সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে মেয়র প্রার্থী মিজানের কর্মীদের হয়রানীর অভিযোগ করোনায় মৃত স্বজনহীন ব্যক্তির পাশে দাঁড়ানো মানবপ্রেমিকদের সংবর্ধনা জানালো পুনাক। নবীগঞ্জে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, অর্ধশতাধিক আহত।। শায়েস্তাগঞ্জে গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার। শায়েস্তাগঞ্জে স্কুল ছাত্র তানভীর হত্যার প্রতিবাদে শোকসভা কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করা হচ্ছে : আইজিপি। বিদ্রোহীদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরতরে বন্ধ। নানক। কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যায় জড়িতদের গ্রেফতার করে ফাঁসির দাবীতে  গোবিন্দগঞ্জে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত। হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে সার্কেল ডে অনুষ্ঠিত। ‌থানার দরজা হবে সেবাগ্রহীতার জন্য উম্মূক্ত- সার্কেলের নবাগত সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মুরাদ 
মন ভোলানো মনপুরা সাগর কন্যা

মন ভোলানো মনপুরা সাগর কন্যা

এ.কে কাওসার :

ধান, সুপারি, ইলিশের জেলা হিসেবে ভোলার খ্যাতি দেশজুড়ে। হিমালয় থেকে নেমে আসা তিনটি প্রধান নদী (পদ্মা, মেঘনা ও ব্রহ্মপুত্র) বাহিত পলি দিয়ে মোহনার বুকে জেগে উঠেছে দ্বীপ জেলা ভোলা।

এ জেলার সৃষ্টির ইতিহাস যেমন আর্কষণীয়, ঠিক তেমনি এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে রয়েছে বৈচিত্রের ছোঁয়া। বিশেষ করে এখানকার চরাঞ্চলের অতিথি পাখির উড়ে বেড়ানো, হরিণের পালের ছোটাছুটি, নদীর বুকে সারি সারি জেলে নৌকা, দল বেঁধে বুনো মহিষের বিচরণ, একরের পর একর মেনগ্রোভ বনাঞ্চল, আকাশ ছোঁয়া কেওড়া বাগান আর সাগর মোহনার সৈকত সব কিছুই কঠিন হৃদয়ের মানুষেরও মন ছুঁয়ে যায়।

ভোলা সদর থেকে ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে বঙ্গোপসাগরের কোলঘেষে মেঘনার বুকে জেগে ওঠা দ্বীপ উপজেলা মনপুরার অবস্থান। প্রমত্তা মেঘনার উত্তাল ঢেউয়ের পলি জমে এ দ্বীপটির জন্ম হয়। সাগরের কোল ঘেষে জন্ম নেওয়ায় স্থানীয়দের কাছে মনপুরা সাগর কন্যা হিসেবে পরিচিত।

এখানে ভোরে সূর্যের আগমনী বার্তা আর বিকেলের পশ্চিম আকাশের সিড়ি বেয়ে এক পা দুপা করে মেঘের বুকে হারিয়ে যাওয়ার দৃশ্য সত্যিই অতুলনীয়। আবার রাতের নতুন শাড়িতে ঘোমটা জড়ানো বধুর মতো নিস্তব্দতায় ছেয়ে যায় পুরো দ্বীপ।

প্রায় ৮’শ বছরের পুরনো মনপুরা উপজেলা বর্তমানে দক্ষিণাঞ্চল তথা দেশজুড়ে পরিচিত একটি নাম। এখানকার ইতিহাস বেশ প্রচীন। ৭’শ বছর আগে এখানে পূর্তগীজ জলদস্যূদের আস্তানা ছিল। যার প্রমাণ মিলে মনপুরায় আজও সে সময়ের লোমশ কুকুরে বিচরণ। প্রাকৃতিক সৌন্দের্য্যরে অপরুপ লীলাভুমি মনপুরায় রয়েছে পর্যটন কেন্দ্রের অপার সম্ভাবনা।

পর্যটকদের কাছে সবচেয়ে আর্কষণীয় বিষয় হচ্ছে এখানকার হাজার হাজার একর জায়গাজুড়ে ম্যানগ্রোভ বনাঞ্চল। এছাড়াও রয়েছে বাহারী প্রজাতির বৃক্ষ, তরুলতা। আরো রয়েছে হরিণ, বানর, ভাল্লুকসহ নানা বৈচিত্রময় প্রাণী। এর গহীন জঙ্গলে ভয়াঙ্কর কিছু প্রাণী রয়েছে বলেও জনশ্রুতি রয়েছে।

