সংবাদ শিরোনাম :
দশ টাকায় টিকিট কেটে চক্ষু পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী বাহুবলে বেকারিতে অনুমোদনবিহীন বিএসটিআই লোগো ব্যবহার ২৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল ১৪ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু হবিগঞ্জ এসে পৌঁছেছে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া শীতবস্ত্র হাওর থেকে নামছে না পানি, বীজতলা তৈরি নিয়ে শঙ্কা সিলেট বোর্ডে পাসের হার কমেছে ১৭.৯৬ শতাংশ, ফেল বেশি মানবিকে : হবিগঞ্জে পাশের হার ৭৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির  সভা অনুষ্ঠিত  মাধবপুরে নবাগত ইউএনওর মতবিনিময় সভা  মৎস্য কর্মকর্তার ডিজিটাল আইনের মামলায় দুই সাংবাদিকের জামিন মঞ্জুর
যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে শেখ ফজলে শামস পরশ : জিয়া-এরশাদের ক্ষমতার উৎস ছিল ক্যান্টনমেন্ট

যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে শেখ ফজলে শামস পরশ : জিয়া-এরশাদের ক্ষমতার উৎস ছিল ক্যান্টনমেন্ট

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ বলেছেন, জিয়া-এরশাদের ক্ষমতার উৎস ছিল ক্যান্টনমেন্ট। আর আমাদের ক্ষমতার উৎস হচ্ছে জনগণ। বিএনপি জনগণের কাছে ভোট চাইতে ভয় পায়, তাই তারা বিদেশিদের কাছে ধর্না দেয়। তারা পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্নে বিভোর।
গতকাল মঙ্গলবার হবিগঞ্জের জালাল স্টেডিয়ামে জেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। যুবলীগের চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের শত্রু, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার শত্রু বিএনপি। বিএনপি যদি সহিংসতা করে তাহলে আমরাও শক্তি প্রয়োগ করতে বাধ্য হবো।
নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমি জানি সবার মনে প্রশ্ন কে আসবে। কিন্তু প্রকৃত প্রশ্ন হওয়া উচিৎ- কেমন হবে আগামীর নেতৃত্ব। এটাই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। সঠিক নেতৃত্ব ছাড়া কোনো জাতি, দেশ, সংগঠন চলতে পারে না। জাতির উত্থান-পতনের পেছনে ভূমিকা রাখে নেতৃত্ব। জনগণের পাশে থাকার কাজ অব্যাহত রাখতে হবে। যেকোনো মুহূর্তে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকতে হবে।
পরশ আরও বলেন, বর্তমান বাস্তবতায় গ্রুপিং বা বিভক্তির কোনো সুযোগ নাই। নিজের ভাইয়ের পেছনে না লেগে দেশের শত্রুদের মোকাবেলা করতে হবে। আমাদের প্রকৃত শত্রু গণতন্ত্রের শত্রু, দেশের শত্রু।
জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক বোরহান উদ্দিনের পরিচালনায় সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য ডা. মুশফিক হুসেন চৌধুরী, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী এমপি, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মো. আবু জাহির এমপি, হবিগঞ্জ-২ আসনের এমপি আব্দুল মজিদ খান, হবিগঞ্জ-১ আসনের এমপি গাজী মোহাম্মদ শাহ নেওয়াজ প্রমুখ।
সম্মেলনকে ঘিরে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করে জেলা যুবলীগ। এদিকে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী ও ছিলো চোখে পড়ার মতো। বিভিন্ন উপজেলা থেকে শত শত নেতাকর্মীরা সম্মেলনে এসে যোগদান করেন। গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি উপেক্ষা করে নেতাকর্মীরা জালাল স্টেডিয়ামে আসেন। প্রিয় নেতাদের দেখার জন্য দুরদুরান্ত থেকে ছুটে আসেন সর্বস্তরের মানুষ। সম্মেলন শেষে রাতে শিল্পকলা একাডেমীতে কাউন্সিল হয়। কিন্তু সমজোতা না হওয়ায় নেতাকর্মীরা কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে পরামর্শ করে কমিটি করা হবে বলে আশ^স্থ করে চলে যান।
সম্মেলনের শুরুতে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করেন স্থানীয় শিল্পীরা। এ সময় জাতীয় পতাকাসহ দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয় এবং শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্ধোধন করা হয়। সম্মেলনে প্রায় ১০ হাজার নেতাকর্মী উপস্থিত হন। সর্বশেষ ২০১৪ সালের ৪ সেপ্টেম্বর হবিগঞ্জ জেলা যুবলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com