বেঁচে ফেরাদের মুখে ভয়াবহ বর্ণনা

বেঁচে ফেরাদের মুখে ভয়াবহ বর্ণনা

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্ক:পরিচ্ছন্নতার কাজ করছিলেন আমেনা বেগম। ফ্লোর ঝাড়ু দিয়ে ঝুড়িতে ময়লা তুলতে গেলে হঠাৎ তার চোখ জ্বালা করছিল। চোখে ধুলা পড়েছে ভেবে মুখ উপরে তুলতেই দেখেন চারপাশে প্রচণ্ড ধোঁয়া। কোনোভাবেই শ্বাস নিতে পারছিলেন না। সামনে এগোতেই দেখেন চারপাশ থেকে ধেয়ে আসছে আগুন। এ সময় লাইন ম্যানেজার বারবার বলছিলেন, ‘আপনারা ভয় পাবেন না, যে যেখানে আছেন সেখানেই থাকেন। উপরে যেতে চাইলে পেছন থেকে কেউ একজন টেনে ধরে। ফ্লোরের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা মানুষগুলো যে যেভাবে পারছে বাইরে যাওয়ার চেষ্টা করছে।

এ সময় আগুনের তাপ সইতে না পেরে কিছু চিন্তা না করেই দ্বিতীয় তলা থেকে লাফ দেই। তখন মনে হচ্ছিল, আগুনে পুড়ে মারা যাওয়ার থেকে লাফিয়ে পড়ে মৃত্যু অনেক ভালো। এরপর আর কিছুই মনে নেই।

এভাবেই হাসপাতালের বিছানায় বসে নারায়ণগঞ্জের ট্র্যাজেডির ভয়াবহ বর্ণনা দিচ্ছিলেন ৩৬ বছর বয়সী আমেনা বেগম। রূপগঞ্জের সজীব গ্রুপের হাসেম ফুডস লিমিটেডের কারখানায় দ্বিতীয় তলায় কাজ করতেন আমেনা। বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২০৩ নম্বর ওয়ার্ডের ১২ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন তিনি।

বলেন, আমি কি বেঁচে আছি? আর বোধ হয় সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারবো না। হাত ভেঙেছে। কোমরটা নেই। তিনি বলেন, চারপাশে আগুন। শ্বাস নিতে পারছিলাম না। তখন চোখের সামনে চার ছেলেমেয়ে আর স্বামীর মুখটা ভেসে উঠেছে। বেঁচে সন্তানদের কাছে ফিরতে পারবো ভাবিনি। চারপাশ থেকে আগুনের তাপ এতটাই ভয়াবহ ছিল যে, তখন লাফিয়ে পড়া ছাড়া আর কিছু মাথায় আসেনি। আমেনা বেগমের জা বলেন, আমেনার ডান হাত এবং মেরুদণ্ডের হাড় ভেঙে গেছে। পিঠে আঘাত রয়েছে। চার ছেলেমেয়ে এবং স্বামীকে নিয়ে রূপগঞ্জের একটি বস্তি এলাকায় ভাড়া থাকেন। আমেনা গত এক বছরের বেশি সময় ধরে এই কোম্পানিতে ৫ হাজার টাকা বেতনে চাকরি করতেন। তার স্বামী স্থানীয় বাজারে মাছ বিক্রি করেন। পাশেই ১০ নম্বর বেডে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন মাজেদা খাতুন। গ্রামের বাড়ি সিলেটে। স্বামী দুলাল মিয়া দ্বিতীয় বিয়ে করে অন্যত্র চলে যাওয়ায় তিন ছেলেমেয়েকে নিয়ে চোখে অন্ধকার দেখছিলেন মাজেদা। গত একমাস আগে রূপগঞ্জে ফুফুর কাছে চলে আসেন। পরবর্তীতে সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা বেতনে সজীব গ্রুপে নুডুলস, জুসের প্যাকেজিংয়ের কাজ নেন। কথা হয় মাজেদার সঙ্গে। মাজেদা বলেন, প্যাকেজিংয়ের কাজ করছিলাম। হঠাৎ ফ্লোরে থাকা অনেকেই চিৎকার করে দোয়া পড়ছিলো। সামনে এগিয়ে দেখি ভেতরে ধোঁয়া আর আগুন। ফ্লোরের এ মাথা থেকে ও মাথায় এলোমেলোভাবে দৌড়াচ্ছিলাম। এ সময় কোথায় যাবো কী করবো বুঝতে পারছিলাম না। আমরা দশ থেকে ১২ জন সদস্য একত্রিত হয়ে জানালার দিকে এগোতে থাকি। পায়ের নিচের জুতা গলে যাচ্ছিল। এ সময় পেছন থেকে কেউ একজন ধাক্কা দেয়। এরপর যখন জ্ঞান ফেরে তখন নিজেকে হাসপাতালের বিছানায় দেখি। মাজেদার ফুফু বলেন, আমরা দিন আনি দিন খাই। মেয়েটা জীবন বাঁচাতে উপর থেকে লাফ দিলে মুখের ৮ থেকে ১০টি দাঁত পড়ে গিয়েছে। ডান হাত ভেঙে গেছে। মাথায় আঘাত রয়েছে। ছোট ছেলেমেয়েগুলোর কি হবে জানি না।

