সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
পাঁচ পাহাড়ে অস্ত্রের কারখানা

পাঁচ পাহাড়ে অস্ত্রের কারখানা

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

অস্ত্রের প্রশিক্ষণ! দুর্গম পাঁচ পাহাড়ে। রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের বড় অংশে। মানচিত্র রেড সিগন্যাল হয়ে দাঁড়াচ্ছে। বেশি ঝুঁকি বাড়ছে রোহিঙ্গা সীমানাকে কেন্দ্র করে। কক্সবাজারের উখিয়ার পাহাড়ে মিলছে অস্ত্রের কারখানা। প্রশিক্ষণরত অবস্থায় আটকের ঘটনাও রয়েছে। উদ্ধার করা হচ্ছে অত্যাধুনিক মারণাস্ত্র।

রয়েছে এসএমজি, একে-৪৭ রাইফেল, এম-১৬ ও এম-৪ এর মতো বিদেশি অস্ত্র। বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির দুর্গম পাহাড়ে অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় মিয়ানমারের নাগরিককেও পাওয়া যাচ্ছে। পাহাড়ে আগ্নেয়াস্ত্রগুলোর অধিকাংশই বিদেশি। যার মধ্যে ভারতীয়, চাইনিজ, ইতালিয়ান, কোরিয়ান ও যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি অস্ত্রই বেশি।

তিন পার্বত্য জেলার সীমান্তবর্তী দেশ ভারত ও মিয়ানমার। বান্দরবানের সঙ্গে রয়েছে ভারত ও মিয়ানমারের সীমানা। রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ির সঙ্গে ভারতের সীমানা। সীমান্তবর্তী এলাকাগুলো খুবই দুর্গম। বান্দরবানের রোয়াংছড়ি, রুমা, থানচি, আলীকদম ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা সীমান্তবর্তী এলাকা। এই উপজেলাগুলোর সীমানায় ভারত ও মিয়ানমারের ভেতরে অবস্থান করছে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মিসহ (আরসা) কয়েকটি বিচ্ছিন্নতাবাদী গ্রুপ। অস্ত্র মাদকের ব্যবসায় তারা এখন কোটিপতি।

বিজিবি সূত্রের দাবি, দুর্গম পাহাড়ি পথে দুর্গমতার কারণে লাগাতার প্যাট্রোলিংয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। এলাকা দুর্গম হওয়ার কারণে তাদের অগোচরে পাহাড়ে অস্ত্রের কারখানা গড়ে উঠছে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাহাড়ে অস্ত্র কারখানার সন্ধান, বিদেশি অস্ত্রসহ তিন রোহিঙ্গা আটক : সমপ্রতি রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের সঙ্গে র‌্যাবের গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটেছে। আশ্রয় ক্যাম্পের পাহাড়ে অস্ত্র তৈরি করা হচ্ছে এমন খবর পেয়ে র‌্যাব সদস্যরা সেখানে অভিযানে গেলে সন্ত্রাসী রোহিঙ্গারা র‌্যাবের দিকে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। গত সোমবার ভোরে কুতুপালং এক্স-৪ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাহাড়ে এ ঘটনা ঘটে। পরে ১০টি অস্ত্র এবং অস্ত্র তৈরির বিপুল সরঞ্জামসহ তিন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে র্যাব।

সশস্ত্র রোহিঙ্গা মূলঘাঁটি বাংলাদেশ ঘেঁষে মিয়ানমারের গহিন জঙ্গলে : আশ্রয় ক্যাম্প ও সীমান্তের বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, সশস্ত্র রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের মূলঘাঁটি বাংলাদেশ ঘেঁষে মিয়ানমারের গহিন জঙ্গলে। তারা সীমান্তের জিরো লাইনে প্রায় পাঁচ হাজার রোহিঙ্গা নিয়ে বস্তিতে যাওয়া-আসা করে থাকে। ওই ক্যাডারদের রসদ সংগ্রহ করে দেয় কোনারপাড়া বস্তির রোহিঙ্গারা। আরসার মোস্ট ওয়ান্টেড ভারী অস্ত্রধারী কমান্ডারের নির্দেশে বাংলাদেশে আশ্রিত সাধারণ রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে তাদের তালিকাভুক্ত ক্যাডাররা। আরসার উদ্দেশ্য ছিলো ক্যাম্পেই অস্ত্রের কারখানা বসিয়ে অস্ত্র তৈরি করে তাদের ক্যাডারদের হাতে অস্ত্র তুলে দেয়া। তাদের সেই আশায় চলতি সপ্তাহে গুঁড়েবালি দিয়েছে র্যাব। দুঃসাহসিক অভিযান চালিয়ে আরসার সেই পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দিয়েছে র‌্যাব-১৫-এর সদস্যরা।

