‘নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়েই খেলেছেন ড. কামাল’- নাসিম

‘নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়েই খেলেছেন ড. কামাল’- নাসিম

‘নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়েই খেলেছেন ড. কামাল’- নাসিম
‘নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়েই খেলেছেন ড. কামাল’- নাসিম

লোকালয় ডেস্কঃ মঙ্গলবার সংসদে প্রস্তাবিত বাজেটের উপর সাধারণ আলোচনায় সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন বিএনপির সঙ্গে জোট বাধলেও আওয়ামী লীগের পক্ষেই কাজ করেছেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ২০১৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরিত্যক্ত নেতা ও দলের সঙ্গে চক্রান্ত করে ব্যর্থ কামাল হোসেনকে ভাড়া করে সামনে দাঁড় করালেন। ওরা কামাল হোসেনকে ওদের জন্য ভাড়া করলেন, আর কাজ করলেন আমাদের জন্য। তিনি আওয়ামী লীগের পক্ষে কাজ করে মাঠ খালি করিয়ে দিলেন আর আমরা ফাঁকা মাঠে গোল দিলাম। সমস্ত মাঠ খালি হলে গেলো, ফাঁকা মাঠে গোল দিলাম। এই হচ্ছে বিএনপির মুরোদ।

নাসিম বলেন, কৌশলে হেরে গেছেন। আমাদের কাছে বার বার হেরে গেছেন। ভোটে নেমে মাঠ থেকে পালিয়ে গেলেন। আপনাদের দিয়ে কিছু হবে না। আপনারা খেলতেও জানেন না। খেলা পরিচালনাও করতে জানেন না।

তিনি বলেন, আন্দোলন করার ক্ষমতা আপনাদের নেই। প্রেস ব্রিফিংয়ে মধ্যে পড়ে আছেন আপনারা। আপনারা মাঠে নামতে জানেন না। বললেন পার্লামেন্টে আসবেন না, অবৈধ পার্লামেন্ট। অবৈধ পার্লামেন্টে আজ বৈধ হয়ে বসে আছেন!

এদিন সংসদে প্রস্তাবিত বাজেটের উপর সাধারণ আলোচনায় বাজেট বাস্তবায়নে আমলাদের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন সাবেক মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমরা হাজার কোটি টাকার বাজেট করবো, লক্ষ কোটি টাকার বাজেট করবো। কিন্তু বাজেট বাস্তবায়ন হবে না, টাকা ফেরত যাতে, তা হবে না। অবশ্যই বাজেট বাস্তবায়ন করতে হবে। যারা বাস্তবায়ন করতে পারবেন না তাদের জবাবদিহি করতে হবে।

আর্থিক খাতের অনিয়মের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ব্যাংক সেক্টর নিয়ে কথা উঠছে। হাজার হাজার কোটি টাকা লুট হলো, তাদের কেন ছাড় দেয়া হলো? ঋণখেলাপিদের ছাড় দেওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। কৃষকরা ১/২ হাজার টাকার জন্য সার্টিফিকেট মামলার আসামি হবে আর ঋণখেলাপিরা আদালত থেকে স্থগিতাদেশ নেবে, এটা কেন হবে? কোর্ট এত কথা বলেন, কোর্ট কেন স্থগিতাদেশ দেন। ঋণখেলাপি-লুটেরাদের কাছে ছাড় দেবো, এটা হতে পারে না। এদের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স দেখাতে হবে। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।

তিনি বলেন, কিছু ব্যবসায়ী আছেন, তারা ব্যাংকের মালিক। গার্মেন্টস, ওষুধ কোম্পানি এমনকি সংবাদপত্রেরও মালিক। এই ধরনের বহুমুখী ব্যবসায়ী বাংলাদেশে আছেন। তারা সব ব্যাপারে এক্সপার্ট। তারা সরকারি দলে ঢুকে আছে। এই সুবিধাবাদী ব্যবসায়ীরা আমাদের বন্ধু হতে পারে না। সংসদ হবে রাজনৈতিক নেতাদের। যারা ব্যবসায়ী, কোনও দিন আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেননি। কোনও দিন মাঠের রাজনীতি করেননি। এরা সুখের পায়রা। এদের সবাইকে আমরা চিনি। দুঃসময়ে এদের খুঁজে পাওয়া যাবে না। ওয়ান ইলেভেনের সময় এরা ভোল-বদল করেছিল। ২০০১ সালের পর এদের খুঁজে পাওয়া যায়নি। এরা কী করে পত্রিকার মালিক হয়? আওয়ামী লীগ সরকারের থেকে লাইসেন্স নিয়ে তারা আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে কথা বলছে। তারা সংবাদপত্রের মালিক হয়ে দিনের পর দিন লিখে যাচ্ছে আমাদের বিরুদ্ধে। এরা ওদিকেও সুবিধা নেয়, এদিকেও সুবিধা নেয়। এদের চিহ্নিত করার সময় এসে গেছে।

প্রসঙ্গত, দশম সংসদ নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপি একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেনের নেতৃত্বে নতুন জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে।

এরপর বিএনপি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে অংশ নেওয়ার পর নির্বাচনেও আসে। ভোট ডাকাতির অভিযোগ তুলে ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে প্রত্যাখ্যানের পর গণফোরাম থেকে নির্বাচিতরাই আগে এমপি হিসেবে শপথ নেন, পরে বিএনপিও তাদের পথ ধরে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com