সংবাদ শিরোনাম :
পাশ্চাত্যের মন্দা কাজে লাগিয়ে সেরা হতে চায় চীন

পাশ্চাত্যের মন্দা কাজে লাগিয়ে সেরা হতে চায় চীন

lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কঃ  যুক্তরাজ্যভিত্তিক গণমাধ্যম ‘দ্য মেইল’-এর অনলাইন ভার্সনে গত ১৮ এপ্রিল ‘করোনা ভাইরাস মহামারি’ ছড়িয়ে দেওয়ায় চীনের ভূমিকা নিয়ে একটি নতুন সিরিজ প্রতিবেদনের প্রথম কিস্তি প্রকাশ করা হয়।

এর আগে ‘মেইল’ উহানে ভাইরাসটির সূতিকাগার এবং চীনা কর্তৃপক্ষ দারা ভাইরাসটির বিস্তার ঘটানোর খবর চাপা দেওয়ার অভিযোগসহ নানা বিষয়ে অনুসন্ধান চালায়।

সর্বশেষ ২০ এপ্রিল প্রতিবেদনের শেষ কিস্তিতে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়, কোভিড-১৯কে কেন্দ্র করে চীন পাশ্চাত্যের অর্থনৈতিক মন্দাবস্থাকে কাজে লাগাতে চায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চীন মহামারি-উত্তর কালে আমেরিকার কাছ থেকে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ অর্থনৈতিক শক্তিধর দেশের তকমা ছিনিয়ে নিতে চায়। একই সঙ্গে তারা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের সুবাদে পাশ্চাত্যকে অবনত দেখতে পছন্দ করছে। বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর বেশ কয়েকটি বিলম্বিত ‘ভিডিও ক্লিপ’ ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। গত ২২ জানুয়ারি সুইজারল্যান্ডের এক পাহাড়ের মাঝখান অবধি একটি ভিডিওচিত্র ধারণ করা হয়। একই দিন চীনের উহান নগরীতে বিলম্বিত লকডাউন ঘোষণা করা হয়। ইতিমধ্যে বিশ্বের কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি সুইজারল্যান্ডের দাভোসে মিলিত হন। তারা বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের পূর্বনির্ধারিত বার্ষিক সভায় যোগ দেন।

সভায় নজরকাড়া বক্তাদের মধ্যে ছিলেন সিঙ্গাপুরের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও সাবেক কূটনীতিক কিশোর মাহবুবানী। তিনি ‘চীন কি বিজয়ী হয়েছে?’ শিরোনামে একটি নতুন ও বহুল আলোচিত গ্রন্থের রচয়িতা। এই গ্রন্থে তিনি যুক্তরাষ্ট্রকে পেছনে ফেলে চীনের বিশ্বের শীর্ষ অর্থনৈতিক সুপারপাওয়ার হওয়ার নিরলস প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরেছেন। করোনা ভাইরাসজনিত সমস্যা শুরু হওয়ার আগেই এই গ্রন্থের রচনা সম্পন্ন হয়।

বৈঠক চলাকালে অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষক ‘ডয়েশে ব্যাংক’-এর এক প্রতিনিধি মাহবুবানীর চিত্রায়িত সাক্ষাত্কার গ্রহণ করেন। তিনি মাহবুবানীর কাছে তার গ্রন্থের শিরোনাম ‘চীন কি বিজয়ী হয়েছে?’র যৌক্তিকতা সম্পর্কে প্রশ্ন করেন। জানতে চান, ‘চীন কি আসলেই সফলকাম হয়েছে?’ জবাবে মাহবুবানী দুর্বোধ্য হাসি দিয়ে বলেন, ‘এখনো না।’

১০ মিনিটের ঐ সাক্ষাত্কারে মাহবুবানী আমেরিকার ধনতন্ত্রের সঙ্গে তার ভূরাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বির তুলনা করে বলেন, ‘চীন ক্রমেই গুণশালী হয়ে উঠছে এবং সবচেয়ে তরুণ ও গতিশীল মেধাসম্পন্ন নেতৃত্ব দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে।’

কাজেই এটা নিশ্চিত করে বলা যায়, চ্যালেঞ্জ গ্রহণের বিষয়টি ক্রমেই উন্মুক্ত হচ্ছে। তাছাড়া ৬৬ বছর বয়সেও প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং যথেষ্ট সজিব-সবল। চীনের উচ্চাভিলাষ সম্পর্কে মাহবুবানীর বক্তব্যের পর এখন শোনা যাচ্ছে, চীনে নতুন এই দুর্যোগ মোকাবিলায় ব্যর্থতার জন্য নেতৃবৃন্দের সমালোচনা করায় হাজার হাজার লোককে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু দাভোস সম্মেলনে এ ব্যাপারে একটি শব্দও খরচ করা হয়নি।