মারিয়া আক্তার মুন্নী, সবেমাত্র ১৫তে পা দেয়া এক কিশোরী। অষ্টম শ্রেণিতে পড়াশোনা করছিলেন। করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় অভাবের সংসারে কিছু বাড়তি উপার্জনের আশায় যোগ দিয়েছিলেন হাসেম ফুডের কারখানায়। ঘটনার দিন তার ডিউটি ছিল দোতলার টোস্টার সেকশনে। বিকাল ৫টায় ডিউটি শেষ হয়ে গেলেও সেকশন ইনচার্জ তাকেসহ সে সেকশনের অন্যদের বলেন, টার্গেটে কাজ করতে হবে। রাত ৮টার আগে ছুটি নেই। আবার মালামাল প্যাকেজিংয়ে মনোনিবেশ করেন মুন্নী। সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে কি হয়েছে বোঝার আগেই দেখেন চারদিকে হুড়োহুড়ি, দৌড়াদৌড়ি। আতঙ্কে দৌড়াতে গিয়ে কেউ পড়ে যাচ্ছেন মেঝেতে। কেউ বা আশ্রয় নিয়েছেন স্তূপ করা মালের পেছনে। সেখানে কাজ করা প্রায় ৬০ জন শ্রমিকের বড় একটি অংশ সিঁড়ি দিয়ে নিচে নামতে গিয়ে ধোঁয়া দেখে আবার ফিরে আসেন দোতলায়। এ সময় আস্তে আস্তে ধোঁয়া গ্রাস করতে থাকে দোতলার ফ্লোর। বন্ধ হয়ে যায় ফ্লোরের লাইট, ফ্যান। মেশিনগুলোও থেমে যায় একে একে। শুধু মানুষের আর্তনাদ। শত মানুষের একসঙ্গে আর্তনাদ কলিজায় কাঁপুনি ধরিয়ে দেয় মুন্নীর। কিছুক্ষণ ভয় পাওয়া কবুতরের মতো কাঁপতে কাঁপতে ফ্লোরের একটি টেবিলের ভেতরে গিয়ে আশ্রয় নেয় সে। দোতলার ভেতরে আগুনের তাপদাহ আর ধোঁয়াচ্ছন্ন দমবন্ধ পরিবেশে তখন শোনা যাচ্ছিলো ‘বাঁচাও বাঁচাও’ চিৎকার। ‘আল্লাহ আল্লাহ, মাগো, বাবাগো’ বলে কান্না করছিলেন সবাই। আগুনের লেলিহান শিখা যেনো নিচ থেকে সিঁড়ি দিয়ে উঁকি মেরে বারবার দেখিয়ে যাচ্ছিলো তার ভয়ঙ্কর রূপ। সন্ধ্যা তখন সোয়া ৭টা। বাইরে শোনা যাচ্ছিলো এম্বুলেন্স আর ফায়ার সার্ভিসের গাড়ির সাইরেন। সে শব্দ ছাপিয়েও আসছিল বাইরের লোকের চিৎকার- চেঁচামিচির শব্দ। একসময় ফ্লোরের কিছু সাহসী যুবক দক্ষিণ দিকের শাটার ভাঙতে শুরু করে। হাতের কাছে যে যা পেয়েছে প্রাণ রক্ষার আশায় শাটারে আঘাতের পর আঘাত করে যাচ্ছে। একসময় ভেঙে যায় শাটার। লোকজন লাফিয়ে লাফিয়ে নিচে পড়তে থাকে। মুন্নীও তখন টেবিলের নিচ থেকে বের হয় ভাঙা শাটারের কাছে এসে দেখতে পান কাছেই রয়েছে ফায়ার সার্ভিসের অধিক উচ্চতায় অগ্নিনির্বাপণ ও উদ্ধারকাজে  ব্যবহারিত স্নোরকেল ল্যাডার কিংবা হাই টার্ন্টেবল ল্যাডার জাতীয় বিশেষ মই। সে লাফিয়ে পড়েন সেখানে। সেখানে পড়ে চোখের ডানপাশ লোহার সঙ্গে আঘাতে মারাত্মকভাবে জখম হয়। সে সময় মই দেখে ৫ অথবা ৬ তলা থেকে লাফ দেয় এক যুবক। সে মইতে না পড়ে পড়ে যায় নিচে।
