‘বাংলাদেশ না নিলে কোথায় যাবে, ওরা আমার ভাই-বোন’

‘বাংলাদেশ না নিলে কোথায় যাবে, ওরা আমার ভাই-বোন’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ওরা কেউ রোহিঙ্গা নয়, ওদের পরিকল্পনা করে উদ্বাস্তু করে দেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ যদি ওদের না নেয়, তবে কী হবে নিজভূমে পরবাসী হওয়া মানুষগুলোর?

কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগে আসামবাসীর পাশে থাকার বার্তা দিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আসামের জাতীয় নাগরিক পঞ্জি থেকে ৪০ লক্ষ নাম বাদ পড়া প্রসঙ্গে মমতা হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপিকে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মানবতা আর আগুন নিয়ে খেলবেন না। মনে রাখবেন ওরা কেউ উদ্বাস্তু নয়, ওদের বেশিরভাবই এখানে চার-পাঁচ পুরুষ ধরে বাস করছে। কেন্দ্র ডিভাইন্ড অ্যান্ড রুল চালাচ্ছে পুরোটাই নির্বাচনকে মাথায় রেখে। এতবড় ঘটনা ঘটিয়ে ফেলেছে চুপিসারে। তিনি আসামবাসীর প্রতি আবেদন করেন, আপনারা অসহায় নন, আমরা অসামবাসীর পাশে আছি।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন অভিযোগ করেন, কেন্দ্রীয় সরকার মুখ্যসচিব ও রাজ্য পুলিশের ডিজিকে না জানিয়েই বাঙালি-বিহারী খেদাও অভিযান শুরু করেছে। ইচ্ছা করে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বাংলার সীমানা অসম লাগোয়া। বাংলার উপর সবথেকে বেশি প্রভাব পড়বে, তাই কেন্দ্রের জানানো উচিত ছিল।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, তারপর ভারত সরকারের ভাবা উচিত ছিল, ৪০ লক্ষ লোককে জাতীয় নাগরিক পঞ্জি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে, তাঁরা কোথায় যাবে। তাঁদের যদি বাংলাদেশ না নেয়, তাহলে কী হবে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বার্তা দেন, ‘যাঁরা আজ রিফউজি হয়ে গেল, তাঁরা আমার ভাই-বোন। আমরা তাঁদের কথা অবশ্যই ভাবব। লড়াই করবে কেন্দ্রের এই অমানবিক সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে।

এদিন বিজেপি সরকারের অভিসন্ধি প্রকাশ হয়ে গিয়েছে। ওরা যে কেবল নির্বাচনী গেমপ্ল্যান মাথায় রেখেই এসব করেছে, তা পরিষ্কার। আমি তাই আসমবাসীর পাশে দাঁড়াতে সাংসদদের একটি দলকে পাঠিয়েছি। আমি যাবো প্রয়োজনে।’

উল্লেখ্য, ভারতের আসাম রাজ্য থেকে ৫২ বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানো হয়েছে বলে খবর দিয়েছে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো।

সোমবার আসামের রাজ্য সরকার তাদের খসড়া নাগরিক তালিকা বা ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেন্স (এনআরসি) প্রকাশ করার আগের দিন রোববার তাদেরকে ফেরত পাঠানো হয়। আসামের ওই নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়েছে রাজ্যের প্রায় ৪০ লাখ মানুষ।

ভারতীয় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম সে দেশের কর্তৃপক্ষকে উদ্ধৃত করে বলছে, অবৈধ বাংলাদেশি হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার পর ভারত-বাংলাদেশ পারস্পরিক সিদ্ধান্তের ভিত্তিতেই তাদের ফেরত পাঠানো হয়েছে।

তারা জানিয়েছে, আসাম-মেঘালয়া-বাংলাদেশ ত্রি জংশনের মানকাচার সেক্টর থেকে তাদেরকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়। ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালস এর নাগরিকত্ব পরীক্ষায় এই ৫২ জনকে ‘বিদেশি’ সাব্যস্ত করা হয়েছে। কয়েকদিন ধরেই তাদেরকে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছিলো।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com