বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের উড়িয়ে বাংলাদেশের সিরিজ জয়

বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের উড়িয়ে বাংলাদেশের সিরিজ জয়

খেলাধুলা প্রতিবেদক : টেস্ট সিরিজে নাকাল হওয়ার প্রতিশোধই কি নিলেন সাকিবরা! ক্রিকেটারদর চিন্তায় হয়তো ব্যাপারটা এমন নয়, কিন্তু টেস্টে নাস্তানাবুদ হওয়ার দৃশ্য দেখে যে দর্শক বিমর্ষ হয়ে পড়েছিলেন, তার জন্য ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় তো প্রতিশোধেরই অন্য নাম!

মাশরাফি বিন মর্তুজার নেতৃত্বে ওয়ানডে সিরিজে ক্যারিবীয়দের গুঁড়িয়ে দেয়ার পর সাকিব আল হাসানের বীরত্বে টি-টোয়েন্টিতেও সিরিজ জয় পেলো বাংলাদেশ। পরপর দুই ম্যাচে ফ্লোরিডার অসাধারণ দুটি জয়ে টি-টোয়েন্টির বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের হারানোর স্বাদ পেলেন সাকিবরা। সাদা বলের ক্রিকেটে বাংলাদেশ যে এখন সত্যিই এক বড় নাম, সেটাও যেনো প্রমাণ হয়ে গেলো, তা আমেরিকার মাটিতে, যেখানে আগে কখনোই খেলেনি বাংলাদেশ!

সিরিজ জয়ের জন্য লডারহিলে সোমবার বাংলাদেশ পায় ১৮৪ রানের পুঁজি। যদিও শুরুতে লিটন দাস ও তামিম ইকবাল এমন ঝড় তুলেন যে, তখন মনে হয়েছিলো এই ইনিংসে হেসেখেলেই দুইশ ছাড়িয়ে যাবে বাংলাদেশ।

সেটা না হলেও দারুণ কিছু কীর্তি ঠিকই যোগ হয়। ১৮৪ রানই ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে বাংলাদেশে সর্বোচ্চ রান। অন্য দিকে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে যে কোনো দলের এটি চতুর্থ সর্বোচ্চ ইনিংস।

বাংলাদেশকে এই কীর্তি এনে দেয়ার পথে সর্বোচ্চ ৬১ রান করেন লিটন দাস। সাদা বলের ক্রিকেটে এটিই তার প্রথম হাফ সেঞ্চুরি। মাত্র ৩২ বলে এই রান করেন লিটন। এই রান করার পথে তামিমের সাথে চতুর্থ ওভারের চতু্থ বলেই দলকে ৫০ রান এনে দেন তিনি। যা টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের দ্রুততম হাফ সেঞ্চুরি।

জবাব দিতে নেমে ৩২ রানের মধ্যে তিন উইকেট হারিয়ে ফেলে ক্যারিবীয়রা। আন্দ্রে ফ্লেচারকে ফিরিয়ে প্রথম ধাক্কাটা দেন মোস্তাফিজুর রহমান। পরে চ্যাডউইক ওয়ালটনকে ফেরান সৌম্য সরকার।

সৌম্য বোলিংয়ে আসেন নাজমুল ইসলামের বদলে। নিজের প্রথম ওভার করতে এসে হাতে আঘাত পান নাজমুল। নিজের বলে ফিল্ডিং করতে গিয়ে ননস্ট্রাইকে থাকা ব্যাটসম্যানের কেডসের নিচে পড়ে তার হাত। বোলিং হাতে আঘাত নিয়ে মাঠই ছেড়ে যেতে হয় তাকে। গত ম্যাচে তিন উইকেট নেয়া নাজমুলকে হারিয়ে বিপদেই পড়ে বাংলাদেশ।

মাত্র তিন বল করে যাওয়া নাজমুলের ওভার পুরো করতে এসে দ্বিতীয় বলেই উইকেট পান সৌম্য। স্কোরবোর্ডে ১০০ রান তোলার আগে মোট পাঁচ উইকেট হারায় ক্যারিবীয়রা। ষষ্ঠ উইকেটে ৩২ রান যোগ করেন ক্যারিবীয় দলের দুই ধ্বংসাত্মক ব্যাটসম্যান আন্দ্রে রাসেল ও কার্লোস ব্রাফেট।

১২৮ রানে গিয়ে, ১৭তম ১৪ রান দিয়ে ব্রাফেটক ফেরান আবু হায়দার রনি। শেষ তিন ওভারে ৫০ রানের প্রয়োজন দাঁড়ায় ক্যারিবীয়দের সামনে। ১৮তম ওভারের প্রথম বলে মোস্তাফিজের লো ফুলটসে ক্যাচ তুলে দেন আন্দ্রে রাসেল। লং অফে তার ক্যাচ নেন আরিফুল হক। ম্যাচে যা মোস্তাফিজের তৃতীয় উইকেট। ২১ বলে ৪৭ রান করে ক্যারিবীয়দের জয়ের স্বপ্ন দেখানো রাসেল থামেন সেখানেই। এরপরই নেমে আসে বৃষ্টি। ক্যারিবীয়দের প্রয়োজন তখন ১৭ বলে ৫০ রান।

এরপর খেলা মাঠে গড়ায়নি, বৃষ্টি আইনে বাংলাদেশকে ১৯ রানে জয়ী ঘোষণা করা হয়। যে জয় নিশ্চিত করে টি-টোয়েন্টির বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে বাংলাদেশের সিরিজ জয়ও। ২০১২ সালের পর এই প্রথম বিদেশের মাটিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতলেন সাকিব আল হাসানরা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com