এভাবেই সেদিন হাসেম ফুডস অ্যান্ড বেভারেজ কারখানায় কাজ করতে গিয়ে প্রাণে বেঁচে যাওয়া প্রত্যক্ষদর্শী শ্রমিক মারিয়া আক্তার মুন্নী ঘটনার বর্ণনা দিচ্ছিলেন। বর্ণনা দিতে গিয়ে তার শরীরে কাঁপুনি উঠে। এ সময় তার মা হাজেরা আক্তার জানান, মুন্নীকে প্রথমে এম্বুলেন্সে করে স্থানীয় ইউএস-বাংলা মেডিকেলে নিয়ে যাওয়া হলেও তারা সেখানে চোখের চিকিৎসা দিতে না পারায় মুন্নীকে সেখান থেকে বাসায় নিয়ে আসেন। তখন মুন্নী ভয়ে কাঁপছিলো শুধু। বাসাতেই চিকিৎসক এনে তার চিকিৎসা করানো হচ্ছে। তবে গতকাল থেকে মুন্নী চোখে ঘোলা দেখছেন। তাকে উন্নত চিকিৎসার পরামর্শ দিয়েছেন স্থানীয় চিকিৎসক। এ কারণে আহতের তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত করতে ছুটে এসেছেন কারখানার গেইটে। কিন্তু অনেকের হাতে পায়ে ধরেও কোনো কাজ হয়নি। তাদের আরেক আতঙ্ক তার মেয়ে কারখানার শ্রমিক এটা প্রমাণের আইডি কার্ড রয়ে গেছে কারখানার ভেতরেই। হাজেরা বেগম আরও জানান, একসময় চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার শ্যামপুরে তাদের বাড়ি ছিল। কিন্তু অভাবের তাড়নায় সেটা বিক্রি করে চলে আসেন ঢাকায়। তার কোনো ছেলে নেই। তিন কন্যা সন্তানের মাঝে মুন্নী মেজ। পড়াশোনা করতেন স্থানীয় মজিবর রহমান ভূঁইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে। মুন্নীর বাবা মনির হোসেন গোলাকান্দাইল নাগেরবাগ জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন।  বেতন পান ৫ হাজার টাকা। এ কারণে তার বড় মেয়ে উম্মে আয়েশা একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। তাদের দুজনের উপার্জনে চলতো মুন্নী আর তার ছোট বোন উম্মে সায়েমা হোসাইফার পড়াশোনা ও সংসারের খরচ। বাড়ি ভাড়া দিতে পারেন না বলে গোলাকান্দাইল বেড়িবাঁধে একটি ছাপড়া তুলে বসবাস করেন এই পাঁচজন। এখন যদি আহতের তালিকায় নাম না তুলতে পারেন কিংবা সরকারি কোনো অনুদান না পান তাহলে তার চোখটি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। কীভাবে চলবে তার মেয়ের চিকিৎসা। সে চিন্তা কুরে কুরে খাচ্ছে হাজেরা বেগমকে।

