সংবাদ শিরোনাম :
দশ টাকায় টিকিট কেটে চক্ষু পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী বাহুবলে বেকারিতে অনুমোদনবিহীন বিএসটিআই লোগো ব্যবহার ২৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল ১৪ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু হবিগঞ্জ এসে পৌঁছেছে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া শীতবস্ত্র হাওর থেকে নামছে না পানি, বীজতলা তৈরি নিয়ে শঙ্কা সিলেট বোর্ডে পাসের হার কমেছে ১৭.৯৬ শতাংশ, ফেল বেশি মানবিকে : হবিগঞ্জে পাশের হার ৭৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির  সভা অনুষ্ঠিত  মাধবপুরে নবাগত ইউএনওর মতবিনিময় সভা  মৎস্য কর্মকর্তার ডিজিটাল আইনের মামলায় দুই সাংবাদিকের জামিন মঞ্জুর
মিষ্টি খাওয়াই কাল হলো মা-মেয়ের সুকড়িপাড়ায় মা-মেয়েকে অচেতন করে ধর্ষণ ॥ লম্পট জসিম পলাতক

মিষ্টি খাওয়াই কাল হলো মা-মেয়ের সুকড়িপাড়ায় মা-মেয়েকে অচেতন করে ধর্ষণ ॥ লম্পট জসিম পলাতক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের সুকড়িপাড়া গ্রামে মিষ্টির সাথে নেশাজাতীয় দ্রব্য পান করিয়ে মা ও কিশোরী কন্যাকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয় ওই পরিবারকে ২শ টাকা দিয়ে কাউকে না বলার জন্য হুমকি দিয়েছে ওই লম্পট। অসুস্থ অবস্থায় ১৪ বছরের কিশোরী কন্যাকে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওই কিশোরী জানায়, তার মাকেও নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে ধর্ষণ করার ফলে বাড়িতে অচেতন অবস্থায় পড়ে রয়েছেন। এ ঘটনা নিয়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
ওই কিশোরী ও তার পিতা রুহুল আমিন জানান, তারা নোয়াখালীর পশুরহাটের বাসিন্দা। দীর্ঘদিন ধরে ওই গ্রামে ২শ শতক জায়গা কিনে বসবাস করে আসছেন। রুহুল আমিন ও তার স্ত্রী রহিমা আক্তার ভিক্ষা করে জীবন যাপন করছেন। তার কিশোরী কন্যার ওপর কুনজর পড়ে একই গ্রামের আকবর আলীর পুত্র লম্পট জসিম (৩০) এর। গত বুধবার রাত ৮টার দিকে তাদের বাড়িতে এসে রুহুল আমিন, তার স্ত্রী রহিমা ও কিশোরী কন্যাকে মিষ্টি খেতে দেয় জসিম। মিষ্টি খাওয়ার পর তারা কিছু বলতে পারে না। সকালে উঠে ওই কিশোরী দেখে তার পরণের কাপড়ছোপড় খোলা এবং তার মাও বিবস্ত্র অবস্থায় রয়েছে। কিন্তু জসিম নেই। বিষয়টি জানাজানি হলে দুপুরের দিকে জসিম ওই কিশোরীকে ২শ টাকা দেয় গোপন রাখতে এবং চিকিৎসা করাতে। যদি বিষয়টি নিয়ে মুখ খোলে তবে তাদেরকে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়ে চলে যায়। বিকালের দিকে তার মার জ্ঞান ফিরে না এলে বিষয়টি স্থানীয় লোকজনকে জানালে তারা ওই কিশোরীকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। রাত ৯টায় রিপোর্ট লেখাকালে তার মাকেও হাসপাতালে নিয়ে আসার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাফরোজা আক্তার শিমুল জানান, বিষয়টি আপনাদের মাধ্যমে জেনেছি। খবর নিয়ে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
এ বিষয়ে সদর ওসি (তদন্ত) বদিউজ্জামান জানান, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com