ক্যাম্পের পাহাড়ে অস্ত্র তৈরির কারখানা বসিয়েছে আরসা, দিচ্ছে অস্ত্র প্রশিক্ষণ : জানা যায়, প্রতিটি ক্যাম্পে আরসা ক্যাডারদের অস্ত্র তুলে দিতে সশস্ত্র রোহিঙ্গা সংগঠন আরাকান স্যালভেশন আর্মির (আরসা) কমান্ডাররা ক্যাম্পের পাহাড়ে ইতোপূর্বেও অস্ত্র তৈরির কারখানা বসিয়েছিল। এর আগে কুতুপালং মধুরছড়া ক্যাম্পের পাশের পাহাড় থেকে র‌্যাব সদস্যরা অভিযান চালিয়ে মহেশখালীর বাসিন্দা অস্ত্র তৈরির এক কারিগরসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছিল। উদ্ধার করা হয়েছিল চারটি অস্ত্র এবং অস্ত্র তৈরির সরঞ্জামাদি। গত সোমবারও সুনির্দিষ্ট তথ্য পেয়ে অস্ত্র তৈরির কারখানা আবিষ্কার করতে অভিযান চালায় র‌্যাব।

সোমবার ভোরে র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসী রোহিঙ্গারা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। দীর্ঘ চার ঘণ্টা গুলি বিনিময়ের পর রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা পিছু হটলে অস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান পায় র‌্যাব। সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে। আটক তিন রোহিঙ্গা যুবক হলো কুতুপালং ক্যাম্প সি-১ জি ব্লকের মৃত আজিজুর রহমানের ছেলে বাইতুল্লাহ, তার ভাই হাবিব উল্লাহ ও জি ব্লকের জাহিদ হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ হাছান। তারা আরসার ক্যাডার বলে জানিয়েছে একাধিক রোহিঙ্গা।

পাহড়ে বসে বিদেশি অস্ত্র তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে আন্তর্জাতিক বিশেষ নম্বর ও কোড : বিশেষজ্ঞদের মতে, বিদেশি অস্ত্রগুলোর প্রত্যেকটিতেই তাদের কারখানায় তৈরির সময় বিশেষ নম্বর ও কোড ব্যবহার করা হয়। ওই অস্ত্র পরবর্তীতে যে ডিলার প্রতিষ্ঠান খুচরা বা পাইকারি বিক্রির জন্য কিনে নেয় তার সব তথ্য অস্ত্র তৈরির কোম্পানির কাছে সংরক্ষিত থাকে। এভাবে একজন গ্রাহক বা ক্রেতা যখন সেই ডিলার প্রতিষ্ঠান থেকে অস্ত্র কিনে তখন সেই ব্যক্তির জন্য সরকারের অনুমতিপত্রসহ সব ধরনের তথ্য সংরক্ষণ করা হয়। অর্থাৎ অস্ত্র তৈরি থেকে শুরু করে যার হাতে ব্যবহার হচ্ছে সব তথ্যই সংশ্লিষ্ট মাধ্যমগুলোর কাছে সংরক্ষিত থাকে।

