পায়ে ব্যান্ডেজ পেঁচিয়ে কিশোরীর দৌড়

পায়ে ব্যান্ডেজ পেঁচিয়ে কিশোরীর দৌড়

পায়ে ব্যান্ডেজ পেঁচিয়ে কিশোরীর দৌড়
পায়ে ব্যান্ডেজ পেঁচিয়ে কিশোরীর দৌড়

মধ্য ফিলিপাইনের স্যালভাসিয়ান ইলিমেন্টারি স্কুল। স্কুলের মাঠে অনুষ্ঠিত হচ্ছে আন্তঃপ্রাদেশিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। বেশ কিছু ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হওয়ার পর শুরু হলো মেয়েদের দৌড়।

প্রথমে ৪০০ মিটার। দৌড়ে প্রথম হয়ে সোনা জিতল ১১ বছর বয়সি রেহা ব্যালুস। এরপর ৮০০ মিটার এবং তারপর ১৫০০ মিটার। সবগুলো ইভেন্টে প্রথম হয়ে সোনা জিতে নিল সে।

অভাবনীয় সাফল্য। একসঙ্গে এতগুলো ইভেন্টে সোনাজয় সহজ কথা নয়। রেহাকে নিয়ে তাই মাতামাতির শেষ নেই। চারদিকে দর্শকের করতালি আর প্রশংসায় সিক্ত হচ্ছে সে। এরই মধ্যে বেরিয়ে এলো ব্যথাতুর এক দৃশ্য। উন্মোচিত হলো সাফল্যের পেছনের কারণ।

রেহা যখন পুরস্কার নিতে মঞ্চের দিকে যাচ্ছিল তখন উপস্থিত দর্শক চমকে উঠল! কারণ অন্য প্রতিযোগীদের পায়ে দৌড়ানোর জুতা থাকলেও রেহার পা ছিল খালি। অর্থাৎ খালি পায়েই এতক্ষণ দৌড়েছে রেহা!

তবে রেহার পা একেবারে খালি ছিল না। জুতার বদলে সে পায়ে পেঁচিয়েছিল ফেলে দেয়া ব্যান্ডেজ। জুতার মতো করে পেঁচিয়ে ব্যান্ডেজ পরেই দৌড়েছে সে। সেই ব্যান্ডেজও ছিল ছেঁড়া ও নোংরা। অর্থাৎ ওটুকু কেনারও পয়সা ছিল না তার কাছে। যে কারণে পুরনো ব্যান্ডেজ কাজে লাগাতে হয়েছে।

রেহার এই গল্প ছড়িয়ে পড়েছে নেট দুনিয়ায়। ফিলিপাইনসহ বিশ্বের বেশকিছু নামী গণমাধ্যমের খবরের শিরোনাম হয়েছে সে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অসংখ্য লোক তাকে সাহায্য করতে চাইছে। সাবেক বাস্কেটবল খেলোয়ার জেফ ক্যারিয়াসো টুইট করে বিশ্বখ্যাত ক্রীড়া সামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান নাইকির দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। কারণ রেহার পায়ের ব্যান্ডেজে নাইকির লোগো আঁকা ছিল। সাড়া মিলেছে নাইকি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকেও। তারা রেহাকে সহায়তার আশ্বাস দিয়েছে।

রেহার বসবাস মধ্য ফিলিপাইনের লোলিলো এলকায়। অতি দরিদ্র পরিবারে বেড়ে ওঠা রেহার পরিবারের নুন আনতে পান্তা ফুরোয়। যেখানে রেহার স্কুলে পরে যাওয়ার জুতা নেই, সেখানে দৌড়ানোর জুতা তার জন্য আকাশ কুসুম কল্পনা বৈকি। তবে ইচ্ছা থাকলে কোনো প্রতিবন্ধকতাই যে মানুষকে আটকে রাখতে পারে না, তেমনই এক দৃষ্টান্ত তৈরি করেছে সে। রেহা বলেছে, আমি যখন সবার পায়ে সুন্দর চকচকে জুতা দেখলাম, তখনই স্থির করেছি- এ দৌড়ে আমাকে জিততেই হবে!

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com