রওশনের আসনে বাধাহীন বিএনপি

রওশনের আসনে বাধাহীন বিএনপি

রওশনের আসনে বাধাহীন বিএনপি
রওশনের আসনে বাধাহীন বিএনপি

লোকালয় ডেস্কঃ ময়মনসিংহ জেলার ১১টি আসনের মধ্যে অধিকাংশেই সংঘাত-সংঘর্ষ বা ধানের শীষের প্রার্থীর প্রচারে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ময়মনসিংহ সদর উপজলা নিয়ে গঠিত ময়মনসিংহ-৪ আসন। এখানে বিএনপির প্রার্থী বাধাহীনভাবে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। শহর ও আশপাশের গ্রামেও তাঁর নির্বাচনী পোস্টার চোখের পড়ার মতো। ২৪ ডিসেম্বর শহরে তাঁর পক্ষে কয়েক হাজার মানুষের প্রচার মিছিলও হয়েছে।

এ আসনে বিএনপির প্রার্থী আবু ওয়াহাব আকন্দ বলেন, তিনি ‘নিয়ন্ত্রণ’ উপেক্ষা করেই প্রচারণা চালাতে পারছেন।

গত রোববার থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত এই আসনের বিভিন্ন পর্যায়ের রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষ মিলিয়ে অন্তত ২০ জনের সঙ্গে কথা বলে ‘শান্তিপূর্ণ’ এই পরিবেশের পেছনে একাধিক কারণ জানা গেছে। প্রথমত, এখানে আগে থেকেই রাজনৈতিক সংঘাত তুলনামূলক কম। দ্বিতীয়ত ও সবচেয়ে বড় কারণ হলো, এখানে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী নেই। এখানে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থী জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা এবং জাতীয় পার্টির কো-চেয়ার‌ম্যান রওশন এরশাদ। তাঁর প্রতীক লাঙ্গল। এ কারণে প্রচারের শুরুর দিকে আওয়ামী লীগের সব নেতা-কর্মী সক্রিয়ভাবে মাঠেও নামেননি। অবশ্য চার–পাঁচ দিন ধরে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে রওশনের পক্ষে মাঠে নেমেছেন। প্রচারে তাঁরা বলছেন, রওশন এরশাদ জিতলে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার হাত শক্তিশালী হবে। লাঙ্গলের অনেকগুলো নির্বাচনী কার্যালয়ে রওশন ও এইচ এম এরশাদের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিও দেখা গেছে। শহরের কাচারিঘাট–সংলগ্ন জিরো পয়েন্টে একটি নির্বাচনী কার্যালয়ের ব্যানারে লেখা ছিল, ‘নৌকা-লাঙ্গল একজোট, মহাজোট মহাজোট’।

এলাকার কয়েকজন ব্যক্তি বলেন, চার-পাঁচ দিন ধরে কোনো কোনো এলাকায় কিছুটা উত্তেজনা সৃষ্টি হলেও এখনো বিএনপির প্রার্থীকে বড় কোনো বাধার মুখে পড়তে হয়নি।

বিএনপির প্রার্থী আবু ওয়াহাব আকন্দ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক। নির্বাচন নিয়ে গতকাল দুপুরে তাঁর সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, তিনি নিয়মতান্ত্রিকভাবে প্রচার চালাতে পারছেন। সামনাসামনি কোনো ‘হিচিং’ নেই। তবে কয়েক দিন ধরে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। যেমন তাঁর সর্বশেষ প্রচার মিছিলটি গতকাল পলিটেকনিক মাঠে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু একই স্থানে প্রতিপক্ষ কর্মসূচি ডাকায় তিনি কর্মসূচি প্রত্যাহার করেন। এখন ঘরে ঘরে গিয়ে ভোট চাইছেন।

অবশ্য রওশন এরশাদের নির্বাচনী প্রচারকাজের অন্যতম নেতা ময়মনসিংহ মহানগর জাতীয় পার্টিরসভাপতি জাহাঙ্গীর আহমেদ গতকাল  বলেন, ময়মনসিংহ বিভাগ হওয়া থেকে শুরু করে জেলার উন্নয়নে রওশন এরশাদের যে ভূমিকা, তাতে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে এমনিতেই লক্ষাধিক ভোটের ব্যবধানে তাঁদের প্রার্থী জিতবেন।

শুধু শহর এলাকায় নয়, এই আসনের ব্রহ্মপুত্র নদের ওপারে চর এলাকাতেও গতকাল বিকেল পর্যন্ত প্রার্থীরা প্রচার চালাতে পেরেছেন। দুপুরে চরের জয়বাংলা বাজারের একটি দোকানে বসে ছিলেন রতন মিয়া নামের এক যুবক। নির্বাচনী প্রচারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এখানে সবাই সবাইরে চেনে। এ জন্য কোনো ঝামেলা নেই। প্রচারেও কেউ কাউকে বাধা দিচ্ছে না।’

৫ লাখ ৫৬ হাজার ৯৯৬ জন ভোটারের এ আসনে লাঙ্গল ও ধানের শীষের প্রার্থীর বাইরে বাংলাদেশের কমিউনস্টি পার্টির এমদাদুল হক, ইসলামী আন্দোলনের মো. নাসির উদ্দিন ও এনপিপির হামিদুল ইসলামও নির্বাচন করছেন। তবে মূল লড়াই হবে লাঙ্গল ও ধানের শীষের মধ্যে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com