সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
মোমিনের কর্তব্য ইসলামী আদব

মোমিনের কর্তব্য ইসলামী আদব

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

ইসলামী আদব তথা রীতিনীতি যথাযথভাবে অবলম্বন করা মোমিনের অবশ্যকর্তব্য। আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘হে মুমিনগণ! তোমরা ইসলামী রীতি অবলম্বন করে নিজেরা দোজখের আগুন থেকে বাঁচ এবং তোমাদের পরিবার-পরিজনকে তা থেকে বাঁচাও।’ হাদিসে আছে, ‘প্রত্যেক সন্তান ইসলামী আদর্শ গ্রহণের যোগ্যতা লাভ করে ভূমিষ্ঠ হয়। কিন্তু তার পিতা-মাতা তাকে ইহুদি বা খ্রিস্টান বা অগ্নিপূজারি বানিয়ে নেয়।’ রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরও বলেন, ‘হে দুনিয়ার মানুষ! তোমরা ইসলামী স্বভাব গ্রহণ কর যার ওপর রেখে আল্লাহ মানুষকে সৃষ্টি করেন। আল্লাহর সৃষ্টিগত এ ইসলামী স্বভাবকে তোমরা পরিবর্তন কোরো না। প্রকৃতপক্ষে এটাই মজবুত ও সুদৃঢ় জীবনব্যবস্থা।’ হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘আল্লাহ আমাকে আদব শিক্ষা দিয়েছেন এবং আমাকে উত্তম আদব শিক্ষা দিয়েছেন আর তিনিই আমাকে জ্ঞান দান করেছেন এবং উত্তম জ্ঞান দান করেছেন।’ হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘আমি ১০ বছর রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের খেতমত করেছি। তিনি আমাকে কখনো উহ্ শব্দটুকু বলেননি এবং এ কথাও বলেননি যে তুমি কেন করলে বা তুমি কেন করলে না।’ হজরত আবু সাইদ (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পর্দানশিন কুমারী মেয়েদের চেয়েও লাজুক ছিলেন। যখন তিনি কোনো কাজ অপছন্দ করতেন তখন তাঁর চেহারায় আমরা সে পরিচয় পেতাম।’ বুখারি, মুসলিম। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘আমি রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি যখন নামাজ কায়েমের জন্য আহ্‌বান করা হয় তখন তোমরা দৌড়াতে দৌড়াতে নামাজের দিকে এসো না, বরং ওই সময় তোমরা সেদিকে শান্তভাবে ধীরগতিতে চলে আসবে। এরপর নামাজের যতটুকু পাও আদায় করবে। আর বাকিটুকু পুরা করে নেবে।’ বুখারি, মুসলিম। হজরত আয়শা (রা.) থেকে বর্ণিত, ‘প্রত্যেক কাজে ও কর্মে ডান দিক থেকে সম্পন্ন করা হজরত রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের খুব পছন্দনীয় ছিল। যেমন পাক পবিত্রতা, মাথা আঁচড়ানো, জুতা পরিধান ইত্যাদি।’ বুখারি, মুসলিম। হজরত আয়শা (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘যখন তোমাদের কেউ খাবার খায় তখন সে যেন আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে, যদি কেউ প্রথমে ভুলে যায় তখন খাওয়ার মধ্যে যখনই স্মরণ হয় সে যেন বলে আমি আল্লাহর নাম প্রথম ও শেষে উচ্চারণ করলাম।’ আবু দাউদ। আল্লাহ আমাদের সবাইকে ইসলামী আদব তথা রীতিনীতি অবলম্বনের তৌফিক দিন।

লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।

আবদুর রশিদ

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com