বঙ্গবন্ধুর আদর্শ সৈনিক আলহাজ্ব দিদার হোসেনের না বলা কথা

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ সৈনিক আলহাজ্ব দিদার হোসেনের না বলা কথা

আক্তারুজ্জামান তরফদার ঃ প্রবীণ এক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকের স্মৃতিচারণ। তিনি কোন সময়ে পদ-পদবির কাঙ্গাল ছিলেন না। নেতা হওয়ার বাসনা ও কোন সময় তাকে স্পর্শ করেনি। ষাটের দশকের শুরুতে হবিগঞ্জে আওয়ামী লীগের কোনো কার্যালয় ছিল না। ছিল না অনেকেরই ল্যান্ডফোন। তখনকার সময়ে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানই ছিল আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীর ঠিকানা। হবিগঞ্জ শহরের টাউন হল রোড এর স্ট্যান্ডার্ড টি হাউজ। এ হাউজে ছিল ল্যান্ড ফোন। মরহুম এডভোকেট মোস্তফা আলী সহ তখনকার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীর যোগাযোগ ছিল সেই স্ট্যান্ডার্ড টি হাউজ। আওয়ামী লীগের অর্থনৈতিক অবস্থাও ভাল ছিল না। নেতৃত্বস্থানীয় দুই একজনের অর্থেই দলীয় কর্মসূচি হত। মাইকিং করার মতো অর্থও যোগান দিতে হতো। হবিগঞ্জে আওয়ামী লীগের একমাত্র যোগাযোগ স্থল ছিল স্ট্যান্ডার্ড টি হাউজের স্বত্বাধিকারী আলহাজ দিদার হোসেনের সেই ব্যবসা প্রতিষ্টান।
বহুলা গ্রামের বাসিন্দা ৮৫ বছর বয়স্ক আলহাজ্ব দিদার হোসেন স্মৃতিচারণ করতে যেয়ে বলেন, কোন পদ পদবী আগেও চাইনি, এখনো না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হয়ে তার আদর্শ বাস্তবায়ন দেখে যেতে পারলে পরপারে গিয়েও শান্তি পাবো । বিপত্নীক দিদার হোসেন এখন বাড়িতে বসে নাতি নাতনির সাথে গল্প গুজব আর মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করেই সময় কাটান। তবে, আওয়ামী লীগের বিশেষ কোনো মুহূর্তে জেলা পর্যায়ের কোনো কোনো নেতার পদধুলি তার বাড়িতে পরে। জীবনের ক্রান্তিলগ্নে এসে আলহাজ্ব দিদার হোসেন মনে প্রশান্তি পান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে ‘হবিগঞ্জের দিদার চাচা ’ বলে সম্মোধন করে বুকে জড়িয়ে ধরেন। সে প্রশান্তি নিয়েই যেন বেঁচে আছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর দু/একবার দেখা হয়েছে। এখন স্বাস্থ্যগত কারণে ঢাকা যাওয়া সম্ভব হয়নি। তাই দেখা হয়নি। সেই সময় শেখ মুজিবুর রহমান নামেই বাংলার মানুষ তা কে জানত। অনেকেই মুজিব ভাই বলে সম্বোধন করতেন। বিশাল হৃদয়ের মুজিব ভাই এত সহজে মানুষকে আপন করে নিতে অসাধারণ ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন। হবিগঞ্জের কৃতিসন্তান এড. মোস্তফা আলী কলকাতা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। বঙ্গবন্ধুও একই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ছিলেন। যে কারণে হবিগঞ্জের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে মোস্তফা আলী সাহেবের সাথে ছিল গভীর সম্পর্ক। কিন্তু এই শহরে তৎকালীন মুসলিম লীগ ছিল প্রভাবশালী ও ক্ষমতাধর। এখানে আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড করা ছিল দুঃসাহসী কাজ। এ সময়ে বঙ্গবন্ধুর সাথে পরিচয় হয় আমার বড় ভাই বহুলা গ্রামেরই বাসিন্দা জবান ভাইয়ের সাথে। মোস্তফা আলী সাহেব ও জবান ভাই দুজনেই একে অপরের পরিপূরক ছিলেন। বঙ্গবন্ধু জবান উল্লাহ সাহেব কে জবান ভাই নামে সম্বোধন করতেন। ১৯৬৬ সালে বাঙালীর মুক্তি সনদ ৬ দফা ঘোষণার আগে থেকেই বঙ্গবন্ধু সিলেটে সাংগঠনিক যাতায়াত ছিল। প্রকাশ্যে কোনো কিছু করা ছিল বিপদসংকুল। বর্তমানে সড়ক পথে যাতায়াত যত সহজ তখন ছিল না। একমাত্র রেল ট্রেন ও জলপথই ছিল ভরসা। বঙ্গবন্ধু সাংগঠনিক কাজে দেশের প্রতিটি দুর্গম অঞ্চলে সাহসিকতার সাথে যাতায়াত করেছেন। সিলেটে আসার পর হবিগঞ্জে আসার জন্য নেতৃবৃন্দ ছুটে গেলে বঙ্গবন্ধু বলতেন, জবান ভাই কোথায়, জবান ভাই বললেই আমি হবিগঞ্জে যাব। নয়তো নয় । হবিগঞ্জে আসার আগেই প্রিয় জবান ভাইয়ের শরণাপন্ন হতেন তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com