সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
যৌতকের টাকা নিয়ে গৃহবধুকে নির্যাতন: নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন গৃহবধু

যৌতকের টাকা নিয়ে গৃহবধুকে নির্যাতন: নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন গৃহবধু

নিজের অবুঝ দুই কন্যা সন্তানকে ফিরে পেতে বাংলাদেশ সরকার ও বৃটিশ সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন মোছাঃ মোকরমা নামে এক গর্ভধারীনি মা। গতকাল শনিবার হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আকুতি জানান। মোর্কারমা বানিয়াচং উপজেলার দক্ষিণ সাঙ্গর গ্রামের মাওলানা মহি উদ্দিন এর কন্যা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০১৪ সালের অক্টোর মাসে হবিগঞ্জ পৌরসভাধীন শায়েস্তানগর আবাসিক এলাকার মৃত সামছুল হুদার পুত্র মোঃ বদরুদোজ্জা চৌধুরীর সাথে রেজিস্ট্রারী কাবিনমূলে তাঁর বিয়ে হয়। বিয়ের পূর্বে উকিল মারফত তিনি ও তাঁর পরিবার জানতেন, তাঁর স্বামী ইতিপূর্বে একটি বিয়ে করেছেন। তবে বনিবনা না হওয়ায় তাকে তালাক দিয়েছেন। কিন্তু বিয়ের পর স্বামীর সঙ্গে ঘর সংসার করতে থাকাবস্থায় তিনি জানতে পারেন তাঁর স্বামী আরও তিনটি বিয়ে করেছেন। তাঁর স্বামীর বদমেজাজ আচরণ ও তার পরিবারে থাকা স্বামীর ৩ বোনের হিংসাত্মক আচরণে ওই স্ত্রীরা ঘর সংসার করতে পারেনি। এসকল বিষয় জেনেও মোর্কারমা ভবিষ্যত চিন্তা করে স্বামীর সঙ্গে ঘর সংসার করতে থাকেন। ৪/৫ মাস দাম্পত্য জীবন তাঁর ভালই চলছিল। কিছুদিন পরই স্বামীর আসল চেহারা তাঁর নিকট ধরা পড়ে। স্বামী বদরুদোজ্জা চৌধুরী তাঁকে কোনরূপ কারণ ছাড়াই অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে বলেন ‘তুই এত খাটো, তোর সঙ্গে আমার দাম্পত্য জীবন অতিবাহিত করিতে কষ্ট হচ্ছে, মোটেই ভালো লাগে না। যদি আমার সঙ্গে ঘর সংসার করিতে চাস তাহলে তোর পিত্রালয় হতে ১০ লক্ষ টাকা যৌতুক বাবত আমাকে আনিয়া দিতে হইবে।’ একথা শুনার পর মোর্কারমা অনুনয় বিনয় করে স্বামীকে বুঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু তাতে বাঁধ সাধে তাঁর ৩ ননদ। তারা মোর্কারমা’র স্বামীকে বিভিন্নভাবে ফুঁসলিয়ে প্ররোচনা দিয়ে তাঁর সুখের জীবন নষ্ট করার গভীর ষড়যন্ত্র করতে থাকে। ইতোমধ্যে ২০১৫ সালের ২৫ জুলাই মোর্কারমা’র গর্ভে এক কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। তাঁর নাম রাখা হয় নাসুহা চৌধুরী। তাঁর সেই কন্যা সন্তানটিকেও ননদরা বেশ কয়েকবার মেরে ফেলার চেষ্টা করে। এভাবে অতিকষ্টে মোর্কারমা স্বামীর ঘর সংসার করতে থাকাবস্থায় ২০১৭ সালের ২২ মে মোছাঃ মালিহা চৌধুরী নামে এক কন্যা ও ২০১৯ সালের ২০ ফেব্রæয়ারি মোঃ ইব্রাহিম চৌধুরী নামে এক পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। সন্তান জন্মের পর বদরুদোজ্জা চৌধুরীর তার বোন শান্তা চৌধুরী, শেলি চৌধুরী ও সুরাইয়া চৌধুরীর প্ররোচনায় তাঁর উপর যৌতুকের টাকা পয়সার জন্য চাপ সৃষ্টি করতে থাকেন। এতে তিনি রাজি না হওয়ায় বদরুদোজ্জা চৌধুরী তাঁর কাছ হতে জোরপূর্বক কিছু অলিখিত কাগজে স্বাক্ষর নেন। তাছাড়া বিয়ের কিছুদিন পর মোর্কারমার স্বামী তাঁর নামে এবি ব্যাংকে একটি একাউন্ট খুলেন। একাউন্টে টাকা আসার পর চেকে তাঁর স্বাক্ষর নিয়ে সব টাকা ননদ ও তাদের স্বামীরা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করেন। তাকে ভুল বুঝিয়ে স্বামী বদরুদোজ্জা চৌধুরী তাঁর অবুঝ দুই কন্যা সন্তানকে বিদেশ নিয়ে যান। এর পর হতে তাঁর সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। নাবালিকা সন্তানদের সাথে যোগাযোগ বন্ধ থাকায় তিনি ও তাঁর সন্তানরা মাসনিকভাবে ভেঙে পড়েছেন। স্বামীর ৩ বোনের মধ্যে একজন স্বামী পরিত্যাক্ত ও অপর ২ জন তাদের স্বামীকে নিয়ে বদরুদোজ্জা চৌধুরীর সংসারে বসবাস