সংবাদ শিরোনাম :
শুল্ক ফাঁকির শতাধিক বিলাসবহুল গাড়ি এখন সিলেটে! দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা অবশেষে আবর্জনামুক্ত হচ্ছে হবিগঞ্জ শহরে আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ হবিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা অপরাধ কর্মকাণ্ড রোধে সতর্ক পুলিশ শাহজীবাজার মাজারে প্রশাসনের আদেশ অমান্য করে কাফেলার আয়োজন সংবাদ প্রকাশের পর গার্নিং পার্কে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান ডিবির অভিযানে ৫ কলগার্লসহ ৩ খদ্দর আটক কোরেশনগরে হোটেল যুবরাজ থেকে লাশ উদ্ধার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা ছেলের বিয়ের দাওয়াতে বের হয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মায়ের
পালিয়ে গেছে অভিযুক্ত চন্দ্রন মুড়া নামের মাদক বিক্রেতা গাঁজার চাষ হচ্ছে চুনারুঘাটে ॥ গাছ জব্দ

পালিয়ে গেছে অভিযুক্ত চন্দ্রন মুড়া নামের মাদক বিক্রেতা গাঁজার চাষ হচ্ছে চুনারুঘাটে ॥ গাছ জব্দ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চুনারুঘাট উপজেলার তরুণ ও যুবসমাজকে মাদকে গ্রাস করে ফেলেছে। সীমান্তের ওপার থেকে আসা ফেনসিডিল, গাঁজা এবং ভারতে তৈরি ইয়াবা পাচারের পাশাপাশি স্থানীয়ভাবেও গাঁজা উৎপাদন করা হচ্ছে। প্রায়ই এখান থেকে বিভিন্ন জেলায় পাচার হয় গাঁজা। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালালেও ব্যবসা বন্ধ হচ্ছে না। কারণ পুলিশের অভিযানে এখনও বড় কোনো মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার হয়নি উপজেলার। চুনোপুঁটিরাই গ্রেফতার হচ্ছে। মাদক ব্যবসার ফলে শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী, যুবক-যুবতী, তরুণ, শিশুরাও মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। ফলে নেশার টাকা যোগাড় করতে চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি, প্রতারণা করে অর্থ যোগাড় করছে মাদকসেবীরা। এতে করে অভিভাবকদের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বিরাজ করছে। গত সোমবার চুনারুঘাট উপজেলার লালচান্দ চা বাগানের কাঠালডাঙ্গা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৯টি গাঁজার গাছ উদ্ধার করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। এ সময় পালিয়ে গেছে চন্দ্রন মুড়া নামের এক মাদক বিক্রেতা। গত সোমবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিদ্ধার্থ ভৌমিকের নেতৃত্বে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর অভিযান চালিয়ে গাছগুলো জব্দ করে। পালিয়ে যাওয়া চন্দ্রন মুড়া একই গ্রামের মৃত জহর লাল মুড়ার পুত্র। এ বিষয়ে পরিদর্শক জনাব কাজী হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে চুনারুঘাট থানায় ১টি নিয়মিত মামলা দায়ের করেন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, চুনারুঘাট উপজেলা সদরের কলেজ রোড ও মুড়ারবন্দ মাজারের আশপাশসহ প্রায় ৩০টি স্পটে অর্ধশতাধিক নারী ও পুরুষ মাদকদ্রব্য বিক্রি করছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে। এসব এলাকায় সকালে ও রাতে জমজমাট মাদক বিক্রি ও সেবন চলে। সন্ধ্যার পর গ্রামের অন্ধকার সড়কে জমে ১৫ বছর বয়সী কিশোর থেকে ৩৫/৪০ বছরের নেশাখোরদের ভিড়। কিছু কিছু রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের ম্যানেজ করে চলছে এ অবৈধ ব্যবসা।
জানা যায়, চুনারুঘাট উপজেলার প্রায় ৭৪ কিলোমিটার সীমান্ত এলাকা রয়েছে। এ সীমান্তের মধ্যে কালেঙ্গা থেকে বাল্লা হয়ে সাতছড়ি পর্যন্ত কিছুটা ছাড়া পুরোটাই পাহাড়ি সীমান্ত এলাকা হওয়ায় দিনে ও রাতে অবাধে মাদক পাচার হয়ে আসছে। সীমান্তের ওপারে ত্রিপুরা রাজ্যের ৫টি জেলার পাহাড়ি অঞ্চলের বাসিন্দারা গত কয়েক বছর ধরে বিপুল পরিমাণ গাঁজা বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদ করছে। এসব গাঁজার ৮০ ভাগই বাংলাদেশে পাচার হয়ে আছে। পাশাপাশি সীমান্ত ঘেঁষে গড়ে উঠেছে ফেনসিডিল কারখানা। এসব কারখানায় তৈরি ফেনসিডিল মূলত বাংলাদেশে পাচার হয়ে আসছে। উপজেলার সাতছড়ি, গুইবিল, চিমটি, কালেঙ্গা, রেমা ও বাল্লা সীমান্ত দিয়ে কয়েক কোটি টাকার গাঁজা ও ফেনসিডিল পাচার হয়ে বাংলাদেশে এসেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বিশেষ করে পাহাড়ি এলাকা সাতছড়ি, চাকলাপুঞ্জি, চণ্ডিছড়া, আমু ও নালুয়া চা বাগানের বিভিন্ন পথে গাঁজা ফেনসিডিল পাচার হয়ে আসছে সবচেয়ে বেশি।
উপজেলা সদর ও ইউনিয়ন পর্যায়ে এ ব্যবসার সঙ্গে কিছু অসাধু রাজনৈতিক নেতাও জড়িত রয়েছে বলে জানা গেছে। এক্ষেত্রে পুলিশের একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের অসহায়ত্তের নানা চিত্র। এর মধ্যে রাজনৈতিক নেতাদের হস্তক্ষেপ প্রধান কারণ বলে তারা উল্লেখ করেন।
অন্যদিকে মাদক ব্যবসায়ীরা হাজতবাস করে বেরিয়ে আসার পর আবার শুরু করে মাদক ব্যবসা। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বর্তমানে ধনাঢ্য পরিবারে মাদকসেবী সন্তানদের মানিব্যাগেই এখন ইয়াবা ট্যাবলেট, পোড়ানোর জন্য ফয়েল পেপার-গ্যাসলাইট বহন করে থাকে। আর চুনারুঘাটে এখন সহজলভ্য হয়ে উঠছে ইয়াবার ব্যবসা। মোবাইল ফোনের নির্দেশনার মাধ্যমে নির্দিষ্ট জায়গায় খুচরা বিক্রেতারা ইয়াবা ট্যাবলেট পৌঁছে দিচ্ছে। এলাকার সচেতন মহলের দাবী দ্রুত তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যাবস্থা না করলে সমাজের যুব সমাজ ধংসের দিকে চলে যাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com