সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে ধর্ষনের অভিযোগে দুই যুবক আটক বিশ্বনাথে ডাকাতের সঙ্গে গোলাগুলি, ৫ পুলিশ গুলিবিদ্ধ হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে বিশেষ অভিযানে পলাতক আসামী সবুজ গ্রেফতার স্কুলছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ধর্ষণের চেষ্টা, পুলিশের এএসআই ক্লোজড যে শহরে মসজিদ নিষিদ্ধ, মসজিদ নির্মাণ করতে চাইলেই দিতে হবে প্রাণ! লাগেজ নিচ্ছেন স্ত্রী, ক্র্যাচে ভর দিয়ে হাঁটছেন মাহমুদউল্লাহ! সাতক্ষীরায় পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগে ১১ লাখ টাকা লেনদেনের সময় আটক ২ ‘রেললাইন ও সেতুগুলো ব্রিটিশ আমলের হওয়ায় ঝুঁকিপূর্ণ’- রেলমন্ত্রী ‘নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়েই খেলেছেন ড. কামাল’- নাসিম ‘সাম্প্রদায়িক শক্তি বড় ধরনের হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে’
ফেনীতে চার তরুণীকে আটকে রেখে গণধর্ষণ

ফেনীতে চার তরুণীকে আটকে রেখে গণধর্ষণ

ফেনীতে চার তরুণীকে আটকে রেখে গণধর্ষণ
ফেনীতে চার তরুণীকে আটকে রেখে গণধর্ষণ

ফেনী- ফেনী শহরের রামপুর এলাকায় একটি বাসায় চার তরুণীকে আটকে রেখে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় গত সোমবার এক তরুণী বাদী হয়ে কাওসার বিন কাসেমসহ (৩৩) অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ফেনী সদর মডেল থানায় একটি মামলা করেছেন।

মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে রামপুর এলাকা থেকে মো. ওমায়ের (১৯) ও আরিফুল ইসলাম প্রকাশ আরমান (৩৩) নামে দুই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে।

তরুণীদের বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে, দীর্ঘ ছয় মাস ধরে প্রলোভন ও প্রেমের অভিনয় করে কাওসার বিন কাসেমসহ তার সহযোগীরা ভুক্তভোগী নারীদের সংশ্লিষ্ট বাসভবনটিতে নিয়ে যায়। তারপর তাদের জোরপূর্বক মাদক সেবন করিয়ে ধর্ষণ করত। বিভিন্ন সময় বাড়িতে যাওয়া অজ্ঞাতনামা লোকজনদের সঙ্গেও দৈহিক মিলনে বাধ্য করা হতো সংশ্লিষ্ট নারীদের। এতে কেউ অস্বীকৃতি জানালে তার ওপর নেমে আসত অমানুষিক নির্যাতনের খড়গ। মারধর ছাড়াও তাদের সিগারেটের ছ্যাঁকা ও বিদ্যুতের শক দেওয়া হতো।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ফেনী সদর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মো. শাহজাহান বলেন, “কাওসার বিন কাসেমসহ তার সহযোগীরা চার তরুণীকে প্রেমের প্রলোভন দিয়ে নিয়ে এসে ওই বাসায় ছয় মাস ধরে আটকে রেখে ধর্ষণ করে।”

গত সোমবার ওই বাসার ভেতরে তরুণীদের কান্না ও চিৎকার শুনে আশপাশ্বের লোকজন পুলিশে খবর দেয়।

এসআই শাহজাহান বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে চার তরুণীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাসার মালিকসহ নির্যাতনকারীরা পালিয়ে গেছে। “ওই বাসার বিভিন্ন কক্ষ থেকে ৫৩টি ইয়াবাসহ মাদক সেবনের বিভিন্ন সরঞ্জাম ও নির্যাতনের আলামত জব্দ করেছে পুলিশ।”

পরিদর্শক শহীদুল ইসলাম বলেন, উদ্ধার চার তরুণীর ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে ফেনীর বিচারিক হাকিমের আদালতে উপস্থিত করলে বুধবার তারা ‘২২ ধারায়’ জবানবন্দি দেন। আর ধর্ষণ মামলা ছাড়াও মাদক উদ্ধারের ঘটনায় থানায় পৃথক মামলা হয়েছে।

মামলার প্রধান আসামি কাওসার বিন কাসেমকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে বলে তিনি জানান।

ফেনী সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মো. আবু তাহের ধর্ষণের আলামত পাওয়ার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, “তরুণীদের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের আলমত পাওয়া গেছে। প্রতিবেদন পাওয়া গেলে বিস্তারিত জানা যাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com