বিজয়ের মাসে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হবে: ওবায়দুল কাদের

বিজয়ের মাসে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হবে: ওবায়দুল কাদের

বিজয়ের মাসে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হবে: ওবায়দুল কাদের
বিজয়ের মাসে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হবে: ওবায়দুল কাদের

লোকালয় ডেস্কঃ  শনিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘এবার ভোট বিপ্লব হবে। জগাখিচুড়ি ঐক্যফ্রন্টের বিরুদ্ধে এবার ভোট বিপ্লব হবে।’

তিনি বলেন, ‘যারা নির্বাচন নিয়ে  উদ্বিগ্ন হচ্ছেন, তাদের সবাইকে বলতে চাই, এবারের নির্বাচন খুব সুন্দর হবে। এখানে সরকারের পক্ষ থেকে কোনও ধরণের হস্তক্ষেপ হবে না। নির্বাচন কমিশনকে যে ধরনের সহায়তা প্রয়োজন, শেখ হাসিনার সরকার সব ধরনের সহায়তা করছে।’

বিএনপির প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি এখনও নির্বাচন বানচাল করা থেকে পিছু হটেনি। আমাদের আশঙ্কা হচ্ছে যে, তারা নাশকতা ও সহিংসতার পথে যেতে পারে। তারা যা যা বড় গলায় বলেছিল, এক মাসের মধ্যে চেহারা পাল্টায় দেবো। চেহারা কোথায় পাল্টালো? মওদুদ সাহেব বলেছেন, তাকে হাজার হাজার মানুষ এসকর্ট করে এলাকায় নিয়ে যাবে। কই, সে ছবি বাস্তবে নেই। এমনকি মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিনে ঢাকায় বিএনপির যে শোভাযাত্রা ছিল, তাতে কোনও উৎসব ছিল না। কারণ তারা বুঝে গেছে এই নির্বাচনে তাদের জয়ের কোনও আশা নেই। তাদের এখন কথা ছাড়া কোনও পুঁজি নেই। তারা যদি নাশকতা করে, এবার দেশের জনগণই প্রতিরোধ করবে।’

জামায়াতের অনেককেই মনোনয়ন দেওয়ার ব্যাপারে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘জামায়াত এবং বিএনপির নীতি আদর্শ একই। আগে মনে করা হতো স্ট্র্যাটেজিক বিষয়ে তারা সঙ্গে আছে কিন্তু না, স্ট্র্যাটেজিক কোনও বিষয় না। তাদের সম্পর্কটা একেবারেই নীতি আদর্শের ব্যাপার। তাদের উদ্দেশ্য, লক্ষ্য এবং কর্মকাণ্ড একই। সারা বছরই তারা একসঙ্গে কাজ করে। এখানে লুকোচুরির কিছু নেই। নিষিদ্ধ করার বিষয় আদালতের এখতিয়ারে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা আমাদের এখতিয়ার না, আদালতের বিষয়। আমার বিশ্বাস, জামায়াতের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের যে পর্যবেক্ষণ, আমার মনে হয় আদালতের গোচরেও তা গেছে।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্যে গণতন্ত্রের চর্চা আছে। তবে হাউস অব কমন্স, কংগ্রেসে তারা যেসব আলোচনা করেন, এখানে নানা বিষয় আসে। সেখান থেকে একটা বিষয় নিয়ে স্বার্থের অনুকূলের অংশ নিয়ে ব্যবহার করে, এটা হয়তো আপাতদৃষ্টিতে সমস্যার কারণ। হয়তো টোটাল প্রতিবেদন একরকম। সেখান থেকে কোনও একটা অংশ নিয়ে, কেউ কেউ রাজনৈতিক স্বার্থে নির্বাচনের ওপর প্রভাব বিস্তারে, অনেকেই এসব করে থাকে। নির্বাচন আসলে এগুলো বেশি হয়। তাই প্রতিবেদনে কী কী থাকলো এটা আমাদের দেখার বিষয় না। আমাদের পক্ষে বললেও আমরা সেটাকে এভাবে দেখবো না। কী প্রতিবেদনে আসলো সেটা নিয়ে আমরা মাথা ঘামাই না। আমরা দেখবো জনগণের সমর্থন। আমাদের কনফিডেন্স আছে, বাংলাদেশের জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দেবে। মানুষ আজ সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে। আমাদের বিশ্বাস সারাদেশে নৌকার পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। বিজয়ের মাসে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হবে।’

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আহম্মদ হোসেন, বি এম মোজ্জামেল, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আফজাল হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সবুর, উপ দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য এস এম কামাল হোসেন, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com