অনেকরেই প্রশ্ন— আগ্নেয়াস্ত্র কেনাবেচার এমন প্রক্রিয়ার মাঝেও কী করে চোরাইভাবে অস্ত্র পাচার হচ্ছে। কী করে অবৈধভাবে অস্ত্র কেনাবেচা চলছে। অপরাধী চক্রের মাধ্যমে চাইলেই যে কেউ অস্ত্র কিনতে পারছে! তা হলে মূল গলদ কোথায়? এ বিষয়গুলো রাষ্ট্রীয়ভাবে খতিয়ে দেখলে অবৈধ অস্ত্রের চোরাচালানের উৎস সম্পর্কে জানা যেতে পারে। পাশাপাশি অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহারও অনেকাংশেই কমানো সম্ভব বলে মন্তব্য করেন বিশেষজ্ঞরা।

যৌথবাহিনীর ওপর ক্ষুব্ধ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা, ক্যাম্পে আগুন লাগানোর পরিকল্পনা : এদিকে আশ্রয় ক্যাম্পে রোহিঙ্গা নেতা মাস্টার মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ডের পর নিয়মিত টহল দিচ্ছে যৌথবাহিনী। তারা দিনে-রাতে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করতে পিছপা হচ্ছে না। এতে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের সশস্ত্র গ্রুপের আরসা ক্যাডাররা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। তারা ক্যাম্পে অরাজকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে কয়েকটি ক্যাম্পে একযোগে আগুন ধরিয়ে দেয়ার পরিকল্পনাও নিয়েছে বলে সূত্রটি দাবি করেছে। এ কাজে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য ১০ লাখ টাকায় চুক্তি করেছিল নুর হাসান নামে এক রোহিঙ্গা নেতার সঙ্গে। নুর হাসান মিয়ানমারের তুমব্র বাদির ছড়ার বালুখালীর বাসিন্দা। বর্তমানে সে জুমের ছড়া ৮নং ব্লকের ৭৬-এ থাকে। মুহাম্মদ হাসান রোহিঙ্গা নেতা নুর হাসানের ছেলে। তার হেড মাঝি ছলিম ও সাইট মাঝি হাসেম। একটি ভিডিও ফুটেজ থেকে জানা যায়, আরসার সদস্যরা ১৭টি ক্যাম্পে একযোগে আগুন লাগিয়ে দেয়ার জন্য ক্যাডারদের নিয়ে বৈঠক করেছে। আরসার দ্বিতীয় সারির নেতা আবুল কালাম ক্যাম্প ১১ ডি-১ এ আশ্রিত রোহিঙ্গা। সে আরসার ফাইটিং গ্রুপের সদস্য ছিলো। আরসার ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড দেখে আরসার বাহিনী থেকে পদত্যাগ করেছে মর্মে লাইভে এসে গত সোমবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার মতামত জানিয়েছে।

কুতুপালংয়ের গহিন পাহাড়ে চার ঘণ্টা র‌্যাব-রোহিঙ্গা গুলিবিনিময়, নিয়ন্ত্রণে অস্ত্র কারখনা : বিষয়টি নিশ্চিত করে র্যাব-১৫ সিনিয়র সহকারী পরিচালক (ল’অ্যান্ড মিডিয়া) মো. আবু সালাম চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে একটি চক্র এই কারখানা তৈরি করে অস্ত্র বানিয়ে আসছিল। এখান থেকে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের কাছে অস্ত্র সরবরাহ করা হচ্ছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়িয়ে প্রথমে কারখানাটি শনাক্ত করা হয়। তারপর গত সোমবার ভোরে চার ঘণ্টার বেশি সময় গুলি বিনিময়ের পর কারখানাটি নিয়ন্ত্রণে নেয়া হয়। পরে সেখান থেকে পাঁচটি পিস্তল, পাঁচটি বন্দুক ও বিপুল পরিমাণ অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, ক্যাম্পগুলোতে সন্ত্রাসীদের তৎপরতা ঠেকাতে কাজ করছে র‌্যাবের সদস্যরা। কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরের এক্স-৪ ক্যাম্পের গহিন পাহাড়ে এ অভিযান পরিচালনা করে তিন সন্ত্রাসীকে আটক করা হয়। ক্যাম্পগুলোতে সন্ত্রাসীদের তৎপরতা ঠেকাতে র্যাবের তৎপরতা অব্যাহত থাকবে। আটকদের সোপর্দ করা হয়েছে উখিয়া থানায়।

