রাজশাহীতে অপহরণ মামলায় পুলিশের এসআই ও তার স্ত্রী অভিযুক্ত

রাজশাহীতে অপহরণ মামলায় পুলিশের এসআই ও তার স্ত্রী অভিযুক্ত

রাজশাহীতে অপহরণ মামলায় পুলিশের এসআই ও তার স্ত্রী অভিযুক্ত
রাজশাহীতে অপহরণ মামলায় পুলিশের এসআই ও তার স্ত্রী অভিযুক্ত

রাজশাহী প্রতিনিধি- রাজশাহীতে শিশু ও তার মাকে অপহরণ মামলায় পুলিশ উপ-পরিদর্শক (এসআই) ও তার স্ত্রী অভিযুক্ত। এ ঘটনায় পুলিশের মধ্যে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

মোবাইল ফোনের কল রেকর্ডসহ তদন্তে উঠে এসেছে ওই এসআই ও তাঁর স্ত্রীর নাম। এপিবিএনে কর্মরত ওই এসআই এবং তাঁর স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করতে এরই মধ্যে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছে অনুমতি চেয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।

রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া থানায় দায়েরকৃত ওই মামলার তদন্তকারী গোলাম মোস্তফা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে আসামিকে গ্রেপ্তারের স্বার্থে তিনি তাঁর নাম প্রকাশ না করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।

মামলা সূত্রে মতে, গত মার্চ রাজশাহী নগরীর শালবাগান এলাকা থেকে সবনাম সুলতানা পাখি নামের এক গৃহবধূ তাঁর ৮ বছরের মেয়েসহ নিখোঁজ হয়। গৃহবধূর স্বামী আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে নগরীর বোয়ালিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে (অপহরণ) একটি মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় বাউল শিল্পী ডলার, তাঁর পরিচিত সাউফুল রহমান ডেভিড ও ডেভিডের স্ত্রী নুপুরকে আসামি করা হয়। এরপর ভিকটিম পাখির মোবাইলের কললিস্ট ধরে আসামিদের গ্রেপ্তারে মাঠে নামে। তাদের মধ্যে ডলার আত্মসমর্পণ করেন ও অন্য দুজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলার নথিসূত্র মতে, ডলার, ডেভিড ও নুপুরকে পুলিশকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করে। কিন্তু তাদের নিকট থেকে তেমন কোনো তথ্য আদায় করতে পারেনি। এই ঘটনার সঙ্গে বাউল শিল্পী ডলার জড়িত নাই-এমনটিও প্রায় নিশ্চিত হয় পুলিশ। তবে ভিকটিমের কললিস্ট ধরে পুলিশ নিশ্চিত হয়, ওই ঘটনার সঙ্গে রাজশাহী নগরীর রাজপাড়া থানার সাবেক এক এসআই ও তাঁর স্ত্রী জড়িত রয়েছে।

নগরীর বোয়ালিয়া থানা সূত্র নিশ্চিত করেছে, ওই ঘটনার পরে মামলার তদন্তের স্বার্থে এসআই ও এবং তাঁর স্ত্রীকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অনুমতি আবেদন করেছেন বোয়ালিয়া থানা। এসআই’র স্ত্রীকে গ্রেপ্তারে নির্দেশ দিয়েছেন নগর পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই গোলাম মোস্তফা জানান, তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করা সম্ভব হচ্ছেনা। ওই অপহরণ মামলায় এক পুলিশ কমকর্তা ও তাঁর স্ত্রী জড়িত রয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। খুব শিগ্রই অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা ও তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করা হবে।

এদিকে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কিছুই জানেন না এমটাই মন্তব্য করেছেন বোয়ালিয়া থানা ওসি আলমগীর।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com