করেন। তাঁরা মোর্কারমার স্বামীকে যেভাবে বুঝায় সেভাবেই তাঁর স্বামী বুঝেন। তাঁরা মোর্কারমাকে সারাদিন কাজের মেয়ের মতো কাজ করায়। কাজ না করলে নানাভাবে অপমান, জ্বালাযন্ত্রণা দিতে থাকে। তাঁর স্বামী তাঁর কোন খোঁজ খবর নেয় না। তাঁর স্বামী বোনদের সাথে যোগাযোগ করে এবং বলে তাঁকে এমনভাবে যন্ত্রণা দিতে যাতে সে তাঁর সংসার ত্যাগ করে পিত্রালয়ে চলে যায়। ২০২১ সালের শেষের দিকে তাঁর গর্ভে এক সন্তান আসে। সন্তানের বয়স যখন ৩ মাস তখন তাঁর স্বামী লন্ডনে ছিলেন। বদরুদোজ্জা চৌধুরীর স্বামী পরিত্যাক্ত বোন ও অপর ২ বোন মিলে তাঁর গর্ভে থাকা সন্তান নষ্ট করার প্ররোচনা দেয়। এতে সে রাজি না হলে তারা তাকে মারপিট করে তাঁর গর্ভের সন্তান নষ্ট করে ফেলে। তাঁর স্বামী বদরুদোজ্জা চৌধুরী বিয়ে পাগল ও প্রতারক। সে তার ৩য় স্ত্রীর কাবিন দিয়ে আপন বোন শান্তাকে স্ত্রী দেখিয়ে লন্ডনে নিতে চাইলে এ সংবাদ তার ৩য় স্ত্রী ও শ্বশুর জানতে পেরে তারা মনে কষ্ট পেয়ে বদরুদোজ্জা চৌধুরীর সাথে ঝগড়া করে মেয়েকে নিয়ে যান। বর্তমানে তাঁর স্বামী তাকে বলে তাঁর একমাত্র ছেলে মোঃ ইব্রাহিম চৌধুরীকে লন্ডনে নিয়ে যাওয়ার জন্য। এতে তিনি আমি রাজি না হওয়ায় তাঁর উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে তিনি ও তাঁর ছেলের ক্ষতি করার জন্য চক্রান্তে লিপ্ত হন। এরই ধারাবাহিকতায় স্বামীর নির্দেশে ও হুকুমে তার ৩ বোন একে অপরের সহযোগীতায় মোর্করমার সঙ্গে সর্বদা ঝগড়া বিবাদে লিপ্ত থাকে। তারা তাঁর উপর চরমভাবে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে ৩ বোন কেতলী ভর্তি গরম জল দিয়ে তাঁর শরীর ঝলসে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কিছুদিন পূর্বে তাঁর কোলে থাকা একমাত্র ছেলেকে নিয়ে স্বামীর বসত ঘরে হাটাহাটিরত অবস্থায় চারদিক হতে তাঁর শরীরে ও ছেলের শরীরে গরম পানি ঢেলে দেয়। এতে তাঁর শরীরের স্পর্শকাতর স্থান, হাত, কোমড়ের নিচে এবং তাঁর ছেলের কোমড়ে পড়ে মারাত্মকভাবে ঝলসে যায়। এ ঘটনার পর তাঁর স্বামীর নির্দেশে স্বামীর ৩ বোন তাকে বলে- ‘এ বিষয়ে যদি আমার পিতাকে অবহিত করি তাহলে আর কোন দিন ঘর সংসার করিতে দিবে না। তাহারা আমাকে বলে যে, আমার পিতাকে আমি সংবাদ দিয়া বলি যেন অসাবধানতা বশতঃ গরম জল শরীরে পড়িয়াছে।’ মোর্কারমা নিরুপায় হয়ে স্বামীর সংসারে থাকার আশায় এহেন ঘটনা তাঁর পিতাকে ননদদের কথামত জানান। ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে তাঁর স্বামী লন্ডন হতে দেশে এসে পুনরায় ছেলেকে সাথে দেয়ার জন্য তাঁর মতামত চাইলে তিনি তাতে মত দেননি। এতে তাঁর স্বামী ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে টেনে নিয়ে বাসার ছাদের উপর তুলে গ্রীলের সাথে বেঁধে রাখেন। সারাদিন রোদের মধ্যে অর্ধাহারে অনাহারে থাকার পর তিনি কান্নাকাটি করে কোনভাবে রক্ষা পান। স্বামী ও তার বোনদের নির্মম অত্যাচারে তিনি অতিষ্ঠ হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে বাধ্য হয়ে তিনি স্বামীর সংসার ছেড়ে বেড় হওয়ার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করলেও ননদরা তাকে চোখে চোখে রাখে। গত প্রায় ৬ মাস পূর্বে তাঁর পিতার দেয়া প্রায় ৭ ভরি স্বর্ণালংকার ননদরা জোরপূর্বক রেখে দিয়ে তাকে ধাক্কা মেরে এক কাপড়ে শিশু সন্তানসহ বাসা হতে বের করে দেয়। অদ্যাবধি স্বামী তাঁর বা সন্তানের কোর খোঁজ নেয়নি কিংবা ভরণপোষণও দেয়নি। উপরন্তু তাঁর স্বামী এবং ননদরা সে ও তাঁর পরিবারের সদস্যদেরকে নানাভাবে হুমকি দিচ্ছে। যে কোন সময় তাকে কিংবা তাঁর ছেলেকে অপহরণ করে নিয়া যাওয়াসহ মিথ্যা মামলা মোকদ্দমায় ফেলে হয়রানী করতে পারে। এ অবস্থায় তিনি চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভোগছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com