বাল্যবিবাহ রোধ করবে সামাজিক সংগঠন ‘কিশোরী ব্রিগেড’

বাল্যবিবাহ রোধ করবে সামাজিক সংগঠন ‘কিশোরী ব্রিগেড’

ময়মনসিং প্রতিনিধি: প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হলে সামাজিকভাবে হেয় হয় বর ও কনের পরিবার। বিশেষ করে প্রশাসনিক ক্ষমতা প্রয়োগ করে বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হলে ভুক্তভোগী কিশোরী সমাজে ক্ষতির সম্মুখীন হয়। তাই বিয়ের কথা শুরু হওয়ার পরপরই ঠেকাতে হবে বাল্যবিবাহ।

এমন ধারণা থেকে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলায় আজ মঙ্গলবার উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের ১২টি বিদ্যালয়ে স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন কিশোরী ব্রিগেড গঠন করা হয়েছে। স্কুলপড়ুয়া দেড় শতাশিক কিশোরী সংগঠনটির পক্ষে বাল্যবিবাহ ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধে গোটা উপজেলায় কাজ করবে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে স্থানীয় নজরুল একাডেমির মাঠে সাদা অ্যাপ্রোন পরে কিশোরী ব্রিগেডের সদস্যরা বাইসাইকেল নিয়ে মহড়ায় অংশ নেয়। প্রত্যেকের মাথায় ছিল লাল ও সবুজ রঙের ক্যাপ। বাইসাইকেলের সামনে ছিল ছোট জাতীয় পতাকা।

বেলা ১১টার দিকে ব্রিগেডের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম উদ্বোধন করেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার লেডিস ক্লাবের সভাপতি শায়লা পারভীন। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মো. খলিলুর রহমান, অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন ত্রিশাল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদিন, ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু জাফর রিপন। সংগঠনটিকে সার্বিক সহযোগিতা করবে ত্রিশাল উপজেলা প্রশাসন, স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা।

ইউএনও আবু জাফর রিপন বলেন, গত বছরের ৩১ অক্টোবর উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়নের ধলা উচ্চবিদ্যালয়ের ১২ কিশোরীকে নিয়ে প্রথম ব্রিগেড গঠন করা হয়। ওই কিশোরীরা গত তিন মাসে বেশ কিছু সাফল্য অর্জন করেছে। তারা ত্রিশাল ও গফরগাঁও উপজেলার মোট ১৩টি বাল্যবিবাহ রোধ করেছে। প্রথম ব্রিগেড গঠন করা ছিল পরীক্ষামূলক। ওই ব্রিগেডের সাফল্য এবং সাধারণ মানুষের আগ্রহে এবার এই ব্রিগেড গঠন করা হলো।

তিনি বলেন, প্রতিটি বিদ্যালয়ের ব্রিগেডে ১০ থেকে ১২ জন করে কিশোরী যুক্ত রয়েছে। স্কুলের পক্ষ থেকে ওই কিশোরীদের বাইসাইকেল ও পোশাক দেওয়া হয়েছে। নিজেদের পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে তারা বাল্যবিবাহ রোধে কাজ করবে। গ্রামে গ্রামে সচেতনতামূলক উঠান বৈঠক আয়োজন করবে।

প্রথম ব্রিগেডের অভিজ্ঞতা থেকে আবুজাফর বলেন, ১০ থেকে ১২ জন কিশোরী যখন সাদা অ্যাপ্রোন করে সাইকেল চালিয়ে গ্রামে গ্রামে বাল্যবিবাহবিরোধী প্রচারণায় যায়, তখন গ্রামের মানুষ তাদের কথাকে যথেষ্ঠ মূল্যায়ন করে। কিশোরীদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণ ও যথাযথভাবে সাইকেল চালানো শেখানো হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মো. খলিলুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশ সব সূচকে উন্নতি লাভ করলেও বাল্যবিবাহের ক্ষেত্রে অনেক পিছিয়ে। এটি অনেক বড় একটি ব্যাধি। এই ব্যাধি সারাতে সরকার নানা উদ্যোগ নিচ্ছে। ত্রিশালের এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ সফল হবে বলে আমি আশাবাদী।’

নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করে প্রথম গঠিত ব্রিগেডের দলনেতা ও স্কুল শিক্ষার্থী মাহবুবা আলম তৃপ্তি বলে, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ ব্রিগেডে কাজ করতে অনেক ভালো লাগছে। এখন পর্যন্ত তাঁরা মোট ১৩টি বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে ভূমিকা রাখাতে পেরেছে। বেশির ভাগ মানুষ তাদের সহযোগিতা করেছে। কেউ কেউ অসহযোগিতা করলে তাৎক্ষণিক উপজেলা প্রশাসনকে জানালে তাঁরা ব্যবস্থা নিচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com