সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বড় আন্দোলনের হুঁশিয়ারি পরিবহন নেতাদের

বড় আন্দোলনের হুঁশিয়ারি পরিবহন নেতাদের

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্ক:ট্রাকচালক লিটন হত্যার বিচার, আয়কর কমানো, পুলিশের হয়রানি, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভার চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন পরিবহন নেতারা। পরিবহন মালিক-শ্রমিক সংগঠনগুলোর মোর্চা বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান, ট্যাঙ্কলরি, প্রাইম মুভার মালিক-শ্রমিক সমন্বয় পরিষদের ব্যানারে নেতারা এ দাবি জানিয়েছেন। একই সঙ্গে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তারা বলেছেন, দাবি মানা না হলে বৃহত্তর আন্দোলন হবে।

শনিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন কার্যালয়ের স্বাধীনতা হলে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা থেকে তারা এ হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। নেতারা বলেছেন, উত্তরা পূর্ব থানা হেফাজতে লিটনকে অমানুষিক অত্যাচার করে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকাণ্ডকে পুলিশ আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিতে চাইছে। পুলিশ হেফাজতে একজন বন্দি কীভাবে কম্বল ছিঁড়ে আত্মহত্যা করতে পারে! পুলিশের এই কল্পকাহিনি মালিক-শ্রমিকরা বিশ্বাস করেন না।

পরিবহন নেতারা বলেছেন, আমরা মাদক কারবারির পক্ষে নই। যে আইনে চালক লিটনকে আটক করা হয়েছিল, সে আইনে বিচার হওয়া উচিত ছিল। কোনো চালক গাড়িতে মাদক বহন করে ধরা পড়লে, তদন্তে প্রমাণিত হলে আইন অনুযায়ী তার বিচার হবে। কিন্তু একজন চালককে হত্যা করা কোনোভাবে মেনে নেওয়া যায় না।

গাড়ির কর কমানোর দাবি জানান পরিবহন নেতারা। তারা বলেন, সরকার মালিক-শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা না করে এক তরফা কর বাড়িয়েছে। করোনায় যখন পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা বিপর্যস্ত, তখন তাদের সহায়তা না করে বর্ধিত আয়কর এ বছর আদায়ে সফটওয়্যারে যুক্ত করা হয়েছে। আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত বিনা জরিমানায় কাগজপত্র হালনাগাদের সুযোগ দেওয়ার আশ্বাস দিয়েও তা করেনি বিআরটিএ।

বক্তারা বলেন, দুই বছর ধরে বিআরটিএ চালকদের লাইসেন্স দিতে পারছে না। হাতে লেখা স্লিপ দিচ্ছে। তা দিয়ে গাড়ি চালাতে গিয়ে চালকরা পুলিশের মামলা ও হয়রানির শিকার হচ্ছেন। করোনার কারণে সরকার পণ্য পরিবহনের সার্ভিস চার্জ বন্ধ রেখেছে। কিন্তু ইজারার নামে সিটি করপোরেশন, পৌরসভাকে চাঁদাবাজির অনুমতি দিয়েছে।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাজাহান খান এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ, শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com