সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
পরিচ্ছন্নতাকর্মী, মালি, মশককর্মীও চালান সিটি করপোরেশনের গাড়ি

পরিচ্ছন্নতাকর্মী, মালি, মশককর্মীও চালান সিটি করপোরেশনের গাড়ি

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

বর্তমানে ডিএসসিসি ও ডিএনসিসির ভারী যানবাহন আছে ৮৯৯টি। কিন্তু চালক আছেন মাত্র ২৫৯ জন। বাকি গাড়িগুলো চালান বহিরাগত (নিয়োগপ্রাপ্ত চালকের লোক), পরিচ্ছন্নতাকর্মী, মালি, মশককর্মী, ক্লিনার, এমনকি এমএলএসএস কর্মীরা। ভারী যানের মধ্যে তাঁরা মূলত ময়লার গাড়িই বেশি চালান। তাঁদের গাড়ি চালানোর প্রশিক্ষণ নেই, লাইসেন্সও নেই। দুই সিটির পরিবহন শাখার তথ্যানুযায়ী এমনটিই জানা গেছে।

জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মুনিবর রহমান বলেন, সিটি করপোরেশনের গাড়িতে দুর্ঘটনা বাড়ায় ফিটনেসসহ চালকের লাইসেন্স আছে কি না—এসব ব্যাপারে ট্রাফিক পুলিশের তদারকি আরো বাড়ানো হবে।

এদিকে, সর্বশেষ গত বুধ ও বৃস্পতিবার ময়লার গাড়িচাপায় নটর ডেম কলেজের এক শিক্ষার্থী ও একজন সংবাদকর্মী মর্মান্তিকভাবে প্রাণ হারিয়েছেন। এনিয়ে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় ময়লার গাড়ির চাপায় গত পাঁচ বছরে অন্তত ২৭ জনের প্রাণহানি হয়েছে। আহত হয়েছে অন্তত ৪৩ জন। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগের তুলনামূলক অপরাধ বিবরণী থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

ময়লার গাড়িচাপায় প্রাণহানির ঘটনায় করা মামলার প্রাথমিক তদন্তে যুক্ত একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেছেন, দুর্ঘটনার সময় করপোরেশনের প্রায় প্রতিটি গাড়িই বেপরোয়া গতিতে চালানোর তথ্য পান তাঁরা। এই পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, প্রতিটি দুর্ঘটনার পর সিটি করপোরেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়। কিন্তু প্রতিকারে কোনো ব্যবস্থা তাঁরা নেন না।

ময়লার গাড়িতে মৃত্যু

গত দুই দিনের দুই দুর্ঘটনার আগে গত ৯ আগস্ট রাজধানীর শ্যামপুরে সাবান ফ্যাক্টরির গলি এলাকায় ফারুক হোসেন নামের এক পোশাক শ্রমিক ডিএসসিসির একটি গাড়ির ধাক্কায় মারা যান। ২ মে শাহজাহানপুরে ময়লার ট্রাকের চাপায় স্বপন আহমেদ দিপু (৩৩) নামের এক ব্যাংক কর্মচারী নিহত হন। তিনি মোটরসাইকেলে করে যাচ্ছিলেন। নিহত দিপু পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলার দীঘল গ্রামের আতাহার হোসেনের ছেলে। তিনি মুগদার খালপাড় এলাকায় থাকতেন।

গত ১৬ এপ্রিল সকালে যাত্রাবাড়ীর বিবিরবাগিচা এলাকায় ডিএসসিসির ময়লার গাড়ির ধাক্কায় মোস্তাফা (৪০) নামের এক রিকশাচালক নিহত হয়েছেন। ওই ঘটনায় আহত হন রিকশার আরোহী হরেন্দ্র দাস (৭০)। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে স্থানীয় জনতা ওই সময় ময়লার গাড়িটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি দক্ষিণ সিটির বর্জ্যবাহী গাড়ি দয়াগঞ্জে মোটরসাইকেলকে চাপা দিলে প্রাণ হারান বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) টেলিফোন অপারেটর মোহাম্মদ খালিদ মুন্না (৫৫)। তিনি মোটরসাইকেলে পল্টনের অফিসে যাচ্ছিলেন। ওই দুর্ঘটনার পর ট্রাফিক পুলিশ গাড়িসহ চালককে আটক করে। পরে ওই চালক জামিনে বেরিয়ে আসেন।

২০১৮ সালের ২৩ নভেম্বর রাত ১১টার দিকে রাজধানীর পুরান ঢাকার বকশীবাজার এলাকায়ও সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় নুরজাহান (২২) নামের এক মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু হয়। ওই দুর্ঘটনায় নুরজাহানের স্বামী মোটরসাইকেলচালক মো. আসিফ আহত হন।

২০১৭ সালের ৭ সেপ্টেম্বর রাজধানীর বাসাবো এলাকায় বৌদ্ধ মন্দিরের সামনে সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ির নিচে চাপা পড়ে রিমন ও শারিন নামে দুই তরুণ-তরুণী নিহত হন।

২০১৬ সালের ৩ মার্চ রাজধানীর উত্তরার হাউস বিল্ডিং মোড়ে সিটি করপোরেশনের ময়লার ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে আবুল কালাম আজাদ (৫০) নামের এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়।

