মোবাইল ফোনে পত্নীতলা থানার নির্মাণকাজের উদ্বোধন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

মোবাইল ফোনে পত্নীতলা থানার নির্মাণকাজের উদ্বোধন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

মোবাইল ফোনে পত্নীতলা থানার নির্মাণকাজের উদ্বোধন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁ জেলার পত্নীতলা থানায় ছয় তলা ভিতসহ দুই তলা ভবণের নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। বুধবার (২৫ জুলাই) দুপুরে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের এই কাজ উদ্বোধন করার কথা ছিল। তবে প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে সশরীরে আসতে না পারলেও মোবাইল ফোনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই নির্মাণকাজের উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

ফোনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকার বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর প্রভূত উন্নয়ন করেছে। পুলিশ বাহিনী বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রেখে স্বাধীনতাকে তরান্বিত করেছিল। সেই পুলিশ বাহিনীকে বর্তমান সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে যথাসাধ্য আধুনিকভাবে গড়ে তোলা হয়েছে। তাদের বেতনভাতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। আধুনিক অস্ত্রশস্ত্র সরবরাহ করে বিশ্বমানের করা হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে পর্যায়ক্রমে দেশের সব থানায় আধুনিক থানা ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়েছে।’

 

নওগাঁর পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসেনের সভাপতিত্বে নির্মাণকাজ উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত  সুধী সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নওগাঁ সদর আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আব্দুল মালেক, জাতীয় সংসদের হুইপ শহিদুজ্জামান সরকার এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি, মো. ইসরাফিল আলম এমপি,  ছলিম উদ্দিন তরফদার এমপি।

 

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সাবেক এমপি বেগম শাহিন মনোয়ারা হক, ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো. মাহবুবুর রহমান, গণপূর্ত বিভাগ নওগাঁ’র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ওসমান গণি, ১৪ বডার র্গাড ব্যাটেলিয়নের কমান্ডার লে. কর্নেল খিজির খান, ১৬ বডার র্গাড ব্যাটেলিয়নের কমান্ডার লে. কর্নেল খাদেমুল বাসার, পত্নীতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. এচাহক হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গাফফার চৌধুরীসহ নওগাঁ জেলা ও পত্নীতলা উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা।

 

বাংলাদেশ পুলিশের অর্থায়নে গণপূর্ত বিভাগ নওগাঁ এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। নিচ তলায় ওসি রুম, সার্ভিস ডেলিভারি রুম, চাইল্ড ফিডিং রুম, চার জন সাব-ইন্সপেক্টরের অফিস রুম, সিসিটিভি রুম, ওয়ারলেস রুম, কনফারেন্স রুম, রেকর্ড রুম, মালখানা, কিচেন ও ডাইনিং রুম থাকবে। দ্বিতীয়তলায় পরিদর্শন রুম, ফার্স্ট এইড রুম, ইন্সপেক্টর রুম, সেকেন্ড অফিসার রুম, ইন্টারভিউ রুম, অবজারভেশন রুম, সাব-ইন্সপেক্টর অফিস রুম, ম্যাগাজিন রুম, পুরুষ হাজতখানা, মহিলা হাজতখানা ও শিশু হাজতখানা স্থাপন করার পরিকল্পনা রয়েছে। প্রকল্পের মোট নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ কোটি ১৩ লাখ ৬৯ হাজার ৪২ টাকা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com