বছরে সর্বস্বান্ত হয় ৬৪ লাখ মারা যায় ৫ লাখ লোক

বছরে সর্বস্বান্ত হয় ৬৪ লাখ মারা যায় ৫ লাখ লোক

ডেস্ক রিপোর্ট : অপরিকল্পিত নগরায়ণ, শারীরিক পরিশ্রম না করা, ভেজাল খাদ্যগ্রহণ ও খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনসহ বিভিন্ন কারণে আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে অসংক্রামক ব্যাধিতে আক্রান্তের সংখ্যা। এসব রোগের চিকিৎসার পেছনে খরচ হয় মোটা অঙ্কের টাকা। সেই ব্যয় মেটাতে গিয়ে প্রতিবছর সর্বস্বান্ত হচ্ছে ৬৪ লাখ লোক। তার পরও রোগীকে বাঁচিয়ে রাখাটা কষ্টসাধ্য। ফলে প্রতিবছরই এসব মরণব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছেন ৫ লাখের বেশি মানুষ। অসংক্রামক ব্যাধি একটি হৃদরোগ। এতে আক্রান্ত হয়ে ২০০৬ সালে রাজধানীর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে (এনআইসিভিডি) ভর্তি হয়েছিলেন ২৪ হাজার ৩৭৬ রোগী। আর ২০১৬ সালে ভর্তি হন ৬৪ হাজার ৯০৬ জন। অর্থাৎ গত ১০ বছরের ব্যবধানে হাসপাতালটিতে রোগী বেড়েছে আড়াইগুণেরও বেশি। চলতি বছরের জানুয়ারিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে প্রকাশিত ২০১৭ সালের হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

হেলথ বুলেটিনের তথ্যানুযায়ী, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ২০০৬ সালে এনআইসিভিডিতে ২৪ হাজার ৩৭৬ রোগী ভর্তি হন এবং বহির্বিভাগে চিকিৎসা নেন ১ লাখ ২ হাজার ৪৮৬ জন। ওই বছর গড়ে প্রতিদিন ৬৭ রোগী ভর্তি ও ২৮১ জন বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছিলেন। এর ১০ বছর পর অর্থাৎ ২০১৬ সালে হাসপাতালটিতে ৬৪ হাজার ৯০৬ রোগী ভর্তি ও বহির্বিভাগে আরও ২ লাখ ২৬ হাজার ১৩৮ জন চিকিৎসা নেন। যেখানে গড়ে প্রতিদিন ১৭৭ জন ভর্তি ও ৬২০ রোগী চিকিৎসা নেন বহির্বিভাগে। এ তো গেল একটি হাসপাতালের হিসাব। দেশের সব সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালেও অসংক্রামক রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। এজাতীয় রোগীদের স্থান সংকুলান হচ্ছে না সরকারি হাসপাতালগুলোতে।

চিকিৎসা, নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধের পেছনে সরকারের হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয় হলেও তেমন সফলতা আসছে না। বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন সরকারও। তবে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরিষ্কার কথাÑ অসংক্রামক ব্যাধি থেকে বাঁচতে হলে পরিবর্তন করতে হবে লাইফস্টাইল।

এ বিষয়ে জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সাবেক পরিচালক ও বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের সাবেক অ্যাডভাইজার অধ্যাপক ডা. এম মোজাহেরুল হক বলেন, দেশে বিভিন্ন ধরনের অসংক্রামক রোগব্যাধিতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। শুধু আক্রান্ত রোগীই নয়, বাড়ছে মৃত্যুহারও। চিকিৎসা দিয়েও আক্রান্তদের বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব হয় না। ফলে অসংক্রামক রোগব্যাধি প্রতিরোধ এখন বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি আরও বলেন, অসংক্রামক ব্যাধির মধ্যে ক্যানসার, ডায়াবেটিস, হার্ট ও কিডনি রোগের চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল, যা মেটানোর ক্ষমতা আমাদের দেশের কম পরিবারেরই আছে। এ কারণে প্রায় ৬৪ লাখ লোক চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে গিয়েই সর্বস্বান্ত হন। তাই অন্যান্য দেশের মতো গরিব রোগীদের জন্য স্বাস্থ্যবীমা চালু করতে হবে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতও এটি চালু করেছে। সেখানে গরিব রোগীদের চিকিৎসার জন্য রোগ প্রতিবছরে ৫ লাখ রুপি দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে।

হেলথ প্রমোশন ফাউন্ডেশনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সারাবিশ্বে ৩ কোটি ৬০ লাখ লোক অসংক্রামক রোগে মারা যায়, যার ২ কোটি ৯০ লাখ মধ্যম আয়ের দেশগুলোর। আর মোট মৃত্যুর ৮০ শতাংশের কারণ ক্যানসার, ডায়বেটিস, হৃদরোগ, দীর্ঘমেয়াদী শ্বাসতন্ত্রের রোগ। ভয়াবহ এসব অসংক্রামক রোগ ক্রমবর্ধমান হারে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। সংস্থাটি জাতীয়ভাবে পরিচালিত অসংক্রামক রোগের ঝুঁকিবিষয়ক গবেষণার ওপর ভিত্তি করে জানিয়েছে, দেশে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ৯৮ দশমিক ৭ শতাংশ অন্তত একটি; ৭৭ দশমিক ৪ শতাংশ অন্তত দুটি; ২৮ দশমিক ৩ শতাংশ অন্তত তিনটি অসংক্রামক রোগের ঝুঁকিতে।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী, ২০১৫ সালে দেশে ৮ লাখ ৪৫ হাজার ৮৮০ লোকের মৃত্যু হয়েছে। যার মধ্যে অসংক্রামক ব্যাধির কারণে মারা গেছে ৫ লাখ ৭ হাজার ৫২৮ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিসংখ্যান বলছেÑ বাংলাদেশে প্রতিবছর যে পরিমাণ লোক মারা যায়, তার মধ্যে ৬২ শতাংশই অসংক্রামক রোগে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কাজে জড়িত ছিলেন এমন একজন সাবেক পরিচালক বলেন, মূলত অপরিকল্পিত নগরায়ণ, খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তন ও শারীরিক পরিশ্রম না করার কারণে দেশে ক্যানসার, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, স্ট্রোক, ফুসফুসজনিত (সিওপিডি) রোগ, ডায়বেটিস, মানসিক রোগ ও যকৃত আক্রান্তসহ বিভিন্ন অসংক্রামক রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। বাড়ছে মৃত্যুহারও। তবে এসব ব্যাধিতে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা কমাতে হলে সচেতনতাই বড় ভূমিকা রাখবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com