বিএনপি’র ১৬৬ জনকে আসামী করে পুলিশের গায়েবী মামলা

বিএনপি’র ১৬৬ জনকে আসামী করে পুলিশের গায়েবী মামলা

বিএনপি’র ১৬৬ জনকে আসামী করে পুলিশের গায়েবী মামলা
বিএনপি’র ১৬৬ জনকে আসামী করে পুলিশের গায়েবী মামলা

কিশোরগঞ্জ হাওড় অঞ্চল থেকে: কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে নাশকতা, অগ্নীসংযোগ, ভাঙচূর ও জনগনের জান-মাল হেফাজতের লক্ষ্যে কিশোরগঞ্জ বিএনপি সভাপতি শরীফুল আলম সহ ১৬৬ জনকে আসামী করে একটি গায়েবী মামলা করে পুলিশ।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ৩ নভেম্বর শনিবার রাত ৮ ঘটিকায় দ্বাড়িয়াকান্দি বাসস্ট্যান্ড ওয়ালটন শো- রুমের সামনে শরীফুল আলমের প্রোরচনা ও নির্দেশে শহিদ উদ্দিন বাবুল, আজহার উদ্দিন লিটন, শাহ আলম, রাজ আহম্মেদ রকি, আরমান হোসেন, কামরুল ইসলাম মুছা, বাচ্চু মিয়া, আব্দুস সালাম সুমন, এনায়েতুল্লাহ, রহম মেম্বার, আরস মিয়া, সোহেল মেম্বার, ছানা মিয়া, জুয়েল মিয়া, দেলোয়ার হোসেন সহ মোট ১৬ জন ও অজ্ঞাত ১০০/১৫০ জন নেতা কর্মী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে ককটেল ও পেট্রোল বোমা বিষ্ফুরণ, গাড়ি ভাঙচূর করে।

সে সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ১টি অবিষ্ফোরিত ককটেল, ২টি পেট্রোল বোমা, ২৮টি ইটের টুকরা সহ বিষ্ফোরিত দ্রব্য উদ্ধার করে। ওই দিন রাতে কুলিয়ারচর থানার এসআই রাখাল চন্দ্র দেবনাথ বাদী হয়ে কুলিয়ারচর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। দ্বাড়িয়াকান্দি স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বলেন, ওই দিন বিএনপি’র কোন কর্মসূচি ছিলনা। গাড়ি ভাঙচূরর, নাশকতা, অগ্নি সংযোগ বা বোমা বিষ্ফোরণের মত কোন ঘটনাই ঘটেনি দ্বাড়িয়াকান্দিতে। এ ব্যাপারে কুলিয়ারচর উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল মিল্লাত বলেন, আমাদের দ্বাড়িয়াকান্দিতে কোন প্রোগ্রাম ছিলনা। এটা একটি গায়েবী মামলা।

যুবদল সভাপতি লিটন মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম মুছা বলেন, আমরা অনেক দিন যাবৎ এলাকা ছাড়া এ ধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি। এটা একটি কাল্পনিক মামলা। বিষয়টি নিয়ে কুলিয়ারচর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ নান্নু মোল্লার সাথে কথা বলতে চাইলে কোন উত্তর দেননি ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com