যে যার মতো দখলে নিলো গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জায়গা

যে যার মতো দখলে নিলো গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জায়গা

নিজস্ব প্রতিবেদক : গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে এবার মাছ ও ফল চুরির অভিযোগ আরেকটি মামলা দায়েরের পর বিশালায়তনের পিএইচএ ভবনটি নিজেদের দখলে নিয়েছে কটন টেক্সটাইল ক্রাফট লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

 

এ ছাড়াও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে ঢুকে নিজেদের জায়গা দাবি করে গাছ কাটা শুরু করে তারা। এতে বাঁধা দেয়ায় দখলকারীদের হামলায় র‌্যাবের গুলিতে পা হারানো লিমন হোসেন গুরুতর আহত হন।

পরে তাকে গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। লিমন গণবিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী। ছাত্র অবস্থায় ঝালকাঠির সাতুরিয়া গ্রামের লিমন হোসেনকে ২০১১ সালের ২৩ মার্চ আটক করেছিল র‌্যাব। সে সময় গুলিতে তার একটি পা হারাতে হয়।

dr zafrullah chowdhury

এদিকে বুধবার রাতে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের বাসিন্দা ও মির্জানগর এলাকার দ্য কটন টেক্সটাইল মিলের চেয়ারম্যান কাজী মহিবুর রব বাদী হয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, নির্বাহী পরিচালক ও কৃষক দলের কেন্দ্রীয় নেতা সাইফুল ইসলাম শিশিরসহ অজ্ঞাত আরও ৪০ জনকে আসামি করে আশুলিয়া থানায় মামলা করেন।

এ নিয়ে জমি দখলের চেষ্টা, ভাঙচুর, চুরির অভিযোগে ডা. জাফরুল্লার বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় মোট পাঁচটি মামলা দায়ের করা হলো।

কাজী রব মামলায় অভিযোগ করেন, তার জায়গায় অনধিকার প্রবেশ করে আসামিরা চাঁদা দাবি করেন এবং না পেয়ে পুকুরে থাকা মাছ চুরি করে।

অপরদিকে আরেক মামলার বাদী স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা নাসির উদ্দিন পিএইচএ ভবনের ১৬ শতাংশ জায়গা নিজেদের দাবি করে সেটিও দখলে নিয়েছেন। নাসির এর আগে আশুলিয়া থানায় ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন।

এছাড়া নিজের জমি দাবি করে গণস্বাস্থ্যের অভ্যন্তরে ১৬৬ শতাংশ জায়গা দখল করে সেখানে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেন পূর্ব ডেন্ডাবর এলাকার আমিনুল ইসলাম।

আশুলিয়া থানা পুশিলের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিজাউল হক দীপু জানান, মামলার আসামিদের বিষয়ে খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। তদন্ত চলছে।

এ বিষয়ে গণবিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দেলোয়ার হোসেন জানান, পিএইচএ ভবন অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। রাস্তা কেটে অবৈধভাবে গনস্বাস্থ্যের জায়গা দখল করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘মামলার বিষয়ে কী আর বলবো। কিছুই বলার নেই। এভাবে একটির পর একটি মামলা দায়ের করা হচ্ছে। একটি মামলায় জামিন নিতে না নিতেই আরেকটি মামলা হচ্ছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com