প্রবাসীর স্ত্রীকে চার বছর ধর্ষণ, এবার নজর মেয়ের দিকে

প্রবাসীর স্ত্রীকে চার বছর ধর্ষণ, এবার নজর মেয়ের দিকে

প্রবাসীর স্ত্রীকে চার বছর ধর্ষণ, এবার নজর মেয়ের দিকে
প্রবাসীর স্ত্রীকে চার বছর ধর্ষণ, এবার নজর মেয়ের দিকে

লোকালয় ডেস্ক- মানিকগঞ্জের ঘিওরে এক প্রবাসীর স্ত্রীকে ‘ফাঁদে ফেলে’ গত চার বছরে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ওই নারী মঙ্গলবার ঘিওর থানায় মামলা করেছেন।

মামলায় ঘিওর উপজেলার হেলাচিয়া গ্রামের মোহাম্মদ আলী ওরফে উজ্জ্বল (৪০) ও তার কথিত সহযোগী এক নারীকে আসামি করা হয়েছে। এরপর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত উজ্জ্বল। ঘিওর উপজেলার নালী ইউনিয়নের ইউপি সদস্য দরবেশ বেপারীর ছেলে তিনি।

জানা গেছে, স্বামী বিদেশ থাকায় অভিযুক্ত উজ্জল গত চার বছর আগে বিভিন্নভাবে উত্যক্ত করতো। এক পর্যায়ে তাকে কৌশলে ফাঁদে ফেলে তার সাথে পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। শারিরীক সম্পর্কে বিভিন্ন ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়া হুমকি দিয়ে একাধিক ব্যক্তির সাথেও শারিরীক সম্পর্কে বাধ্য করে। পাশাপাশি বিভিন্ন এনজিও থেকে তার নিজের নামে ৮ লাখ ২৫ হাজার টাকা ঋণ উঠিয়ে তাকে দিতে বাধ্য করে।

পরে ওই ব্যক্তির কুনজর পড়েছে নির্যাতিতা ওই নারীর স্কুল পড়ুয়া মেয়ের দিকে। মেয়ের সাথে শারীরীক সম্পর্ক না করতে দিলে এ বিষয়ে তার স্বামীকে জানাবে এবং তার গোপন ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখাতে থাকে। প্রথমে মান-সম্মানের ভয়ে কাউকে কিছু না বললেও সে তার মেয়ের ইজ্জত বাঁচাতে মঙ্গলবার রাতে মানিকগঞ্জ সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি মামলায় উল্লেখ করেছেন, মঙ্গলবার দুপুরে ওই নারীকে তার মেয়েসহ মানিকগঞ্জের উত্তর সেওতা এলাকার মনিরা বেগম মনোয়ারার ৪ তলা বিশিষ্ট বাসার চিলাকোঠার কক্ষে যেতে বলে। না গেলে ইন্টানেটে তার গোপন ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার হুমকিসহ ভয়ভীতি দেখায়। এছাড়া কিস্তির ৮ লাখ ২৫ হাজার টাকা ফেরত না দেয়ার হুমকিও দেয়।

উপায়ন্ত না দেখে ওই নারী তার মেয়েকে নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে ওই বাড়ির চিলেকুঠার কক্ষে যায়। প্রথমে ওই ব্যক্তি ওই নারীকে ধর্ষণ করে পরে অন্য কক্ষ থেকে তার মেয়েকে এনে ধর্ষণ করতে উদ্যত হলে তিনি মেয়ের সম্মান বাঁচাতে বাধা দিয়ে চিৎকার-চেচাম্যাচি করতে থাকে। এসময় অভিযক্ত উজ্জল তার নিজের স্মার্র্ট মোবাইল ফোনটি ফেলে দৌড়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয়দের জিঙ্গাসাবাদে লোমহর্ষক ঘটনাগুলো জানা যায়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আশরাফুল ইসলাম বলেন, ভিকটিমের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। আসামীদের ধরার চেষ্টা চলছে। উদ্ধার হওয়া মোবাইলটিকে পরীক্ষা করা হচ্ছে।

মানিকগঞ্জ সদর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) মো. হানিফ সরকার জানান, এ ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে আলী হোসেন ও বাড়ির মালিক মনিকা বেগমের নামে মামলা করেছেন। আসামিরা পলাতক আছে। তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com