গ্রন্থপ্রণেতা মাহবুবানী তো নয়ই, এমনকি যিনি সাক্ষাত্কার গ্রহণ করেছেন, তিনিও এ ব্যাপারে কোনো প্রশ্ন করেননি। মাহবুবানীকে অবশ্য চীনা কমিউনিস্ট পার্টি এবং দেশটির গত ৪০ বছরের পরিশ্রমের ফসল ‘অলৌকিক অর্থনীতির কট্টর সমর্থক হিসেবে ধরা হয়।

মাহবুবানীকে একনায়কতন্ত্রের পূজারিও বলা হয়। এমনকি তার বিরুদ্ধে ১৯৮৯ সালে তিয়ানমেন স্কয়ারে গণহত্যা এবং কোভিড-১৯-এর বিষয়ে তথ্য গোপনকে ‘দলের সাফল্যের চাবিকাঠি’ হিসেবে বর্ণনা করার অভিযোগ আছে। এর পরও ক্রমবর্ধমান বিতর্কের কারণে তিনি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেন।

‘দ্য ইকোনমিস্ট’ সাময়িকীর চলতি সংখ্যায় মাহাবুবানীর মূল প্রশ্নকে প্রথম পৃষ্ঠায় শিরোনাম করে লিখেছে ‘চীন কি জিততে চলেছে?’ হতে পারে চলমান আন্তর্জাতিক বিপর্যয় থেকে চীন আর্থিকভাবে লাভবান হবে এবং প্রভাব বিস্তারে সফল হবে। এ কারণে অনেকেই ধারণা করছেন, এই বিপর্যয় চীনের সৃষ্ট!

এদিকে চীন ইতিমধ্যে করোনা বিপর্যয় কাটিয়ে উঠেছে এবং সেখানে দ্রুত স্বাভাবিক জীবন ফিরে এসেছে। এমনকি কিছু কিছু কলকারখানায় উত্পাদন পুনরায় শুরু হয়েছে। উহানে করোনা ভাইরাস মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ার পর যেসব চিকিত্সাকর্মী উহানবাসীর সাহায্যে বাইরে থেকে এসেছিলেন, তাদের শেষ দলটিকেও সম্প্রতি বিদায় জানানো হয়।

ধারণা করা হচ্ছে, নতুন বছরের প্রথম তিন মাসে করোনা ভাইাসের দ্রুত বিস্তৃতি ঘটার পরও চীনের অর্থনীতি মাসের দ্বিতীয় ভাগে ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে যাচ্ছে। এদিকে পাশ্চাত্যের অধিকাংশ দেশে এখনো লকডাউন বলবত্ রয়েছে এবং সেখানে অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এসব দেশের শেয়ারবাজারগুলোতে ধস নেমেছে এবং বেকারত্ব ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। যুক্তরাজ্যের বাজেট প্রণয়ন কার্যালয় আশঙ্কা করছে, এই দুর্যোগের কারণে সেদেশের জিডিপিতে ৩৫ শতাংশ পর্যন্ত ধস নামতে পারে।

অন্যদিকে জনগণের জীবনমান তদারককারী স্বাধীন ও নিরপেক্ষ নীতিনির্ধারণী সংস্থা ‘রেজুলেশন ফাউন্ডেশন’ মনে করে, আগামী তিন মাসে প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ লোক কর্মহীন বা বেকার হয়ে পড়বে। এতে অবাক হওয়ার কিছু নেই যে এই বিপর্যয়ে কলকাঠি নাড়ার অভিযোগে চীনা নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে বিশ্বব্যাপী নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ডাউনিং স্ট্রিটে চুলচেরা বিশ্লেষণ করা হচ্ছে।

এদিকে গত সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রসচিব ও ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী ডোমিনিক রাব বলেন, সংকট মিটে গেলেও চীনের সঙ্গে আর কখনো স্বাভাবিক সম্পর্ক গড়ে উঠবে না। আমাদের কঠিন হলেও প্রশ্ন করতে হবে, ‘কীভাবে এর বিস্তার ঘটেছে এবং কেন তা আগেভাগে বন্ধ করা গেল না?