মনপুরার রয়েছে ৮/১০টি বিচ্ছিন্ন চর। এগুলো হচ্ছে চর তাজাম্মল, চর জামশেদ, চর পাতিলা, চর পিয়াল, চর নিজাম, লালচর, বালুয়ারচর, চর গোয়ালিয়া ও সাকুচিয়ার চর। আর চরগুলো দেখলে মনে হবে কিশরীর গলায় মুক্তর মালা।

এসব চরাঞ্চলে বন বিভাগের প্রচেষ্টায় গড়ে উঠেছে সবুজের বিল্পব। চোখ ধাঁধানো রূপ নিয়েই যেন এসব চরগুলোর জন্ম। চরগুলোতে রয়েছে মানুষের বসতি। যাদের জীবন যাত্রার মানও কিছুটা ভিন্ন ধরনের। জেলে, চাষী, দিন মজুর, কৃষক ও খেয়া পাড় করে জীবকা নির্বাহ করেন এখানকার বেশির ভাগ মানুষ। তাই সবুজের সমারহ আর পাখিদের কলকাকলিতে মুখরিত বিচ্ছিন্ন সাগর কন্যা মনপুরা পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গুরুত্বের দাবীদার।

স্থানীয়দের দাবি, ভ্রমণ পিয়াষু মানুষকে মুগ্ধতার বন্ধনে আটকে দেয়ার অলৌকিক ক্ষমতা রয়েছে সাগর কন্যার। শীত মৌসুমে এর চিত্র ভিন্ন ধরনের। সুদূর সাইরেরিয়া থেকে ছুটে আসা অতিথি পাখিদের আগমনে চরাঞ্চলগুলো যেন নতুন রুপ ধারণ করে। পাখি বিশেষজ্ঞদের মতে শীত মৌসুমে বাংলাদেশে প্রায় ৬৫০ প্রজাতির অতিথি পাখি আসে। এর মধ্যে সিংহ ভাগই ভোলায় অবস্থান করে। তখন সাগর কন্যার মনপুরার চরে অতিথি পাখিদের অভয়ারন্যে পরিণত হয়।

 

দেশের অন্যসব পর্যটন কেন্দ্রের তুলনায় মনপুরার চিত্র কিছুটা ভিন্ন। মাইলের পর মাইল বৃক্ষের সবুজ সমাহার যেনো ক্যানভাসে আঁকা শিল্পীর নিপুণ হাতে ছোয়া। যেখানে নানান প্রজাতির গাছের সংখ্যা রয়েছে পাঁচ কোটিরও বেশি। রয়েছে একটি ল্যান্ডিং ষ্টেশন। সেখান থেকে সাগরের উত্তাল ঢেউ এর দৃশ্য উপভোগ করা যায় । দেখা যায় সূর্যোদয় ও সূর্য্যাস্তের দৃশ্য। সব মিলিয়ে পর্যটনের অপার সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও সাগর কন্যা আজও অবহেলিত হয়ে পড়ে আছে।

মনপুরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তার চৌধুরী জানান, নিঃসন্দহে এ অঞ্চলে পর্যটন কেন্দ্র গড়ে ওঠতে পারে। মনপুরার অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা, ভালো মানের হোটেল, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতিসহ বিভিন্ন সুবিধা বাড়াতে পারলে পর্যটকদের আকৃষ্ট করার মত সৌন্দর্য লুকিয়ে আছে মনপুরায়। তবে সরকারি, বেসরকারি কিংবা এনজিও সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিরা যদি গুরুত্বের সাথে অবহেলিত এ জনপদের উপর দৃষ্টি রাখে তাহলে খুব শীঘ্রই এখানে পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা সম্ভব।

যেভাবে যাবেন: ঢাকা থেকে সরাসরি লঞ্চযোগে মনপুরা আসা যায়। সন্ধ্যায় সদরঘাট থেকে লঞ্চে উঠে সকাল ১০টায় পৌঁছা যায় মনপুরায়। এছাড়াও ভোলা থেকেও সি-ট্রাক অথবা ইঞ্জিন চালিত ট্রলার করে যাতায়াত করা যায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com