরোধ যোদ্ধাদের মিলনমেলায় স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তম।

অনুষ্ঠানে কাদের সিদ্দিকী বলেন, বাংলাদেশ এমন হবে জানলে আমি বঙ্গবীর যুদ্ধে যেতাম না। যে লতিফ সিদ্দিকীরা আওয়ামী লীগকে জন্ম দিয়েছিলেন তাকেই দল থেকে বের করা হয়েছে। যারা তার স্যান্ডেল টেনেছেন তারা এখন মন্ত্রী হয়ে বসে আছে।

তিনি বলেন, ৭৫-এ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সময় প্রতিরোধ গড়েছিলাম। কিন্তু জাতীয় ও রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেয়া হয়নি। তিনি বলেন, সেদিন যদি প্রতিবাদ করে ভুল করে থাকি সে কথাটিও রাষ্ট্রীয়ভাবে জানাতে হবে। সেসব যোদ্ধাদের বিরুদ্ধে এফআইআর করা হোক। তাহলে অন্তত বলতে পারব বঙ্গবন্ধু হত্যার পর প্রতিবাদ করতে গিয়ে জেলে যেতে হয়েছে।

kader siddiqi in bongobhaban

রাতদিন আওয়ামী লীগে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, সেখানে কি করে যাই যেখানে মতিয়া চৌধুরী, ইনু বসে আছে? যারা বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে ছিলেন। আমি কোনো কিছু চাই না, সারা জীবন সহ্য করেছি। আর চুপ থাকব না। ‘৭৫-এ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সময় প্রতিবাদে প্রতিরোধকারীদের স্বীকৃতি দিতেই হবে।

এই স্বীকৃতি আদায় হবে আমার জীবনের সবচেয়ে বড় পাওয়া উল্লেখ করে কাদের সিদ্দিকী বলেন, রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি চাই। যদি না দেয়া হয় তাহলে মুখ বুজে বসে থাকব না।

আজকের এই মিলনমেলায় যেন কেউ না আসতে পারে সে জন্য রাস্তাঘাট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমরা ইয়াহিয়ার জন্য রাস্তাঘাট বন্ধ করেছিলাম। কিন্তু দেশের ভেতর এমন শত্রুতা আগে কখনও দেখিনি। আজকে সরকারের জয়জয়কার। যেদিকে তাকাই সেদিকে আওয়ামী লীগ, সেদিকে শেখ হাসিনা। ভবিষ্যতে যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে তাহলে আমরা কোথায় গিয়ে দাঁড়াব জানি না।

প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করা প্রসঙ্গে বঙ্গবীর বলেন, বঙ্গবন্ধু জেল থেকে বের হলে আমরা তার সঙ্গে তখন কথা বলতে পেরেছি। আমার বাবা কথা বলতে পেরেছে। কিন্তু এই প্রথম ১৯ বছর পরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার জন্য, দেখা করার জন্য তিন তিনবার চেষ্টা করেছি। তার পিএসদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করে কোনো সাড়া পাইনি।

অনুষ্ঠানে আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, বাবুল সিদ্দিকী, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার খোকা বীরপ্রতীক, অর্থ সম্পাদক আবদুল্লাহ বীরপ্রতীক, কাদের সিদ্দিকীর সহধর্মিণী নাসরিন কাদের সিদ্দিকী ও সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান কায়সার চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com