ক্ষমতাসীন রক্ষণশীল দলের নীরব সদস্যরাও আজ সোচ্চার। তারা গত জানুয়ারিতে চীনের টেলিকমিউনিকেশন জায়েন্টের সঙ্গে বিতর্কিত চুক্তি পুনর্বিবেচনার দাবি জানিয়েছেন। চুক্তি অনুযায়ী হাওয়াইভিত্তিক এই কোম্পানির ব্রিটেনকে ফাইভ-জি অবকাঠামোতে যন্ত্রপাতি সরবরাহের কথা রয়েছে। কোম্পানিটির বিরুদ্ধে তথ্য পাচারের অভিযোগ রয়েছে।

কেবল রাজনীতিবিদই নন, ব্রিটেনের সাধারণ মানুষও ঐ চুক্তিতে ক্ষুব্ধ। কট্টর রক্ষণশীলদের নীতিনির্ধারণী সংস্থা ‘হেনরি জ্যাকসন সোসাইটির (এইচজেএস) এক জরিপে বলা হয়, ৮০ শতাংশেরও বেশি ব্রিটিশ চীনের বিরুদ্ধে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ তদন্তের পক্ষে। অন্যদিকে ৭০ শতাংশ ব্রিটিশ চায় সরকার চীনের কাছ থেকে ৩৫ হাজার কোটি পাউন্ড আদায়ে মামলা করুক। প্রায় ৭৪ শতাংশ ব্রিটিশ কোভিড-১৯কে বিশ্ব্যাপী ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য চীনকে দায়ী করে। ব্রাসেলসও বেইজিংকে সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিযোগিতা কমিশনের প্রধান মারগ্রেথ ভেস্টেগার সদস্যরাষ্ট্রগুলোর সরকারপ্রধানদের প্রতি তাদের শেয়ারবাজারে চীনের কারসাজি ঠেকাতে দেশের ‘স্ট্র্যাটেজিক অ্যাসেট কোম্পানিগুলোর শেয়ার ক্রয়ের পরামর্শ দিয়েছেন।

বেইজিংয়ে সাবেক ব্রিটিশ কূটনীতিক ও এইচজেএসের এশিয়া স্টাডিজ সেন্টারের পরিচালক ম্যাথিউ হেন্ডারসন বলেছেন, ‘অনেক বিষয়েই যথেষ্ট বিলম্ব হয়েছে।

তিনি দ্য মেইলকে বলেন, ‘আমরা গত দুই দশক ধরে শুধু পেছনে ঝুঁকেছি এবং বিশ্বাস করেছি চীন থামতে জানে না আর তাদের সঙ্গে ব্যবসা করা উভয়ের জন্য লাভজনক। আসলে সবাই চরম নির্বুদ্ধিতার পরিচয় দিয়েছি। সবকিছু মিটে গেলে সেই চীনকে আর পাওয়া যাবে না, একদিন আমরা যার প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছিলাম। এখন আমাদের সোজাসাপ্টা কিছু প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হবে। আমরা কেন আগ্রাসী চীনের সাহায্যপ্রার্থী হলাম?’

উল্লেখ্য, সত্তরের দশকের শেষ দিকে দেং শিয়াও পিং প্রেসিডেন্ট পদ গ্রহণের পর চীনা কমিউনিস্ট পার্টি সমাজের ওপর দৃঢ় নিয়ন্ত্রণ বজায় রেখে দেশের অর্থনীতির শিকড় থেকে ডালপালা পর্যন্ত সর্বত্র আমূল পরিবর্তন আনার এক অসাধারণ মিশন পরিচালনা শুরু করে।

দ্য মেইল এ সপ্তাহে মাহাবুবানীর সঙ্গে কথা বলেছে এবং তিনি পরিস্থিতি মোকাবিলায় চীনের দূরদর্শিতার প্রশংসায় অবিচল থেকেছেন।

তিনি বলেন, সংকটের প্রথম দিকে তারা এক বা দুটি ভুল করে থাকতে পারে। তবে দেশটি দ্রুত পরিস্থিতি সামাল দিয়েছে এবং ১৪০ কোটি লোকের বিশাল দেশটির অধিকাংশ বাসিন্দাকে এই রোগের প্রাদুর্ভাব থেকে রক্ষা করতে সক্ষম হয়েছে। এ কারণে বলা যায়, চীন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক সুপারপাওয়ারের খেতাব ছিনিয়ে নিতে চাইলে তা অসম্ভব কিছু হবে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com