সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
নারী প্রার্থী এবারও কম

নারী প্রার্থী এবারও কম

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্ক:ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে রাজনৈতিক দলগুলো থেকে নারী প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়ার সংখ্যা এবারও কম। নির্বাচন কমিশনের (ইসি) তথ্য অনুসারে, ১৮ বছর আগে ২০০৩ সালের নির্দলীয় ওই নির্বাচনে নারী প্রার্থীর সংখ্যা ছিল মোট প্রার্থীর সাড়ে ৫.৫৯ শতাংশ। আর এবার দলীয় প্রতীকের এই নির্বাচনের প্রথম দুই ধাপে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ থেকে নারী প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে মাত্র ২.৯ শতাংশ।

দলটির পক্ষে বলা হচ্ছে, যোগ্য নারী প্রার্থী পাওয়া যাচ্ছে না বলেই মনোনয়ন বেশি দেওয়া যাচ্ছে না। অন্যদিকে নারীদের পক্ষে বলা হচ্ছে, দল থেকে বিতর্কিত অনেক প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হলেও সাধারণত নারীরা দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেন না বলেই তাঁদের প্রার্থী করার আগ্রহ কম। এই বাস্তবতা হতাশাজনক এবং নারীর ক্ষমতায়নের প্রতিকূল।

নিবন্ধিত দলগুলোর জন্য ২০২০ সালের মধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটিসহ সব পর্যায়ের কমিটিতে ন্যূনতম ৩৩ শতাংশ নারী সদস্যদের জন্য আইনত বাধ্যতামূলক হলেও তা এখনো বাস্তবায়িত হয়নি। অদূর ভবিষ্যতে হবে সে লক্ষণও তৃণমূল পর্যায়ের এ নির্বাচনে দেখা যাচ্ছে না।

এবারের নির্বাচনে প্রধানত ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগই প্রায় প্রতিটি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে নিজেদের প্রার্থী মনোনয়ন দিচ্ছে। বিএনপি এবার দলীয় প্রার্থী দিচ্ছে না। অন্য দলগুলোর অংশগ্রহণ অনেকটাই নামমাত্র। এ অবস্থায় এবারের ইউপি নির্বাচনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় ধাপে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন গড়ে ২.৬ শতাংশ নারী। এ দল থেকে দুই ধাপে এক হাজার ৮৫৫টি চেয়ারম্যান পদের বিপরীতে ৪৮ জন নারী মনোনয়ন পেয়েছেন।

আট বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ খুলনা বিভাগে ১২ জন আর সর্বনিম্ন বরিশাল, সিলেট ও রংপুর বিভাগে একজন করে মনোনয়ন পান। বরিশাল বিভাগে তৃতীয় ধাপে এবং রংপুর ও সিলেট বিভাগে দ্বিতীয় ধাপের প্রার্থী তালিকায় কোনো নারী নেই।

ঢাকা বিভাগে দুই ধাপে ছয় নারী মনোনয়ন পান। বিভাগটিতে প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে তিনজন করে নারী মনোনয়ন পান। চট্টগ্রাম বিভাগে ১১ জন নারী মনোনয়ন পান। বিভাগটিতে দ্বিতীয় ধাপে একজন ও তৃতীয় ধাপে ১০ জন মনোনয়ন পান।

রাজশাহীতে ৯ জন নারী মনোনয়ন পান। দ্বিতীয় ধাপে চারজন এবং তৃতীয় ধাপে পাঁচজন নৌকা প্রতীক পেয়েছেন। ময়মনসিংহ বিভাগে সাতজন নারী মনোনয়ন পেয়েছেন। তাঁদের মধ্যে দ্বিতীয় ধাপে দুজন এবং তৃতীয় ধাপে পাঁচজন মনোনয়ন পান।

আট বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ খুলনায় ১২ জন নারী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। তাঁদের মধ্যে দ্বিতীয় ধাপে পাঁচজন এবং তৃতীয় ধাপে সাতজন মনোনয়ন পান। নারীরা সবচেয়ে কম মনোনয়ন পেয়েছেন বরিশাল, সিলেট ও রংপুর বিভাগে। তিনটি বিভাগেই একজন করে নারী মনোনয়ন পান। বরিশালে দ্বিতীয় ধাপে একজন মনোনয়ন পেলেও তৃতীয় ধাপে কেউই পাননি। রংপুর ও সিলেটে দ্বিতীয় ধাপে কোনো নারী মনোনয়ন না পেলেও তৃতীয় ধাপে দুই বিভাগেই একজন করে মনোনয়ন পান।

এর আগে গত জুন ও সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত প্রথম ধাপের ৩২৩টি ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে সাতজন নারীকে মনোনয়ন দেয় আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে ছয়জন জয়ী হন। ওই নির্বাচনে দুজন নারী স্বতন্ত্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়ী হন। স্বতন্ত্র নারী প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে তিনজন ছিলেন নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী।

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য কাজী জাফর উল্যাহ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তৃণমূলে নারীদের সামাজিক অবস্থা কেন্দ্রের চেয়ে ভিন্ন। ওপরের দিকে আমরা যেভাবে নারী সহকর্মীদের সঙ্গে কাজ করি, নারী নেতৃত্বকে গ্রহণ করি, তৃণমূলে সে বাস্তবতা নেই। আমরা চেষ্টা করছি এই বৈষম্য দূর করতে। কিন্তু এটা খুব কঠিন।’

কাজী জাফর উল্যাহ বলেন, ‘প্রার্থী বাছাইয়ের সময় আমরা এমন প্রার্থী খুঁজি, যাঁদের জয়ের সম্ভাবনা বেশি। আমরা চাই না নৌকা প্রতীক নিয়ে ভোট করে কেউ হেরে যান। ইউপিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জিতবেন—এমন নারীর সংখ্যা কম। বেশি সংখ্যায় যোগ্য নারীরা ইউপি নির্বাচনে এগিয়ে এলে, আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইলে আমরা তাঁদের স্বাগত জানাব।’

নারী নেত্রী ও সামাজিক কর্মী খুশী কবির এ বিষয়ে বলেন, ইউপি নির্বাচনে যোগ্য নারী প্রার্থী পাওয়া

যাচ্ছে না—এ কথা মেনে নেওয়া যায় না। মেয়েরা শিক্ষাসহ অনেকে ক্ষেত্রেই এগিয়ে রয়েছে। সাধারণত নারীরা দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেন না বলেই তাঁদের ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে অনেকে চান না।

তিনি বলেন, দেশের প্রধান দল আওয়ামী লীগ থেকে এবারের ইউপি নির্বাচনে দলের নীতি-আদর্শে বিশ্বাসী নন—এমন বিতর্কিত ব্যক্তিদেরও মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। অথচ

নারীদের ক্ষেত্রে যোগ্যতার প্রশ্ন তুলে তাঁদের প্রার্থী না করার বিষয়টি অযৌক্তিক।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com