কক্সবাজারের ইউপি ভোটে অস্ত্র প্রদর্শন, রক্তের হোলি খেলায় পর্যটন এলাকায় ভয় : কক্সবাজার সদর উপজেলার পিএমখালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) তোতকখালী বটতলীতে সোমবার রাত ৯টার দিকে দুর্বৃত্তদের গুলিতে সদস্য প্রার্থী রেজাউল করিম আহত হয়েছেন। তিনি পিএমখালী ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য আবুল কালাম আজাদের ছেলে। ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় ইউপি নির্বাচনে রেজাউল করিম ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী। তিনি পিএমখালী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। রাত সাড়ে ১০টায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মুনীর-উল-গীয়াস বলেন, তোতকখালীতে নির্বাচনি বিরোধের জেরে ইউপি সদস্য প্রার্থী রেজাউল করিমকে গুলি করার ঘটনা ঘটেছে। দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করে আটকের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। এর আগে ৫ নভেম্বর রাতে শহরতলির লিংক রোড এলাকার কার্যালয়ে বৈঠক করার সময় অস্ত্রধারীদের গুলিতে আহত হন কক্সবাজার জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম সিকদার এবং তার ছোট ভাই স্থানীয় ঝিলংজা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য কুদরত উল্লাহ সিকদার। প্রথমে দুজনকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাতেই দুজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৭ নভেম্বর দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জহিরুলের মৃত্যু হয়।

সমপ্রতি কক্সবাজার সৈকতের লাবণী পয়েন্টে ট্যুরিস্ট পুলিশের কার্যালয় চত্বরে বাহিনীর অষ্টম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘কক্সবাজারে রক্তের হোলি খেলা আর চলতে দেয়া যাবে না। এটি ট্যুরিস্ট প্লেস। এখানে টুরিস্টরা আসবে। আমরা শুনেছি, এখানে কয়েকজনের প্রাণহানি হয়েছে। আর কোনো সহিংসতা, কোনো প্রাণহানি যেন এখানে না হয়। আমরা কোনো সন্ত্রাসী দেখতে চাই না, রক্তপাত দেখতে চাই না।’

চট্টগ্রামের পাহাড়ে সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপের অস্ত্রের মজুত, আটকে মিলছে একে-৪৭সহ অবৈধ অস্ত্র : এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রামে আবারো অস্ত্রের মজুত করতে শুরু করেছে পাহাড়ের উপজাতীয় সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো। বিদেশি শক্তির প্রত্যক্ষ মদতে দুর্গম পাহাড়ে নানান ধরনের ভারী আগ্নেয়াস্ত্রের মজুত করছে পাহাড়ের সশস্ত্র উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা। বিষয়টি জানতে পেরে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। তারই ধারাবাহিকতায় গত ১২ সেপ্টেম্বর ভোররাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাঙামাটির দুর্গম বাঘাইছড়িতে ইউপিডিএফ (প্রসিত) সন্ত্রাসীদের আস্তানায় অভিযান চালিয়ে দুটি একে-৪৭ রাইফেল ও বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ উদ্ধার করেছে সেনাবাহিনী। উপজেলার বঙ্গলতলী ইউনিয়নের পশ্চিম জারুলছড়ি এলাকায় ইউপিডিএফের (মূল) আস্তানায় অভিযান পরিচালনা করে এসব উদ্ধার করে সেনাবাহিনীর ১২ বীর বাঘাইহাট জোন।

