ফলের বাগান করে কোটিপতি

ফলের বাগান করে কোটিপতি
ফলের বাগান করে কোটিপতি

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাস করার পর কলেজ শিক্ষকতার পাশাপাশি ফলের বাগান করতে শুরু করেন নাটোরের গোলাম মাওলা। ১০ হাজার টাকায় এক একর জমি নিয়ে বাগান শুরু করেন তিনি। এখন ২১ একরের বাগান। সেই বাগান থেকে আয় করে এখন গোলাম মওলা কোটিপতি। তিনি শুধু নিজেই স্বাবলম্বী হননি, তার প্রযুক্তি ব্যবহার করে এলাকায় অনেক তরুণই এখন নিজের পায়ে দাঁড়াতে শুরু করেছেন, দেখছেন উজ্জ্বল ভবিষ্যত। বাগান করার পাশাপাশি নিজের জ্ঞান আর অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে গোলাম মওলা নতুন তিনটি ফলের জাত উদ্ভাবনেও সাফল্য পেয়েছেন।

নাটোরের বাগাতিপাড়ার সৌখিন চাষী কৃষিবিদ গোলাম মওলা। তিনি বাগাতিপাড়া উপজেলার জামনগর এলাকার মৃত মসলেম উদ্দিনের ছেলে ও নাটোর মহিলা কলেজের কৃষি বিষয়ক শিক্ষক। বর্তমানে তার রয়েছে ২১ একর জায়গার ওপর ফলের বাগান। বাগানে রয়েছে আম, পেয়ারা, কুল, ড্রাগন,জাম্বুরা,বাতাবি লেবু, মালটা, শরিফাসহ বিভিন্ন ফলের চাষ।

গোলাম মাওলা জানান, তিনি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএসসি(এজি) ডিগ্রী অর্জনের পর নাটোর মহিলা কলেজে শিক্ষকতা পেশায় যোগ দেন। কিন্তু নিজের জ্ঞান আর অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে তিনি একটি আধুনিক বাগান করার পরিকল্পনা করেন। ২০০৪ সালে মাত্র ১ একর জায়গা বছরে ১০ হাজার টাকা হিসেবে লীজ নিয়ে তিনি ফলের চাষ শুরু করেন। বর্তমানে তার বাগানের পরিমাণ ২১ একর। তিনি বাগান চাষ করে লাভের টাকা দিয়ে ২ বার হজ করেছেন। নিজেদের বাড়ি করার জন্য নাটোর শহরে আড়াই শতক জমিও কিনেছেন। গোলাম মওলা জানান, সবমিলিয়ে বর্তমানে তিনি কোটিপতি।

গোলাম মাওলা জানান, ‘মূলত বারোমাসি ফল চাষের দিকে আমার ঝোঁক। আমার বাগানে রয়েছে বিষমুক্ত বারোমাসি আম, পেয়ারা, কুল, ড্রাগনসহ বিভিন্ন ফল। বাগান করার পাশাপাশি সিলেকশন পদ্ধতিতে নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনের চেষ্টা করছি। বর্তমানে আমি বারোমাসি পেয়ারা, কুল ও বাতাবি লেবুর জাত উদ্ধাবন করে সাফল্য পেয়েছি। আমার উদ্ভাবিত জাতের নাম বাংলা পেয়ারা, বাংলা বাতাবি লেবু ও বাংলা কুল।’

এক প্রশ্নের জবাবে গোলাম মাওলা বলেন, ‘আমার বাগানে ফলচাষে খুব সামান্য পরিমাণ রাসায়নিক সার ব্যবহার করা হয়। মূলত, অর্গানিক সারই ব্যবহার করি বেশি। ফলে খদ্দেররা বিষমুক্ত ফল পান। আমার উদ্ভাবিত বারোমাসি পেয়ারা ও বাতাবি লেবুর চারা নিয়ে ফলের বাগান করে সুফল পেয়েছেন এলাকার ৩০ জন যুবক। এছাড়া বিষমুক্ত হওয়ায় আমার বাগানের পেয়ারা ও বাতাবি লেবু সহ সব ফলের কদরও বেশি।’

তিনি বলেন, ‘শুরুতেই আমি ওষধি গাছের বাগান করি। এরপর কুল চাষ। এসময় আমি গবেষণা করে আগাম জাতের টক-মিষ্টি কুল উদ্ভাবন করি। পরবর্তীতে আম, জাম, জামরুল, পেয়ারা, লিচু, কলা, কুল, ড্রাগন, অগ্নিশ্বর চাপা কলা, পারসিমন, বারোমাসি কদবেলসহ সব ধরনের ফল বাগান করি।’

