বগুড়ায় দাঁড়াতেই পারেনি বিএনপি

বগুড়ায় দাঁড়াতেই পারেনি বিএনপি

খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণার পর বগুড়া শহরের নওয়াববাড়ী সড়কে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ করেন বিএনপির নেতা-কর্মীরা।

বগুড়া ও শেরপুর, প্রতিনিধি: বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও প্রয়াত প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের জন্মস্থান হিসেবে বগুড়া দলটির দুর্গ বলে পরিচিত। খালেদা জিয়ার মামলার রায়কে কেন্দ্র করে সেই দুর্গে মাঠে দাঁড়াতেই পারেনি বিএনপির নেতা-কর্মীরা। দলীয় কার্যালয় চত্বরের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল তাদের অবস্থান। একই অবস্থা ছিল জেলার অন্যান্য উপজেলাগুলোতেও।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ের পরই বগুড়া শহরের পিটিআই মোড়ে স্থানীয় বিএনপির নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাঁদের ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পরে দলীয় কার্যালয়ের সামনে এক সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে শেষ হয়ে যায় বগুড়া বিএনপির কর্মসূচি। এই রায় প্রত্যাখ্যান করে জেলা সভাপতি সাইফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, সকাল থেকেই দলীয় কার্যালয়ের সামনে দু-একজন করে দলীয় নেতা-কর্মী অবস্থান নিতে থাকে। দুপুর পর্যন্ত এই সংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় শতাধিক। সকাল থেকেই বগুড়ার সড়কটি উপজেলায় বিএনপির কার্যালয়কে ঘিরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ নজরদারি ছিল। দুপুর ১২টায় বগুড়ার শেরপুরে বিএনপির কার্যালয়ে গেলে দেখা যায় কার্যালয়টি তালাবদ্ধ। এ কার্যালয়ের পাশেই জেলা বিএনপির উপদেষ্টা জানে আলমের বাড়ি। তাঁর বাড়ির সামনেও ছিল পুলিশের অবস্থান।

 

           বগুড়া শহরের নওয়াববাড়ী সড়কে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সতর্ক অবস্থান।

 

বগুড়া শহরের নওয়াববাড়ী সড়কে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সতর্ক অবস্থান। ছবি: সোয়েল রানাবৃহস্পতিবার বিকেলে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে শেরপুর উপজেলা বিএনপির সদস্যসচিব পিয়ার হোসেন বলেন, পুলিশের নির্যাতন নিপীড়নের কারণে শেরপুরে বিএনপির নেতৃবৃন্দ দলীয় কার্যালয়ে পর্যন্ত যেতে পারেনি। নেতা-কর্মীদের বাড়িতেও প্রায় এক সপ্তাহ ধরে পুলিশের তল্লাশি চলেছে। নেতাদের বাড়ির লোকজনকে ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে।

সন্ধ্যায় মুঠোফোনে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন জানান, পুলিশ ও র‍্যাব ব্যারিকেড দিয়ে রাখার কারণে কোনো নেতা-কর্মী দলীয় কার্যালয়ে ঢুকতে পারেনি। তবে তাঁরা পরবর্তী দলীয় কর্মসূচি পালন করবেন। তিনি আরও বলেন, গত কয়েক দিনে ৫০-৬০ জন স্থানীয় বিএনপির নেতা কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

জেলার মিডিয়া সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সনাতন চক্রবর্তী বলেন, উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে পুলিশ ও র‍্যাব সদস্যরা শহর জুড়ে টহল কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। পাশাপাশি বিজিবির তিন প্লাটুন সদস্য মোতায়েন রয়েছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com