অজ্ঞাতপরিচয় ১৭

ঢাকায় গত চার বছরে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া পরিচয়হীন লাশের মামলা তদন্ত করেছে পুলিশ। তাতে অন্তত ১৭ জনকে পাওয়া গেছে, যাঁরা সিটি করপোরেশনের গাড়ির চাপায় বা ধাক্কায় মারা গেছেন বলে পুলিশ প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছে। তাঁদের কয়েকজন ছিলেন ভবঘুরে। পরিচয় শনাক্ত না হওয়ায় আঞ্জুমান মুফিদুলের মাধ্যমে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হয় তাঁদের লাশ।

গাড়ি আছে, চালক নেই

২০১৬ সালে প্রণীত ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের জনবল কাঠামোতে গাড়িচালকের পদ রাখা হয়েছে ৩০৬টি করে। এর মধ্যে ২১৫টি ভারী ও ৯১টি পদ হালকা যানের জন্য। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, গাড়ির চেয়ে পদ কম থাকায় চালক নিয়োগ দেওয়া যায় না। অতিরিক্ত গাড়ি চালানোর জন্য তাই অস্থায়ী নিয়োগ দেয় সিটি করপোরেশন।

গত বুধবার গুলিস্তানে নটর ডেম কলেজের ছাত্র মৃত্যুর ঘটনায় গ্রেপ্তার চালক রাসেল এবং ওই গাড়ির মূল চালক হারুন অর রশিদ ছিলেন ডিএসসিসির অস্থায়ী পরিচ্ছন্নতাকর্মী। রাসেলকে (২৬) প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে পল্টন থানার ওসি সালাহ উদ্দিন মিয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘রাসেল গাড়িটির মূল চালক নন। কিন্তু তিন বছর ধরে ডিএসসিসির গাড়িটি তিনিই চালাচ্ছেন।’

দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ বলেন, দক্ষিণ সিটিতে মোট গাড়ি আছে ৬০৯টি। এর মধ্যে ময়লার গাড়ি আছে ৩১৭টি, এর জন্য চালক আছেন ১৭৩ জন। বাকি গাড়িগুলো চলে অস্থায়ী চালক দিয়ে।

নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈমের মৃত্যুর ঘটনায় জড়িত গাড়ির চালক নিয়োগপ্রাপ্ত কি না জানতে চাইলে ফরিদ আহাম্মদ বলেন, ‘ড্রাইভিংয়ে যিনি ছিলেন তাঁর চালকের লাইসেন্স থাকলেও আমাদের নিয়োগ দেওয়া না।’ তিনি আরো বলেন, সিটি করপোরেশনের আয়তন বাড়ায় ময়লার গাড়িচালকের সংকট রয়েছে। তাই প্রশিক্ষিত বা লাইসেন্স আছে—এমন চালকদের দিয়ে কিছু গাড়ি চালাতে হচ্ছে। সামনে নিজেদের নিয়োগের বাইরে চালক রাখা হবে না।

উত্তর সিটি করপোরেশনের মহাব্যবস্থাপক মিজানুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, তাঁদের মোট গাড়ি ২৯০টি। ময়লার গাড়ি আছে ১৬৫টি। চালক আছেন ৮৬ জন। তাঁদের মধ্যে ২৫ জন অস্থায়ী চালক। তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের গাড়ির তুলনায় চালক কম থাকায় কিছু ক্ষেত্রে লাইসেন্স আছে এমন বাইরের চালকের ওপর নির্ভর করতে হয়।’

গত বৃহস্পতিবার পান্থপথে নিহত আহসান কবিরকে উত্তর সিটির যে ময়লার গাড়িটি চাপা দিয়েছিল, তা চালাচ্ছিলেন মোহাম্মদ হানিফ নামের একজন ‘বহিরাগত’ চালক। তিনি অস্থায়ী কর্মচারীও নন। এই গাড়িটির মূল চালক ছিলেন রুবেল উদ্দিন।

কলাবাগান থানার ওসি পরিতোষ চন্দ্র বলেন, পান্থপথের দুর্ঘটনার জন্য দায়ী উত্তর সিটি করপোরেশনের গাড়িতে মূল চালক ছিলেন না বলে প্রাথমিক তদন্তে তথ্য পাওয়া গেছে। তবে চালককে গ্রেপ্তার করার পর প্রকৃত তথ্য জানা যাবে।

এসব দুর্ঘটনার কারণ খুঁজতে গিয়ে পুলিশের তদন্তে দেখা গেছে, নিবন্ধিত চালক ছাড়া ঢাকার দুই সিটির বেশির ভাগ গাড়ি চলে অদক্ষ ও অনিবন্ধিত চালক দিয়ে। ফলে গাড়িগুলো প্রায়ই দুর্ঘটনায় পড়ছে।

জানতে চাইলে পরিবহন বিশেষজ্ঞ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) অধ্যাপক এম শামসুল হক গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, সিটি করপোরেশনের পরিবহন খাতে বহুদিন ধরে চরম বিশৃঙ্খলা চলছে। এটা অবশ্যই প্রতিষ্ঠানিক দায়। সিটি করপোরেশনসহ সরকারি প্রতিষ্ঠানের গাড়িগুলোর ফিটনেস, চালকের লাইসেন্স রয়েছে কি না—এসব দেখভালের লোক থাকলেও তাঁরা ঠিকমতো দায়িত্ব পালন করছেন না। এই সুযোগে গাড়ির স্টিয়ারিং অপেশাদারদের হাতে চলে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com