গোলাম মাওলা আরও জানান, ‘আমার উদ্ভাবিত বাংলা পেয়ারা গাছ লম্বায় অনেক বড় হয়। ফলও হয় বড়। এর একেকটির সর্বোচ্চ ওজন ১৪শ গ্রাম। ৮ থেকে ১০বছর বয়সী একটি গাছ থেকে বছরে ১০ থেকে ১৫ মণ পেয়ারা পাওয়া যায়। আমার উদ্ভাবিত বাংলা পেয়ারার চারার চাহিদাও বেশ। প্রতিটি চারা ৫০টাকা দামে বিক্রি করি। আমার উদ্ভাবিত বাতাবি লেবুও খুবই মিষ্টি এবং আকারে বড় হয়।’

বারোমাসি আমের মধ্যে আগাম জাতের আম সেপ্টেম্বর-অক্টোবর এবং জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসে পাওয়া যায়। এছাড়া তার উদ্ভাবিত আগাম জাতের কাঁচা মিঠা আম এপ্রিল মাসে পাওয়া যায়। সব ধরনের আম সাধারণত জুলাই মাসে উৎপন্ন হলেও গোলাম মওলার বাগানে যেসব জাতের আম রয়েছে তা প্রায় সারা বছর ধরে পাওয়া যায়। এসব আমের মধ্যে রয়েছে বারি-১১, সুইট কাটিমন, চোক আনান, শাহপুরী, গোরমতি, মধুমতি, বান্দিগৌরি, নাক ফজলি প্রভৃতি।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে গোলাম মাওলা জানান, তিনি ইতোমধ্যেই থাইল্যান্ড থেকে আনা সুইট কাটিমন ও চোকআনান আমের চাষে সফলতা পেয়েছেন। এই আম বছরে তিনবার পাওয়া যায়।

তার বাগানে বিভিন্ন ধরনের ফল ছাড়াও মিষ্টি কচু, কাঁটাবিহীন গোলাপ ফুল, খাটো জাতের সিয়াম গ্রিন ও সিয়াম ব্লু নামের নারিকেলের ৫৮টি  গাছ আছে বলেও জানান গোলাম মাওলা।

আগামীতে তিনি শরীফার ৫টি জাত তার বাগানে এডজাস্ট করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া পারসিমন ও লংগানের চাষও তিনি বাগানে শুরু করেছেন। গোলাম মওলা বলেন, ‘আগামীতে আমি থাইল্যান্ডের রাম্বুটান চাষ করার পরিকল্পনা নিয়ে গবেষণা করছি। যেহেতু রাম্বুটান শীত সহ্য করতে পারে না তাই গবেষণা চলছে কীভাবে এর চাষ  করা যায়। ইতোমধ্যে বেশ কিছু চারা এনে পরীক্ষামূলকভাবে চাষ করছি।’

স্থানীয় কৃষক ও নতুন উদ্যোক্তা মাহতাব আলী ও সমশের আলী গোলাম মাওলার বাগানের বিষয়ে বরেন, ‘এখানে দেশি বিদেশি বিভিন্ন ফল ও ফলের চারা পাওয়া যায়। এখানকার বারোমাসি বাংলা পেয়ারার ফলন বেশি। তাই আমরা এই চারা নিয়ে রোপণ করেছি। এছাড়া বারোমাসি আম, বাতাবি লেবু ও কুল গাছের চারার কদরও বেশ। দূরদূরান্ত থেকে মানুষ এসে এখান থেকে ফল ও চারা নিয়ে যায়। গোলাম মাওলার পথ অনুসরণ করে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন এলাকার অনেক যুবক।’

বাগাতিপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোমরেজ আলী বলেন, ‘কৃষিবিদ গোলাম মওলার বাগানে বারোমাসি আম, পোয়ারা, সিডলেস লেবু ও ড্রাগনসহ দেশি-বিদেশি অনেক নতুন নতুন ফলের গাছ রয়েছে। তার বাগানে অর্গানিক ফার্টিলাইজার ব্যবহার করা হয়। যার কারণে তার বাগান থেকে বিষমুক্ত ফল পাওয়া  যায়। গোলাম মাওলার পথ অনুসরণ করে দেশের হাজার হাজার যুবকের কর্মসংস্থানের পথ হতে পারে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com