বিলাসী জীবন ছেড়ে ফুটপাতে

বিলাসী জীবন ছেড়ে ফুটপাতে

বিলাসী জীবন ছেড়ে ফুটপাতে
বিলাসী জীবন ছেড়ে ফুটপাতে

লোকালয় ডেস্কঃ : একটু ভালো করে বাঁচতে এক জীবনে কত কিইনা করি আমরা। নাড়ির বাঁধন ছিঁড়ে কেউ পাড়ি জমাই শহরে। আবার কেউবা পরবাসে। সেখানে কেউ সফল হয় আবার কারোর মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকু হারিয়ে আশ্রয় হয় ফুটপাতে। তবে স্বেচ্ছায় বাড়িঘর ছেড়ে ফুটপাতে বসবাসের উদাহরণ বোধহয় নজিরবিহীন।

কিন্তু যেটা নজিরবিহীন সেটাই করেই দেখিয়েছেন সিমন লি। বায়ান্ন বছর বয়সি হংকংয়ের এই নাগরিক গত সাত বছর ধরে স্বেচ্ছায় বাড়িঘর ত্যাগ করে ফুটপাতে বসবাস করছেন। শুধু তাই নয় সহায়-সম্পদ, পরিবার, চাকরি-বাকরি এমনকি নিজের সঙ্গিনীকেও ত্যাগ করেছেন।

কিন্তু কেন? এই কাহিনি জানতে হলে সিমন লির পেছনের জীবনের দিকে তাকাতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ক্যামিস্ট্রিতে গ্র্যাজুয়েশন করেছিলেন সিমন। শিক্ষাজীবন শেষে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত ভালো বেতনে চাকরিও করতেন তিনি। কিন্তু গৎবাঁধা জীবন ভালো লাগলো না সিমনের। তাই চাকরি ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন ‘এশিয়ার লাস ভেগাস’ খ্যাত ম্যাকাউয়ে। ২০০৪ সাল পর্যন্ত সেখানে বাচ্চাদের পড়াতেন। এরপর গেলেন চীনের ঝুহাই শহরে। সেখানে প্রচুর পরিমানে ক্যাসিনোতে যেতেন সিমন। জুয়া খেলতেন, থাকতেন ফুটপাতে। ঝুহাইয়ের ক্যাসিনোর জুয়াড়িরা বাজিতে জিতলে টাকার কিছু অংশ শহরের ফুটপাতে থাকা মানুষদের মাঝে বিলিয়ে দেন। ফলে এই শহরেই থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন সিমন।

তবে সিমনের এমন স্বেচ্ছা ভবঘুরে জীবনযাপনেও বাঁধ সাধে ঝুয়াই কর্তৃপক্ষ। ২০১০ সালে তাকে পাঠিয়ে দেন হংকংয়ে। কিন্তু নিজেকে পাল্টানোর সামান্যতম ইচ্ছে ছিল না সিমনের। শহরের ধনাঢ্য এলাকার একটি ম্যাকডোনাল্ড থেকে উচ্ছিষ্ট খাবার আর পার্শ্ববর্তী একটি শিখ মন্দির থেকে টুকটাক সহায়তা নিয়েই জীবন চালিয়ে নিচ্ছেন তিনি। তার পোশাকগুলো হংকংয়ের সমাজসেবীদের দান করা অথবা রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া। সরকার থেকেও কোনো ধরনের সহায়তা নেন না তিনি। রাস্তা কিংবা পার্কে ঘুমালেও পুরো হংকংয়েই ঘুরে বেড়ান তিনি।

নিজের এই অদ্ভুত জীবনাচার কোনো আদর্শ পদ্ধতি না হলেও নিজেকে পরিবর্তন করতে নারাজ সিমন। সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টকে বলেন, ‘আমার কাছে এটা আত্মমুক্তি। আমাকে বিল দিতে হয় না, বাড়ি কিনতে হয় না, আমি যেখানে-সেখানে ঘুমাতে পারি।’ তিনি আরো বলেন, ‘লোকের ফেলে দেওয়া জিনিসের মধ্যে কোনো না কোনো কার্যকারিতা খুঁজে পাই আমি।’

বছর তিনেক ম্যাকাউয়ের এক নারীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল সিমনের। বনিবনা না হওয়ায় বিচ্ছেদ হয়ে যায়। এমনকি মা-বাবা আর তিন ভাইয়ের থেকেও সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন সিমন।

ঘরবাড়ি আর স্বজন বলতে কেউ না থাকায় কাল কী হবে সে চিন্তা তাড়িয়ে বেড়ায় না সিমনকে। তাই নিজেকে ভাগ্যের হাতে সঁপে দিয়ে জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকেই উপভোগ করেন তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com