মাত্র ৬০০ টাকা কেড়ে নিলো ফারুকের তরতাজা প্রাণ

মাত্র ৬০০ টাকা কেড়ে নিলো ফারুকের তরতাজা প্রাণ

মাত্র ৬০০ টাকা কেড়ে নিলো ফারুকের তরতাজা প্রাণ
মাত্র ৬০০ টাকা কেড়ে নিলো ফারুকের তরতাজা প্রাণ

ষ্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীর মিরপুরে ফারুক (৪৫) নামে ব্যাক্তির রহস্যজনক মৃত্যুর প্রাথমিক রহস্য উৎঘাটিত হয়েছে। মাদক সেবী ও ব্যবসায়ীদের নিকট থেকে নেওয়া মাত্র ৬০০ টাকা উশুল করতে ফারুকের (৪৫) প্রাণটাই কেড়ে নিলো মাদক ব্যবসায়ীরা।

ঘটনাটি মর্মান্তিক, বুক কাঁপানো, ভয়ঙ্কর আর অবিশ্বাস মনে হলেও সত্য। মাদক কিনতে নেওয়া ৬০০ টাকা পরিশোধ করতেই প্রাণ দিতে হলো ফারুককে। ৬০০ টাকা ফেরত পাওয়ার দাবিতে মাদক ব্যবসায়ীদের বেধরক ও বেসামাল মারধরই ফারুকের মৃত্যুর কারণ বলে দাবি করছে নিহত ফারুকের স্ত্রী ও এলাকাবাসী।

নিহত ফারুকের স্ত্রী নুপুর বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেলে কর্মস্থল থেকে ফেরার সময় স্থানীয় কয়েকজন আমাকে বলে স্থানীয় একদল যুবক আমার স্বামীকে বেধরক মারধোর করেছে। খবর পেয়ে আমি আতঙ্কিত হয়ে দৌড়ে বাসায় গিয়ে দেখি আমার স্বামী মারাত্মক আহত অবস্থায় বিছানায় পড়ে আছে। সে ভালো ভাবে কথাও বলতে পারছিলো না। তার হাত পা প্রচণ্ড ঠাণ্ডা থাকায় আমি তার হাতে পায়ে তেল মালিশ করতে থাকি। আমার কাছে কোন টাকা পয়সা না থাকায় আমি তাকে হাসপাতালে নিতে পারিনি। পাশের একটি ফার্মেসী থেকে ডাঃ ডাকলে তাকে একটি স্যালাইন পুষ করে ও ওষুধ দেয়। এ সময় আমি আমার স্বামীকে জিজ্ঞেস করি তাকে কারা এভাবে মেরেছে? মৃত্যুর আগে সে আমাকে বলে ১০/১২ দিন আগে যুবলীগ নেতা নামধারী মনোয়ার ও রমজান আমাকে মাদক কেনার জন্য ৬০০ টাকা দেয়। কিন্তু সেই টাকা আমি হারিয়ে ফেলি। তাই সেই ৬০০ টাকা ফেরত নিতে তারা আমাকে ধরে নিয়ে এভাবে মারধোর করেছে। এ সময় আমার স্বামী আমার হাত ধরে কাঁদতে কাঁদতে বলে, আমাকে বাঁচাও। আমি মনে হয়ে আর বাঁচবো না।

ফারুকের স্ত্রী নুপুরের বর্ণনা অনুযায়ী মিরপুর এক নম্বরের উত্তর বিশিলের সাত নম্বর রোডের ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় ঘটনার স্থানে একটি বাড়িতে দুটি সিসি ক্যামেরা রয়েছে। রমজান ট্রেডিং নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিককে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সিসি টিভি ক্যামেরায় ধারণকৃত ফুটেজ চাইলে তিনি আন্তরিকতার সাথে জানান, স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া ফুটেজ দেওয়া সম্ভব নয়। তবে বিনীত অনুরোধে তিনি সাংবাদিকদের নিকট ভিডিও ফুটেজ হস্তান্তর না করলেও ভিডিও ফুটেজটি চালিয়ে দেখান। সিসি টিভি ক্যামেরায় ধারণকৃত সেই ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, গত বৃহস্পতিবার বিকেল ৪ টাকা থেকে ৫ টার দিকে চন্দ্রপাড়া দরবার শরীফের পাশের একটি বিল্ডিং থেকে টেনে-হিঁচড়ে জনসম্মুখে ফারুককে কিল ঘুষি মারতে মারতে বের করে নিয়ে আসে স্থানীয় ১০/১৫ জন যুবলীগ নেতাকর্মী নামধারী মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীরা। প্রচণ্ড মারপিট সহ্য করতে না পেরে ফারুক মারাত্মক আহত অবস্থায় মাটিত লুটিয়ে পড়ে। এ সময় ফারুকের মুখ, বুক ও অণ্ডকোষে অবর্ণনীয় ভাবে লাথি মারতে থাকে স্থানীয় কয়েকজন যুবক। সাথে সাথে নাক ও অণ্ডকোষ ধরে ফারুক মাটিতে লুটিয়ে পড়লেও চলতে থাকে লাথি-ঘুষি।

পরে আশংকাজনক অবস্থায় সন্ত্রাসীদের অজ্ঞাত দুই সহযোগী ধরাধরি করে ফারুককে বাসায় পৌছে দেয় বলে দাবি করেছে নিহত ফারুকের স্ত্রী। পরদিন শুক্রবার সন্ধার আগে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে ফারুক।

এদিকে, ফারুকর মৃত্যুর খবর পেয়ে শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে উত্তর বিশিলের উদয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির পেছনের জজ মিয়ার ভাড়া বাসা থেকে তার মরদেহটি উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্যে পাঠায় শাহ আলী থানা পুলিশ।

নিহত ফারুক দীর্ঘদিন নুপুর নামে তার দ্বিতীয় স্ত্রী ও ছোট দুই শিশু ছেলে-মেয়ে নিয়ে উত্তর বিশিলের তিন নম্বর রোডের মাথায় কলা পট্টি উদয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতির বালুর মাঠে জজ মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকতো।

ময়নাতদন্ত শেষে পরদিন শনিবার মিরপুরের বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে নিহত ফারুককে। ঘটনাটির সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে ফারুকের অসহায় পরিবার। ফারুকের স্ত্রী ও পরিবারের দাবি, সিসি টিভি ক্যামেরায় ধারণকৃত ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করলেই তার মৃত্যুর প্রকৃত কারন জানা যাবে।

তবে ফারুকের মৃত্যুর ঘটনার তিনদিন অতিবাহিত হলেও শাহ আলী থানায় কোন মামলা দায়ের না হওয়ার বিষয়ে শাহ্ আলী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সালাউদ্দীন মিয়া সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, আসলে কি কারনে তার মৃত্যু হয়েছে তা এই মূহুর্তে বলা সম্ভব নয়। ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে আসলে তা পর্যালোচনা করে মামলা দায়ের করা হবে। সিসি টিভি ক্যামেরায় ধারণকৃত ভিডিও ফুটেজের বিষয়ে তাকে অবিহিত করা হলে সেই ভিডিও ফুটেজ অতি শীঘ্রই উদ্ধার করা হবে বলেও জানান ওসি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com