রাজশাহীতে কাঠের গুড়ি, ছুরি-চাকু কেনার ধুম

রাজশাহীতে কাঠের গুড়ি, ছুরি-চাকু কেনার ধুম

রাজশাহীতে কাঠের গুড়ি, ছুরি-চাকু কেনার ধুম।

লোকালয় ডেস্ক: রাজশাহীতে মুসল্লিদের কোরবানীর পশু কেনা শেষ। শেষ মুহূর্তে এসে ছুরি-চাকু ও কাঠের গুড়ি কেনার পালা। সেই সঙ্গে খেজুর পাতার পাটি এবং পলিথিনও বিক্রি হচ্ছে দেদার। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে বিক্রি হচ্ছে এসব।

বিক্রেতাদের অধিকাংশই মৌসুমী। শহরের বাইরে থেকে এসে কেউ কেউ পসরা সাজিয়ে বসেছেন শহরে। কেউ কেউ ভ্যানে করে পাড়া মহল্লায় বিক্রি করছেন এসব। শেষ মুহূর্তে ভালো বেচাকেনায় সবাই খুশি।

রাজশাহী নগরীর শিরোইল কলোনী চার নম্বর গলির বাসিন্দা কামাল হোসেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীম শামসুজ্জোহা হলের ডাইনিং স্টাফ হিসেবে কর্মরত তিনি। গত ২৭ আগস্ট থেকে বন্ধ হল। তখন থেকেই ছুটি তার।

অবসর সময়টুকু কাজে লাগাতে দুই বন্ধু মিলে খুলে বসেছেন কাঠের গুড়ি ও ছুরি-চাকুর দোকান। রাজশাহী-নওগাঁ মগাসড়কের নগরীর শালবাগান এলাকায় অস্থায়ী এ দোকানে রয়েছে বিভিন্ন দাম ও সাইজের এসব পণ্য।

তিনি বলেন, তার দোকানে ৩০ টাকা থেকে ৭০ টাকা দামের বিভিন্ন সাইজের ছুরি-চাকু রয়েছে। রয়েছে ১০০ টাকা থেকে হাজার টাকা দামের বিভিন্ন সাইজের তেঁতুল কাঠেরগুড়ি। বিক্রি করছেন ১১০ টাকা থেকে ১২৫ টাকা দামের খেজুর পাতার পাটি।

একই এলাকায় সড়কের দুধারে অন্তত: দশটি দোকান বসেছে এসব পণ্যের। এদের একজন নাসির হোসেন বাবু। তিনি জানালেন, জ্বালানী উৎস নামে একটি খটির দোকান রয়েছে তার। এর পাশাপাশি প্রতি কোরবানী ঈদেই ছুরি-চাকু, কাঠের গুড়ি এবং খেজুর পাতার পাটি বিক্রি করেন।

তার ভাষ্য, শহরের বাসিন্দারা শৌখিন। একদিনের জন্যই এসব কেনেন তারা। প্রায় ১৫ বছর ধরে ওই এলাকায় এসব পণ্যের দোকান খুলছেন তিনি। প্রতি ঈদেই ভালো বেচাকেনা হয়। এবারও হচ্ছে।

রাজশাহী নগরীর সাগরপাড়া এলাকায় ফুটপাতে অস্থায়ী দোকান বসেছে ছুরি-চাকুর। নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার দেলুয়াবাড়ি থেকে হাপরসমেত এসেছেন প্রণয় কর্মকার। সঙ্গে এনেছেন পাঁচ জন কর্মী।

তিনি জানান, তারা বিভিন্ন সাইজ ও দামের ছুরি, চাকু, হাসুয়া, দা, বটি, চাপাতিসহ গৃহস্থালী পণ্য বিক্রি করছেন। শান দিচ্ছেন পুরনোগুলোতেও। গত ২৪ আগস্ট দলবল নিয়ে রাজশাহীতে এসেছেন তিনি। এর মধ্যে গত বুধ ও বৃহস্পতিবার বেচাকেনা হয়েছে প্রায় ২০ হাজারের মত। আগের কয়েকদিনের বেচাকেনা এর অর্ধেক।

তার এ দোকানে সাইজ ও মানভেদে ৩০ থেকে ৭০ টাকায় চাকু, ১৫০ থেকে ৪০০ টাকায় ছুরি,২৫০ থেকে ৩০০ টাকায় দা, ৬০ থেকে ৫০০ টাকায় বটি, ১০০ থেকে ২৫০ টাকায় হাসুয়া এবং ৩০০ থেকে ৫০০ টাকায় চাপাতি বিক্রি হচ্ছে।

গতবারের চেয়ে এবার এসব পণ্যের দাম কিছুটা বেশি জানিয়ে প্রণয় কর্মকার বলেন, এবার ভালো লোহার দাম বাড়তি। এসব লোহা প্রতি কেজি কিনে নেন ১২০ টাকায়। এরপর হাতিয়ার বানিয়ে তা বিক্রি করেন প্রায় ৪০০ টাকা দরে। এলাকায় তেমন কাজ না থাকায় রাজশাহী এসেছেন বলে জানিয়েছেন এই কর্মকার।

 

লোকালয়/একে

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com