মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা চালিয়েছে বিএনপি-জামায়াত : ছাত্রলীগের দাবি

মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলা চালিয়েছে বিএনপি-জামায়াত : ছাত্রলীগের দাবি

লিখিত বক্তব্য পাঠ করছেন কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইয়াসির আরাফাত (ডানে)। পাশে সাধারণ সম্পাদক সাদ আহমেদ।

লোকালয় ডেস্ক : বাংলাদেশের দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের ওপর হামলার জন্য বিএনপি-জামায়াতকে দায়ী করেছে কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগ।

 

আজ (মঙ্গলবার) শহরের একটি রেস্টুরেন্টে দুপুর ১২টায় জেলা ছাত্রলীগ এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। সেখানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জেলা সভাপতি ইয়াসির আরাফাত ওরফে তুষার বলেন, ‘আমরা প্রশাসনকে বলেছি, আপনারা খুঁজে বের করেন কে দোষী। আমরা তো এই ন্যক্কারজনক ঘটনা চাই না। আমরা চাই সুষ্ঠু বিচার হোক। কারা হামলা করেছে, দোষী বের হয়ে আসুক। দোষী বের হয়ে এলে বোঝা যাবে, কারা এর সাথে জড়িত।

গত রোববার বিকেলে মানহানির মামলায় জামিন নিতে কুষ্টিয়ায় গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা মাহমুদুর রহমান। আদালত চত্বরে তাঁর ওপর তিন দফায় এ হামলা হয়। ইট, পাথর ও লাঠির আঘাতে তাঁর গাল, কপাল ও মাথার পেছনে কেটে যায়। পরে যশোর থেকে বিমানে করে ঢাকায় এনে তাঁকে রাতে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মাহমুদুর রহমানের অভিযোগ, ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা পরিকল্পিতভাবে তার ওপর এ হামলা চালিয়েছেন। বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকলেও তারা নীরব ছিলেন।

 

 

মাহমুদুর রহমানের অভিযোগের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ইয়াসির আরাফাত বলেন, ‘এটা যে জামায়াত-বিএনপি ঘটিয়েছে, প্রশাসন একটু খোঁজ করলেই বুঝতে পারবে, আপনারাও (সাংবাদিক) টের পাবেন।’

হামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সেখানে (হামলার সময়) ছাত্রলীগের কেউ ছিল না। জেনেছি, সেখানে মুখোশ পরা ছিল অনেকে। আসলে ছাত্রলীগ কখনো মুখোশ পরে হামলা করে না, এটা হামলা করে কারা আপনারা অতীতে দেখেছেন, জঙ্গিরা চেহারা গোপন করে মুখোশ পরে হামলা করে। বাংলাদেশকে জঙ্গি রাষ্ট্র হিসেবে আখ্যা করার জন্য এবং সরকারকে বেকায়দায় ফেলার জন্য জামায়াত-বিএনপি এটা করার চেষ্টা করতে পারে।

লিখিত বক্তব্যে ইয়াসির আরাফাত উল্লেখ করেন, তিনি নিজে মামলার বাদী। তাই আদালতে গিয়েছিলেন। বেলা তিনটার মধ্যে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের নিয়ে তিনি আদালত চত্বর ত্যাগ করেন। হামলার ঘটনার সঙ্গে কোনোভাবেই ছাত্রলীগ জড়িত নয়। ছাত্রলীগ আদালত চত্বরে সকাল ১০টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত ছিল। তাঁর (মাহমুদুর) ওপর সাধারণ আমজনতা ও দুর্বৃত্তরা আঘাত করেছে।

 

সংবাদ সম্মেলনে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ আহমেদ বলেন, ‘বিএনপির মধ্যে একটা মতবিরোধ আছে। ধারণা করছি, জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শহিদুল ইসলাম ও বর্তমান সভাপতি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমীর মধ্যেই এই গ্যাঞ্জামটা হয়েছে। বিএনপির কোনো দুষ্কৃতকারী এটা করেছে। এবং সামনে নির্বাচন সেটা আমাদের ওপর দায়ভার দিতে চাইছে।’

প্রসঙ্গত, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং টিউলিপ সিদ্দিকীকে নিয়ে কটূক্তি করে বক্তব্যে দেয়ায় কুষ্টিয়ায় জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইয়াসির আরাফাত তুষার ২০১৭ সালের ১০ জানুয়ারি তারিখে মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে মানহানি মামলা করেন। এই মামলায় গত রোববার জামিন নিতে গিয়ে হামলার শিকার হন ‘আমার দেশ’ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com