মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা করেই রোহিঙ্গা সংকট সমাধান

মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা করেই রোহিঙ্গা সংকট সমাধান

মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা করেই রোহিঙ্গা সংকট সমাধান
মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা করেই রোহিঙ্গা সংকট সমাধান

লোকালয় ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিয়ানমারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বাংলাদেশের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছেন। সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ ব্যাপারে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে উপস্থিত কর্মকর্তাদের প্রতি এ আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা আলোচনা করেছি, চুক্তি সম্পাদন করেছি। তাদের (মিয়ানমার) সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে এদেরকে (রোহিঙ্গা) নিজ দেশে ফরত পাঠানোটাই আমাদের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্য নিয়ে আমরা এখনো কাজ করে যাচ্ছি। মিয়ানমারের সাথে আমরা ঝগড়া বাঁধাতে যাইনি।’

গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠ্যতা অর্জনের পর চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বভার গ্রহণ করে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় পরিদর্শনের অংশ হিসেবে এদিন প্রথম বারের মতো প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে আসেন তিনি।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়’, এই নীতিতেই সরকার বিশ্বাসী এবং সেই নীতিতেই সরকার পরিচালিত হচ্ছে, উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি এটাই বলব, মিয়ানমার যেহেতু আমাদের প্রতিবেশী, আমরা কখনও তাদের সঙ্গে সংঘাতে যাব না। বরং তাদের সাথে আলোচনার মাধ্যমে তাদের নাগরিকদের তারা যেন ফিরিয়ে নিয়ে যায় সেই প্রচেষ্টাই আমাদের অব্যাহত রাখতে হবে। সে বিষয়ে সবাই যেন সেভাবেই দায়িত্ব পালন করেন, সেজন্যও আমি অনুরোধ করব।’

প্রাকৃতিক বা মনুষ্য সৃষ্ট দুর্যোগ, যাই হোক না কেন তা মোকাবিলা করার ক্ষমতা বাংলাদেশ রাখে, এ দাবি করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেওয়াটাও আজকে বিশ্বের অনেকের কাছেই বিস্ময়।’

কেবল মানবিক কারণেই রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়া হয়েছে, উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মানবিক কারণেই এটা করেছি। নিজেদেরও বলতে গেলে রিফিউজি হিসেবে ’৭৫ এর পরে ৬ বছর বিদেশে অবস্থান করতে হয়েছে। দুঃখজনক হলেও সত্য, নিজের নামটাও আমরা ব্যবহার করতে পারিনি। এরকম দিনও আমাদের মোকাবিলা করতে হয়েছে।’

মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের শরণার্থীরা ভারতে আশ্রয় গ্রহণ করেছিল, উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের নিজেদেরই অভিজ্ঞতা রয়েছে যে, ১৯৭১ সালে আমাদের ১ কোটি মানুষ শরণার্থী হিসেবে ছিল। তাদেরকে নিয়ে এসে পুনর্বাসন করতে হয়েছে, সেই অভিজ্ঞতাও রয়েছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com