সেনা সূত্র জানায়, পশ্চিম জারুলছড়ি এলাকায় ১০-১২ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী অবস্থান করছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে বাঘাইহাট জোন কর্তৃক একটি বিশেষ অভিযান দল উল্লিখিত স্থানে অভিযান চালায়। এসময় ইউপিডিএফ সশস্ত্র সন্ত্রাসী দল সেনাবাহিনীর আভিযানিক দলের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ নেয়। এসময় সেনাবাহিনীর আভিযানিক দল সন্ত্রাসীদের পিছু ধাওয়া করলে সেনাবাহিনী ও সন্ত্রাসী দলের মধ্যে বিপুল পরিমাণ গুলি বিনিময় হয়। পরবর্তীতে ওই স্থানে সেনাবাহিনী তল্লাশি চালিয়ে দুটি একে-৪৭, দুটি একে-৪৭ ম্যাগাজিন, ১৩ রাউন্ড অ্যামুনিশন, দুটি মোবাইল ও তিনটি কাপড়ের ব্যাগসহ বিপুল পরিমাণ নথিপত্র উদ্ধার করে।

রাঙামাটির পাহাড়ে সশস্ত্র তৎপরতা, বিদেশি পিস্তল, আইচসহ বহু আটক : গত ১৩ আগস্ট পার্বত্য জেলা রাঙামাটিতে পৃথক অভিযান চালিয়ে পার্বত্য চুক্তি বিরোধী উপজাতীয়দের সশস্ত্র সংগঠন ইউপিডিএফের তিন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীকে অস্ত্রসহ আটক করেছে সেনাবাহিনী। জেলার দুই উপজেলা বাঘাইছড়ি ও নানিয়ারচরে অভিযান পরিচালনা করে তিন সন্ত্রাসীকে আটক করা হয়েছে বলে দায়িত্বশীল সেনা সূত্র নিশ্চিত করেছে। আটককৃতরা হলো— ওমর চাকমা (৩৪), রকেট চাকমা (২২) ও রূপায়ন চাকমা (৩৮)। ওমর চাকমা ও রকেট চাকমাকে গ্রেপ্তার করার পর তল্লাশিপূর্বক তাদের কাছ থেকে একটি এলজি পিস্তল, দুই রাউন্ড অ্যামুনিশন, চাঁদা সংগ্রহের রশিদ বই, মোবাইল ও ব্যক্তিগত ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। অপরদিকে, নানিয়ারচরে নিরাপত্তাবাহিনীর অভিযানে রূপায়ণ চাকমা (৩৮) নামে এক ইউপিডিএফ (প্রসিত) গ্রুপের সক্রিয় কর্মীকে অস্ত্র ও সরঞ্জামাদিসহ আটক করা হয়েছে। নানিয়ারচর জোন সুদক্ষ দশের তথ্য সূত্রে জানা যায়, ১৩ আগস্ট (শুক্রবার) রাত ২টার দিকে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে কুতুকছড়ির হাজাছড়ি এলাকায় সেনাবাহিনী স্পেশাল অপারেশন চালিয়ে প্রসিত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফের সক্রিয় সন্ত্রাসী রূপায়ণ তালুকদারকে (চাকমা) দুটি জাতীয় পরিচয়পত্রসহ একটি বিদেশি তৈরি (থ্রি নট থ্রি) রাইফেল, পাঁচ রাউন্ড অ্যামুনেশন, তিনটি মোবাইল ফোন, দুটি চাঁদা আদায়ের রশিদসহ আটক করা হয়। পরে তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে নানিয়ারচর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

এছাড়া গত ৮ অক্টোবর রাঙামাটির বরকল উপজেলাধীন ভারত সীমান্তবর্তী বড় হরিণার কর্ণফুলী নদীর পাড়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে যৌথ অভিযান পরিচালনা করে উপজাতীয় পাংকুয়া সমপ্রদায়ের সাতজন সন্ত্রাসীকে অস্ত্র, গুলি ও নিষিদ্ধ মাদক আইসসহ আটক করার ঘটনায় বরকল থানায় দুটি পৃথক মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরকল সার্কেলের দায়িত্বে থাকা এএসপি মো. আব্দুল আউয়াল চৌধুরী। আটককৃত সন্ত্রাসীদের কাছ থেকে আমরা অস্ত্র ও তাজা গুলিসহ প্রায় ৯৭০ গ্রাম আইস সদৃশ কোকেন জাতীয় মাদক উদ্ধার করা হয়েছে।

