মৃত্যুর আগে প্রেমিককে বিয়ে করে গেলেন এক প্রেমিকা!

মৃত্যুর আগে প্রেমিককে বিয়ে করে গেলেন এক প্রেমিকা!

মৃত্যুর মাত্র ১৮ ঘণ্টা আগে প্রিয়তমকে সামাজিক সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন হিথার। কিন্তু সংসার স্বপ্নের জাল বোনা আর হয়নি। পৃথিবীর চিরন্তন সত্যের কাছে নিজেকে পরাজিত করার আগে যে শান্তনা নিয়ে গেছেন তা হচ্ছে, ‘প্রিয় মানুষটি যে তার স্বামী!’ আর পরলোকে পাড়ি দেয়া প্রিয়তমার সেই শেষ ইচ্ছাকে সম্মান জানাতে স্বামী ডেভিড’এরও সংকল্প, ‘আর কেউ হিথারের স্থান পাবে না।’

গল্পকেও হার মানানো ঘটনাটি ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের হার্টফোর্ডে। পুরো ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে যাওয়ার পর তা ভাইরাল হতেও দেরি হয়নি। অনেকেই ডেভিডকে শান্তনা জানিয়েছেন। আর হিথারের আত্মার শান্তি কামনা করছেন।

ঘটনার শুরু ২০১৫ সালে। সে বছরই ডেভিডের সঙ্গে হিথারের প্রথম দেখা। আর প্রথম দেখাতেই প্রেম! বন্ধু ও পরিচিতজনেরা এরপর কখনই দু’জনকে আলাদা দেখেননি। শত কাজের মাঝেও দুজনে সুযোগ খুঁজতেন আর ভাবতেন, কখন দেখা হবে!

দিনগুলো ভালোই যাচ্ছিল। কিন্তু সুখের সেই দিনগুলো স্থায়ী হয়নি! যেদিন হিথারকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়ার কথা ভাবছিলেন ডেভিড, ঠিক সেদিনই তিনি জানতে পারেন প্রেমিকা তার স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত। রোগ তার যে অবস্থায় আছে তাতে আয়ু আর খুব বেশিদিন নেই।

তাই বলে কি পিছু ফিরবেন ডেভিড? ফিরিয়ে নেবেন মুখ? কখনোই নয়! হিথারকে যে প্রচণ্ড ভালোবাসেন ডেভিড। সেদিনই তাই সিদ্ধান্ত নিলেন, যা হয় হবে! এই দুনিয়ায় হিথারের সঙ্গে থাকা হোক বা না হোক, সেই হবে তার চিরসঙ্গী.. একমাত্র স্ত্রী। প্রিয়তমার শেষ দিনগুলো তিনি ভরিয়ে দেবেন আনন্দে।

ডেভিড তাই সবকিছু জেনেই বিয়ের প্রস্তাব দেন হিথারকে। এবং সেটা হাসপাতালে। প্রিয়তমা তখন বিছানায়। ডেভিড জানতেন, সেখান থেকে হিথারের কখনই আর সুস্থ হয়ে ফেরা হবে না।

ডেভিড প্রথমে ঠিক করেছিলেন ডিসেম্বরের ৩০ তারিখ বিয়ে করবেন। কিন্তু হিথারের শরীরের অবস্থা ক্রমেই অবনতি হওয়ায় তিনি সিদ্ধান্ত পাল্টাতে বাধ্য হয়। ফলে বিয়ের তারিখ আরও এগিয়ে এনে ধার্য করেন ২২ ডিসেম্বর।

হিথার যেখানে ভর্তি অর্থাৎ কানেক্টিকাটের সেন্ট ফ্রান্সিস হাসপাতালে বিয়ের আয়োজন করা হয়। সাদা গাউনে হাসপাতালের বেডে মৃত্যুশয্যায় থাকা হিথারের হাতে আংটি পরিয়ে দেন ডেভিড।

‘ডেভিডকে স্বামী হিসেবে গ্রহণ করতে রাজি কিনা’ যাজকের এমন প্রশ্নের জবাবে জীবনের আনন্দময় শেষ দু’টি শব্দ তখন উচ্চারণ করেন হিথার! প্রেমিকের দিকে গভীর দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলেন ‘I Do’।

এরপর ক্রমেই খারাপ হতে থাকে হিথারের শরীর। নিয়ে যাওয়া হয় আইসিইউ’তে। চব্বিশ ঘণ্টা না ঘুরতেই নিথর হয়ে যায় হিথারের শরীর। কিন্তু তার মৃত্যু হয় ডেভিডের স্ত্রী হয়েই!

আর ডেভিড? এই সুন্দর স্মৃতিটুকু নিয়েই জীবনের বাকি দিনগুলো কাটিয়ে দিতে চান তিনি! আর প্রতিক্ষায় থাকবেন, ওপারে প্রিয়তমার সঙ্গে সাক্ষাতের!

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com