বিদ্যুতের খুঁটি পুঁতে নেয়া হয়েছে লাখ টাকা, কিন্তু দুই বছরেও মেলেনি সংযোগ!

বিদ্যুতের খুঁটি পুঁতে নেয়া হয়েছে লাখ টাকা, কিন্তু দুই বছরেও মেলেনি সংযোগ!

বিদ্যুতের খুঁটি পুঁতে নেয়া হয়েছে লাখ টাকা, কিন্তু দুই বছরেও মেলেনি সংযোগ!
বিদ্যুতের খুঁটি পুঁতে নেয়া হয়েছে লাখ টাকা, কিন্তু দুই বছরেও মেলেনি সংযোগ!

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাট সদর উপজেলায় একটি গ্রামে পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি পুতে, অর্ধশতাধিক গ্রাহকের কাছ থেকে দালালদের মাধ্যমে লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে লালমনিরহাট পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মচারি কর্মকর্তা। দুই বছর ধরে ধর্ণাধরেও পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ মিলেনি। মিলেছে শুধুই হয়রানি। দিতে হয়েছে কয়েক দফা ঘুষ।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, জেলা সদরের অদুরে মোগলহাট ইউনিয়নের কর্ণপুর মেরুয়াটারী গ্রাম। এই গ্রামের ৪০-৫০টি পরিবার বিদ্যুৎবিহীন রয়েছে। বাড়িতে বিদ্যুতের সংযোগ নিতে দুই বছর আগে লালমনিরহাট পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযোগ করে। সে সময় পল্লী বিদুতের কর্মকর্তারা জানান, ৫০ হাজার টাকা ঘুষ দিলে দ্রুত মেরুয়াটারী গ্রামের বাড়ি গুলোতে পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ দেয়া যাবে।

একথা শুনে পরিবার গুলো চাঁদা করে ঘুষের ৫০ হাজার টাকা জোগাড় করে পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে দেয়। এই ঘুষ দেয়ার কাজে সহযোগীতা করে স্থানীয় বিদ্যুতের লাইনম্যান পুলক। ঘুষের টাকা দিয়েও বিদ্যুৎ সংযোগ তো দুরের কথা, এলাকাবাসীর চোখে পড়েনি কোন বিদ্যুতের খুঁটিরও দেখা। মাসের পর মাস ঘুরতে থাকে দালাল পুলকের বাড়ি ও পল্লী বিদ্যুতের অফিসে।

নানান চাপে অবশেষে গত বছরের রমজান মাসে পল্লী বিদ্যুৎ অফিস কর্ণপুরের মেরুয়াটারী গ্রামে বিদ্যুতের খুঁটি পুঁতে রাখে। এবার বিদ্যুতের সংযোগ দেয়ার নামে পল্লী বিদ্যুৎতের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা কর্মচারি প্রতিটি বাড়ি থেকে সংযোগ দেয়ার নামে দালাল পুলকের (স্থানীয় ইলেক্ট্রিশিয়ান) মাধ্যমে বাড়ি ভেদে ৫/৭ হাজার টাকা করে হাতিয়ে নেয়। কথা ছিল ৭দিনের মধ্যে সংযোগ দিবে। খুঁটি পুঁতে রাখার প্রায় এক বছর হতে চলেছে। খুঁটিতে কোন বৈদ্যুতিক তার টানানো হয়নি।

ভুক্তভোগী গ্রামের সদস্যরা হলেন, হাসেন আলী (৫৫), মকবুল হোসেন (৪৫), আলা বকস (৫০), ইসমাইল হোসেন (৪৮), রবিউল ইসলাম (২৫), চান্দু শেখ (৫৫), জামাল উদ্দিন (৫০), নুর হোসেন (৪৪), বিমল চন্দ্র (৩৫), আমজাদ হোসেন (৩২), লাল মিয়া (৪৬), জহির উদ্দিন (৬০), আনোয়ার হোসেন (২২), গোলজার হোসেন (৩২), সোলাইমান (৪০), লালু মিয়া (৪২), জাবেদ আলী (৩৩), হাফিজুর রহমান (৩৮), ছাইফুল ইসলাম (২৮), আব্দুস ছালাম (৪০), সামছুল মিয়া (৩৫), নুরুল ইসলাম(৫৫), সমশের আলী (৫৮), সুরুজ আলী (৪৮), কাশেম আলী (৬০), নবির হোসেন (৩০), কদু শেখ (৬০), হাফিজুল (২৫), ছবুর হোসেন (৫৮), জুল হোসেন (৪০), নুর হক (৬০) ও ছালাম মিয়া।

ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্য জুল হোসেন (৪০) জানান, দুই মাস আগে পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তারা বলেন, ঠিকাদার কাজ না করায় বৈদ্যুতিক সংযোগ দেয়া যাচ্ছে না। কর্ণপুরের মেরুয়াটারী গ্রামে ৬ জনের একটি প্রতিনিধি দল কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুরের দূর্গাপুর গ্রামে ঠিকাদার সামছুল হকের বাড়িতে তার সাথে দেখা করতে যায়। ঠিকাদারকে দ্রুত কাজ শেষ করতে অনুরোধ করে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। ঠিকাদার কাজ শেষ করেনি। গ্রামটিতে কয়েকটি বিদ্যুতের খুঁটি পুঁতে রাখা আছে। বিদ্যুতের সংযোগ পেতে এবার গ্রামের লোকজন ২ এপ্রিল প্রেসক্লাবে আসে তাদের দুঃখের ও কষ্টের কথা জানাতে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় দালাল চক্রের সদস্য পুলক জানান, পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ সংযোগ দেয়ার পক্ষে রয়েছে। কিন্তুু ঠিকাদার কাজ না করায় সংযোগ দিতে বিলম্ব হচ্ছে। ঠিকাদার সামছুল হকের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলে জানা যায়, তার বেশ কিছু জায়গায় লটের মাধ্যমে কাজ চলছে। লালমনিরহাটের কাজটি কবে শেষ করবেন তার কোন সদুত্তর দিতে পারেনি।

বিদ্যুতের সংযোগ দিতে ঘুষ গ্রহণের ব্যাপারে লালমনিরহাট পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তা ডিজিএম জাকির হোসেন জানান, পল্লী বিদ্যুতের খুঁটি ও বৈদ্যুতিক তার সংযোগের কাজ ঠিকাদারের মাধ্যমে করে পল্লী বিদ্যুতের নির্বাহী প্রকৌশলীর দপ্তর। দালালরা ঘুষ নিলে সেই দায়-দায়িত্ব পল্লী
বিদ্যুতের কর্মকর্তা কর্মচারি নিবেনা।

এদিকে গ্রামবাসির দাবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দেয়ার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। সেই লক্ষ্য নিয়ে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু পল্লী বিদ্যুতের কতিপয় দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও দালাল চক্রের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রশ্নের মুখে পড়ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com