এখন যেমন কারখানাটি:  সরজমিন শনিবার প্রতিষ্ঠান ঘুরে দেখা গেছে, সেখানে ৬ তলা ভবনে উদ্ধার অভিযান ও ডাম্পিং কার্যক্রম চালাচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও বিভিন্ন জায়গা থেকে এখনো বের হচ্ছে ধোঁয়া। আছে তীব্র তাপদাহ আর পোড়া গন্ধ। পানিতে ভাসছে ক্যামিকেল। ভবনের অন্যান্য ফ্লোরের কিছু অংশ থেকেও ধোঁয়া বের হতে দেখা গেছে। ৬ তলার ধোঁয়া আর তাপদাহ নিয়ন্ত্রণে এলেই ফায়ার সার্ভিস সেখানে লাশের সন্ধানে উদ্ধার অভিযান চালাবে। কারখানার বাইরে অনেক স্বজন ও উৎসুক মানুষ অপেক্ষায় ছিলেন সর্বশেষ অবস্থা জানতে। উপস্থিত ছিলেন বিপুল সংখ্যক পুলিশ, র‌্যাব, আনসারসহ বিভিন্ন বাহিনীর কর্মকর্তাগণ। নারায়ণগঞ্জ পুলিশ প্রশাসন ও জেলা প্রশাসন তদারকি করছেন ঘটনার। শনিবার দুপুর আড়াইটায় গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন ফায়ার সার্ভিসের তদন্ত কমিটি। এ সময় ফায়ার সার্ভিসের তদন্ত দলের সদস্য ও ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা বিভাগের উপ-পরিচালক দিনমনি শর্মা জানান, পরিদর্শনে তারা ভবনের অনেক ত্রুটি খুঁজে পেয়েছেন। এই ভবন বিল্ডিং কোড মেনে নির্মাণ করা হয়নি। ছিল না কোনো অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা। এ ছাড়া ভবনের আয়তন ও লোকজন অনুযায়ী সেখানে অন্তত ৫টি সিঁড়ি থাকার দরকার ছিল। ৪ তলার সিঁড়ি নেট দিয়ে আটকানো এবং তালাবদ্ধ পেয়েছেন তারা। এতে করে সহজেই বোঝা যায় এই হতাহতের জন্য প্রতিষ্ঠানের বড় গাফিলতি রয়েছে।

ঘটনাস্থলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী: দুপুর ২টায় ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে এসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, এই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় সারা দেশের মানুষ শোকে স্তব্ধ। আমরা কয়েকটি তদন্ত কমিটি করে দিয়েছি। তদন্তে যারা দোষী প্রমাণিত হবেন তাদের আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই ঘটনায় ইতিমধ্যে আইনি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। ৮ জনকে আটক করেছে পুলিশ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আহত এবং নিহতদের সহায়তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আমরা আহতদের সুচিকিৎসা এবং নিহতের জন্য আরও আর্থিক সহায়তা প্রদান করবো।

এদিকে গত শুক্রবার সকালে শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে কারখানার ভেতর অবস্থিত আনসার ক্যাম্প থেকে লুট হওয়া ৩টি অস্ত্র খুঁজে পাওয়া গেছে। ক্যাম্প ইনচার্জ নাসিমা বেগম জানিয়েছেন দুটি শটগান কারখানার বাইরে পরিত্যক্ত অবস্থায় ও একটি শটগান র‌্যাবের সহযোগিতায় উদ্ধার করা হয়েছে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।


শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com