গত ৩১ জুলাই ভোররাতে রাঙামাটি সদর সেনাজোন কর্তৃক পরিচালিত বিশেষ অভিযানে ইউপিডিএফের সক্রিয় সন্ত্রাসী সুরেন চাকমা (৩৬), অন্নাসং চাকমা (৪৫), অনিল চাকমা (১৯) ও সাইমন চাকমাকে (৪০) একটি বিদেশি স্বয়ংক্রিয় একে-২২ রাইফেল, ৭৭ রাউন্ড তাজা গুলি, একটি ম্যাগজিন, ওয়াকিটকি, ভুয়া আইডি কার্ড, রাষ্ট্রবিরোধী স্লোগান সম্বলিত ব্যানার, চাঁদাবাজি করে আদায় করা ৬৩ হাজার ৫৯২ টাকাসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া টেকনাফের হোয়াইক্যং ২১নং চাকমারকুল রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অস্ত্রগুলি উদ্ধার করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এ সময় পালিয়ে যায় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, চাকমারকুল ক্যাম্প-২১ এ আরসার জিম্মাদার অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী মো. রফিক অস্ত্রসহ নিজ ঘরে অবস্থান করছে এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ৩১ অক্টোবর ভোররাতে ক্যাপ্টেন এনায়েত কবিরের (২৭ বীর) নেতৃত্বে তাৎক্ষণিক অভিযান পরিচালনা করে একটি পিস্তল এবং তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে। আরসার রাত্রিকালীন পাহারাদারের মাধ্যমে ব্লক সি-৪ এ সেনাবাহিনী আসার সংবাদ শুনতে পেয়ে অস্ত্রধারী, সন্ত্রাসী মো. রফিক কৌশলে পালিয়ে যায়। তার ঘর তল্লাশি করে দেশীয় পিস্তল ও তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত অস্ত্র হোয়াইক্যং আর্মি ক্যাম্পের তত্ত্বাবধানে রয়েছে।

এ নিয়ে নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার (অব.) সাখাওয়াত হোসেন বলেন, মূলত ভারতের মিজোরাম ও ত্রিপুরা রাজ্যের অরক্ষিত সীমান্ত পথ দিয়ে পাহাড়িদের হাতে অস্ত্র আসছে। পাহাড়ে যে চাঁদাবাজি হয়, সেই অর্থই ব্যয় করা হয় অত্যাধুনিক অস্ত্র কেনায়। নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর (অব.) এমদাদুল ইসলাম বলেন, ঝড় আসার আগেই যেমন সতর্ক থাকতে হবে তেমনি রোহিঙ্গাসহ পাহাড় ইস্যুতেও তৎপর থাকতে হবে।’ ভারতের সেভেন সিস্টার্স হিসেবে পরিচিত সাত রাজ্যের অরক্ষিত সীমান্ত পথই পাহাড়ে অস্ত্র আসার মূল পথ। সেভেন সিস্টার্সের বিভিন্ন রাজ্যে মনিপুর লিবারেশন আর্মি, উলফাসহ বিভিন্ন সংগঠন এখনো সক্রিয়। তাদের নিজস্ব ব্যাটালিয়নও রয়েছে। আবার নাগাদের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে কাচিং ইনডিপেনডেন্ট আর্মি ও সান ন্যাশনাল আর্মির। বাংলাদেশ সীমান্তেও তাদের আনাগোনা রয়েছে। মূলত এদের কাছ থেকে অস্ত্র ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে পাহাড়ে অস্ত্র আসে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, এসব ঘটনা ঘটার পর মিয়ানমারের ওপর নজর দিতে হবে, কারণ মিয়ানমার রিপাকিয়েসন কাজ শুরু না হওয়ার কারণেই এসব ঘটনা ঘটছে। একটা দেশ যখন উন্নয়নের দিকে যায়, তখন স্বাভাবিকভাবেই অনেক শত্রু সৃষ্টি হবে। তাই দেশের সব ক্ষেত্রকে আরও বেশি শক্ত করতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com