সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
নিজেরাই সড়কের দূরত্ব নির্ধারণ করছে টমটম চালকরা ॥ সর্বত্র ক্ষোভ নারী যাত্রীদের কাছ নেয়া হচ্ছে দ্বিগুণ ভাড়া ॥ বাদ যাচ্ছে না শিক্ষার্থীরাও

নিজেরাই সড়কের দূরত্ব নির্ধারণ করছে টমটম চালকরা ॥ সর্বত্র ক্ষোভ নারী যাত্রীদের কাছ নেয়া হচ্ছে দ্বিগুণ ভাড়া ॥ বাদ যাচ্ছে না শিক্ষার্থীরাও

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যেখানে সেখানে পার্কিং, ওভার টেকিং, যাত্রীদের সাথে অসদাচরণ, উঠলেই ১০ টাকা ভাড়া চাওয়াসহ অভিযোগের শেষ নেই হবিগঞ্জ শহরের টমটম চালকদের বিরুদ্ধে। একেতো চালানো হচ্ছে অবৈধভাবে তার ওপর ভাড়া নিয়ে যাত্রীদের সাথে অসদাচারন। সবকিছুই যেনো মুখ বুঝে সহ্য করতে হচ্ছে শহরবাসীকে। ভাড়াতো ৫ টাকা, ১০ টাকা করলো কে এমন কথা বলা যেনো অপরাধ হয়ে দাড়িয়েছে যাত্রীদের কাছে। উল্টো শুনতে হচ্ছে ১০ টাকা ভাড়াতে মনে চাইলে উঠেন না হলে হেটে যান। তাদের এমন আচরণে শহরের সর্বশ্রেণির যাত্রীদের কাছে নিত্যনৈমত্তিক ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে। অথচ কিছুদিন আগেও টমটম মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ব্যানারে ভাড়ার চার্ট দেয়া হয়েছিলো।
এমনকি পৌরসভা থেকেও মাইকিং করা হয়েছিলো। বলা হয়েছিলো, শহরে চলতে গিয়ে টমটমে উঠানামা করলে ৫ টাকা এবং সরাসরি অর্থাৎ শায়েস্তানগর বাজার থেকে চৌধুরী বাজার, এবং পৌর বাস টার্মিনাল থেকে চৌধুরী বাজার পর্যন্ত ভাড়া ১০ টাকা দিতে হবে। বলা হয়েছিলো, চৌধুরী বাজার থেকে শহরে আসা স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হবে ৫ টাকা ভাড়াই। কিন্তু এখন আর এসব তোয়াক্কাই করছে না চালকরা। কিসের টমটম মালিক ঐক্য পরিষদ, আর কিসের পৌরসভা? তারা নিজেরাই রাস্তার দূরত্ব নির্ণয় করে নিজেরাই ভাড়াই নির্ধারণ করছে।
গতকাল বুধবার হবিগঞ্জ শহর ঘুরে দেখা গেছে, শায়েস্তানগর সিএনজি স্ট্যান্ড কিংবা পৌরসভার সামন থেকে মোদক ফার্মেসী পর্যন্ত গেলে ১০ টাকা ভাড়া চাইছে। আবার পেছনের রোড শায়েস্তানগর সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে শ্মশানঘাট পর্যন্ত যেতে গেলে ১০ টাকা চাচ্ছে চালকরা। কোনো যাত্রী প্রতিবাদ করলে তারা বলে, মন চাইলে উঠেন না হলে হেটে যান। তারা নিজেই রাস্তার দূরত্ব নির্ণয় করছে। তাদের নিয়ম অনুযায়ী শহরের পেছনের রোড ব্যবহার করে শায়েস্তানগর সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে রাজনগর পর্যন্ত গেলে ৫ টাকা, বেবিষ্ট্যান্ড থেকে শ্মশানঘাট পার হলে ১০ টাকা এবং প্রধান সড়কের থানার মোড় থেকে মোদক ফার্মেসী পর্যন্ত গেলে ৫ টাকা, শংকরের মুখ কিংবা চৌধুরী বাজার পর্যন্ত গেলে ১০ টাকা দিতে হবে। এরকম মনগড়া ভাড়া চাওয়া হচ্ছে শিক্ষার্থী ও নারীদের কাছেই বেশি। অনেক যাত্রীরা জানান, চালকদের দাবি মানলে শহরের শায়েস্তানগর সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে চৌধুরী বাজার গেলেতো ভাড়া ১৫ টাকা হওয়ার কথা। অবশ্য কোনো কোনো চালক শায়েস্তানগর বাজার থেকে চৌধুরী বাজার এবং পৌর বাস টার্মিনাল থেকে চৌধুরী বাজার পর্যন্ত ১৫ টাকাই চাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে যাত্রীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, চৌধুরী বাজার পর্যন্ত সরাসরি ভাড়া যদি ১০ টাকা হয় তবে উঠানামা কেন ১০ টাকা দিতে হবে। যাত্রীদের প্রতি এ কেমন অবিচার। সাধারণ যাত্রীরা এ বিষয়ে হবিগঞ্জ পৌরসভা ও জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
প্রসঙ্গত, চালকরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিলেও হবিগঞ্জ পৌরসভা থেকে মাইকিং করে জানিয়ে দেয়া হয় টমটমযোগে শহরে উঠানামা করলে ভাড়া ৫ টাকা এবং সরাসরি চৌধুরী বাজার গেলে যাত্রীদেরকে ১০ টাকা দিতে হবে। কষ্ট হলেও হবিগঞ্জবাসী অনেকটা বাধ্য হয়ে মেনে নেন। কিন্তু গত কয়েক সপ্তাহ ধরে চালকরা নিজেদের মনগড়া মতো সড়কের দূরত্ব নির্ধারণ করে ভাড়াও নির্ধারণ করায় ক্ষোভ বিরাজ করছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com