বিধিনিষেধ ঈদ পর্যন্ত শিথিল

বিধিনিষেধ ঈদ পর্যন্ত শিথিল

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

সরকার এমন দিনে বিধিনিষেধ শিথিলের সিদ্ধান্ত জানাল, যেদিন দেশে এক দিনে করোনাভাইরাস সংক্রমণে সর্বোচ্চসংখ্যক রোগী শনাক্তের কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। দেশে ২৪ ঘণ্টায় (রোববার সকাল আটটা থেকে গতকাল সকাল আটটা পর্যন্ত) নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৩ হাজার ৭৬৮ জন। এই সময় করোনায় মারা গেছেন ২২০ জন।

করোনা সংক্রমণের এই পরিস্থিতিতে বিধিনিষেধ শিথিল করার সিদ্ধান্ত জনস্বাস্থ্যের বিচারে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছেন জনস্বাস্থ্যবিদেরা। এর ফলে সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বৃদ্ধির আশঙ্কা আছে।

বিধিনিষেধ শিথিলের কথা জানানোর আগের দিন গত রোববার সরকারের নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে চলমান বিধিনিষেধ ঈদের আগেও থাকবে কি না, তা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করছে। যদি করোনাসংক্রান্ত কারিগরি পরামর্শক কমিটি পরামর্শ দেয়, তাহলে চলমান বিধিনিষেধ আরও এগিয়ে নেওয়া হতে পারে। তবে বর্তমানে যে পরিস্থিতি চলছে, তাতে পুরোপুরি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার মতো জায়গায় পৌঁছানো যায়নি বলেও তিনি মন্তব্য করেছিলেন।

বিধিনিষেধ শিথিল করার সিদ্ধান্ত করোনাসংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সঙ্গে পরামর্শ করে করা হয়েছে কি না জানতে চাইলে কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সহিদুল্লা গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘না। এটি তাঁদের পরামর্শের উল্টো। আমরা মনে করছি, এর ফলে সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা অনেক বেড়ে যাবে। আমরা উদ্বিগ্ন।’

করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে সরকার এ বছরের ৫ এপ্রিল থেকে ধাপে ধাপে বিধিনিষেধ দিয়ে আসছে। এর পাশাপাশি এবার স্থানীয় প্রশাসনও বিভিন্ন এলাকায় বিশেষ বিধিনিষেধ জারি করেছিল। কিন্তু তারপরও করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় ১ জুলাই থেকে সারা দেশে কঠোর বিধিনিষেধ জারি করা হয়। প্রথমে এক সপ্তাহের জন্য বিধিনিষেধ ঘোষণা করা হলেও পরে তা বাড়িয়ে ১৪ জুলাই পর্যন্ত করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসেনি। এখন শ্রমজীবী মানুষসহ জীবিকার দিক বিবেচনা করে ঈদ ঘিরে বিধিনিষেধ শিথিলের সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সূত্রগুলো জানিয়েছে।

গত মে মাসে পবিত্র ঈদুল ফিতরের সময়ও সরকার করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ঈদযাত্রা বন্ধ রাখতে চেয়েছিল। এ জন্য তখন দূরপাল্লার পথে গণপরিবহন বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু পরে দেখা গেল, হাজার হাজার মানুষ কড়াকড়ি উপেক্ষা করে বাড়ির অভিমুখে রওনা হন। তাতে পথেঘাটে স্বাস্থ্যবিধি মানা হয়নি। ফেরিঘাটে ছিল মানুষের উপচে পড়া ভিড়। তখন দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকায় মাইক্রোবাসসহ বিভিন্ন পরিবহনে করে বাড়ি যেতে খরচও বেড়ে যায়।

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট

বিধিনিষেধ শিথিল ঘোষণার পর রেল মন্ত্রণালয় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়েছে, ১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করবে। এ ক্ষেত্রে টিকিট শুধু অনলাইনে বিক্রি হবে। টিকিট বিক্রি শুরু হবে আজ।

আর বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, এখন দোকানের যেসব কর্মী ঢাকায় আছেন, সেসব কর্মী নিয়ে দোকান খোলা হবে। যাঁরা ইতিমধ্যে বাড়ি চলে গেছেন, তাঁদের আনা হবে না। তবে তাঁদের চাকরিও যাবে না।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সূত্র বলছে, গণপরিবহন, শপিং মলসহ দোকানপাট খোলা থাকলেও ঈদের আগে সরকারি অফিসে সশরীর উপস্থিত হয়ে দাপ্তরিক কাজ বন্ধই থাকছে। এই সময়ে দাপ্তরিক কাজগুলো ভার্চ্যুয়ালি (ই-নথি, ই-টেন্ডারিং, ই-মেইল, এসএমএস, হোয়াটসঅ্যাপসহ অন্যান্য মাধ্যম) সম্পন্ন করা হবে।

বিদ্যমান পরিস্থিতিতে বিধিনিষেধ শিথিল করার বিষয়ে জানতে চাইলে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) উপদেষ্টা মুশতাক হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, চলতি সপ্তাহ থেকে সংক্রমণ কমবে, এমন আশা করা হলেও এখনো তা হচ্ছে না। এবার গ্রামে সংক্রমণ বেশি। সেখানে বিধিনিষেধ কতটুকু কার্যকর হচ্ছে, তা নিয়ে প্রশ্ন আছে। অনেক ক্ষেত্রে নির্দেশনা বাস্তবায়িত হচ্ছে না।

এখন ঈদ সামনে রেখে টানা বেশ কিছুদিনের জন্য বিধিনিষেধ শিথিল করা হচ্ছে। জনস্বাস্থ্যের বিচারে এটি খুবই বিপজ্জনক। বাস্তবতা বিবেচনায় বিধিনিষেধ শিথিল হতে পারে। তবে একটানা অনেক দিন শিথিল থাকলে তা বিধিনিষেধ তুলে দেওয়ারই নামান্তর, এটা ঝুঁকি বাড়াবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com