সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
নিখোঁজের ১৩ দিন অতিবাহিত হলেও এখনো ফয়েজের সন্ধান পাওয়া যায়নি৷ সন্দেহের  তীর সঙ্গীয় বন্ধু জাকিরের দিকে।।

নিখোঁজের ১৩ দিন অতিবাহিত হলেও এখনো ফয়েজের সন্ধান পাওয়া যায়নি৷ সন্দেহের  তীর সঙ্গীয় বন্ধু জাকিরের দিকে।।

স্টাফ রিপোর্টারঃ হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের জিয়াপুর গ্রামের মৃত আরজু মিয়ার ছেলে মোঃ ফয়েজ আহমদ (২৩) ও বাদে রায়ঘর গ্রামের আতা মিয়ার ছেলে,  জাকির হোসেন (২৫) নামের দু’বন্ধু একসাথে গত ৩০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার, রাত ৮টার দিকে বাড়ী থেকে মার্কুলি বাজারে  যাওয়ার উদ্দেশ্যে বের  হন। রাত ১২টার দিকে জাকির তার বন্ধু ফয়েজের বড় ভাই কয়েছ আলী ইমনকে নিখোঁজের সংবাদ জানায়। পরদিন শনিবার সকালে বলে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে, ফয়েজ কোন দিকে পালিয়ে গেছে তাকে খোজে পাওয়া যাচ্ছেনা। তোমরা মার্কুলি, রতনপুর, এসো আমি হাওয়রে আছি। তাৎক্ষণিক জাকিরের দেয়া তথ্যমতে সেখানে  গিয়ে ফয়েজের জুতা জোড়া ও মোটরসাইকেল পাওয়া যায় এক বাড়ীতে কিন্তু ফয়েজকে পাওয়া যায়নি। এরপর থেকেই জাকির হোসেন তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে আত্মগোপনে চলে যায়। এদিকে পুলিশের দেয়া তথ্য সূত্র জানায়, জাকির মার্কুলি গেলেও ফয়েজ কিন্তু  যায়নি, জাকিরের ভিন্ন ভিন্ন তথ্য ও লুকোচুরি খেলায় ফয়েজের পরিবার সন্দেহ করছেন টাকা অথবা অদৃশ্য  কারণে ফয়েজকে  জাকির ও তার ভাগিনার  সহযোগিতায় গুম করেছে দুষ্কৃতিকারীরা৷  এদিকে নবীগঞ্জ থানায় তাদের দু’টি পরিবারিই  নিখোঁজের জন্য  সাধারণ ডায়েরীভুক্ত  করেছেন। অন্য দিকে ফয়েজের ভাই কয়েছ আলী ইমন বানিয়াচং থানায় জাকির হোসেন ও তার ভাগিনা সহ কয়েকজনের নাম উল্লেখ করে আরো একটি অভিযোগ দায়ের  করেছেন। এঘটনায় নিখোঁজের ১৩দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ প্রশাসন তৎপর না হওয়ার কারণে  আসামী এবং নিখোঁজের সন্ধান মিলছেনা বলে অভিযোগ করেন নিখোঁজের বড় ভাই কয়েছ আলী ইমন। তিনি আরো বলেন, তার ভাই নিখোঁজের পরথেকে তাদের পরিবার/পরিজন  তার মা’সহ পরিবারের সবারই আহার নিদ্রা নেই,সবাই নিখোঁজ ফয়েজের জন্য অজানা আতংকে দিনাতিপাত করছেন৷ তাই নিখোঁজ ফয়েজের বন্ধু জাকিরকে গ্রেফতার করলেই ঘটনার রহস্য উদঘাটিত হবে এবং ফয়েজের সন্ধান পাওয়া যাবে বলে দাবী করেন নিখোঁজের পরিবারের লোকজন৷

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com