বিসিএসের কোচিং করতে এসে চিরকুট লিখে ছাত্রীর আত্মহত্যা

বিসিএসের কোচিং করতে এসে চিরকুট লিখে ছাত্রীর আত্মহত্যা

বিসিএসের কোচিং করতে এসে চিরকুট লিখে ছাত্রীর আত্মহত্যা
বিসিএসের কোচিং করতে এসে চিরকুট লিখে ছাত্রীর আত্মহত্যা

জয়পুরহাট- ‘আমার মৃত্যুর জন্য আমি নিজেই দায়ী’ এমন একটা চিরকুট লিখে আত্মহত্যা করেছেন শাপলা খাতুন (২৪) নামে এক কলেজছাত্রী। রোববার (৬ জানুয়ারি) রাতে জয়পুরহাট শহরের শান্তিনগর এলাকার একটি ছাত্রী নিবাসে এ ঘটনা ঘটে।

তবে তার স্বামী জানিয়েছেন, মাথা ব্যাথা সহ্য করতে না পেরে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। নিহত শাপলা খাতুন চক-দাদড়া গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের স্ত্রী। তিনি জয়পুরহাট সরকারি ডিগ্রি কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্রী ছিলেন।

শাপলার ফুফা শাহারুর ইসলাম জানান, ৯ মাস আগে পাঠানপাড়া নওটিকা এলাকার আব্দুল গফুরের মেয়ে শাপলা খাতুনের বিয়ে হয় জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে। অনার্সে প্রথম বিভাগ থাকার কারণে সে লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছিল, পাশাপাশি চাকরির চেষ্টা করছিল। এজন্য সে কিছুদিন আগে ছাত্রী নিবাসে ওঠে এবং সেখান থেকেই বিসিএসের কোচিং করছিল। কিন্তু হঠাৎ তার আত্মহত্যার কারণ খুঁজে পাচ্ছি না।

ছাত্রী নিবাসের ছাত্রী মুক্তা ও তাবাসসুম জানান, শাপলা বিসিএস কোচিং করার জন্য ছাত্রী নিবাসে থাকে। সে অনেকদিন থেকে শুধু বলতো মাথা ব্যাথা করছে। রোববার বিকেলে মাথা ব্যাথা করছে বলে আমাদের জানায়। রাতে তার কোনো সাড়া শব্দ না পেয়ে আমরা তার স্বামী ও পুলিশকে খবর দেই। তারা এসে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান।

এ সময় মরদেহের হাতে একটি চিঠিতে লেখা ছিল- ‘আমার মুত্যুর জন্য আমি নিজেই দায়ী। আমার ক্যান্সার হয়েছে। তাই আমি আমার জীবনের সঙ্গে আর কাউকে জড়াতে চাই না। আমি আমার জীবনটা নিজের হাতে শেষ করে ফেললাম। এর জন্য কেউ দায়ী নয়।’

জয়পুরহাট সদর থানার ওসি (তদন্ত) মো. মমিনুল হক বলেন, ছাত্রী আত্মহত্যার খবর পেয়ে আমি নিজে রাতেই ঘটনাস্থলে গেছি। প্রাথমিক সিমটম দেখে এটিকে ‘আত্মহত্যা’ বলেই মনে হয়েছে। যে কক্ষে তার মৃতদেহ পাওয়া গেছে তার দরজা-জানালা স্টিলের সিট ও গ্রিলের তৈরি, যা ভেতর থেকে শক্ত সিটকিনি দিয়ে বন্ধ করা ছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com