সংবাদ শিরোনাম :
করোনা পরিস্থিতি খারাপ হলে কঠোর সিদ্ধান্ত: কাদের। হবিগঞ্জে ভ্রাম্যমান আদালতের অর্ধলক্ষাধিক টাকা জরিমানা। বানিয়াচং জুয়া খেলার দায়ে পুলিশের হাতে আটক ৪। হবিগঞ্জে বানিয়াচংয়ে  তরুণী ধর্ষণের মামলায়  এক যুবককে কারাগারে। হবিগঞ্জ খোয়াই নদী থেকে বালু উত্তোলন, হুমকির মুখে বাঁধ-বাড়িঘর বানিয়াচংএক মোটরসাইকেল চোর আটক করেছে পুলিশ। তরুণ প্রজন্মকে দক্ষতা অর্জনের দিকে আগ্রহী করে তুলতে হবে। হবিগঞ্জের খাজা গার্ডেন সিটিতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড। হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্থানে জমজমাট জুয়ার আসর ॥ পানি শুকিয়ে যাওয়ায় বিভিন্ন হাওরে বসছে এসব আসর স্থানীয় প্রশাসনের সাথে জুয়াড়িদের সখ্যতার অভিযোগ। হবিগঞ্জ জেলা সংবাদপত্র হকার্স সমিতির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন।
নারীদের সাইবার সহায়তা দেবেন নারী পুলিশরাই।

নারীদের সাইবার সহায়তা দেবেন নারী পুলিশরাই।

নারীদের সাইবার সহায়তা দেবেন নারী পুলিশরাই

 

অনলাইন ডেস্কঃ নারী পুলিশ সদস্যরাই ‘পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন ইউনিট’ চালাবেন বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘৬৮ শতাংশ নারী নানাভাবে সাইবার অপরাধের শিকার হচ্ছেন।

এ পর্যন্ত সাইবার অপরাধে ছয় হাজারেরও বেশি মামলা হয়েছে। যার মধ্যে অধিকাংশ ভুক্তভোগী হচ্ছেন নারী।

এসব বিবেচনায় নারী ভুক্তভেগীদের আইনি সহায়তা দিতে পুলিশ সদর দফতরের এলআইসি শাখার অধীনে চালু করা হয়েছে পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন (Police Cyber Support for Women) ইউনিট।

সোমবার (১৬ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স অডিটোরিয়ামে আয়োজিত পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন সেবা ইউনিট উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন আইজিপি।

 

 

তিনি বলেন, ‘আজ থেকে এ সেবাটি চালু হলো। সাইবার অপরাধের শিকার নারী ভুক্তভোগীরা পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন নামের ফেসবুক পেজে, ইমেইলে ও হটলাইনে অথবা জাতীয় জরুরি সেবা-৯৯৯ নম্বরের মাধ্যমে নারী ভুক্তভোগীরা তাদের অভিযোগ জানাতে পারবেন।

তাদের পরিচয় গোপন রেখে আইনি সহায়তা দিতে এ ইউনিটে কাজ করবেন নারী পুলিশ সদস্যরা। ’

‘সাইবার ক্রাইম একটি বাউন্ডারিলেস (সীমানাহীন) ক্রাইম। সাধারণত দেশে ১৬ থেকে ২৪ বছরের নারীরা এ অপরাধে সবচেয়ে বেশি ভিকটিম হন। সাইবার জগতের ৬৮ শতাংশ নারী সাইবার অপরাধের শিকার। তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে, সাইবার স্পেস নিরাপদ রাখতে, আমাদের এ উদ্যোগ,’ যোগ করেন তিনি।

 

বেনজীর আহমেদ আরও বলেন, ‘আমাদের এ ইউনিটের বিশেষত্ব হলো- এখানে যারা সেবা দেবেন, তদন্ত করবেন, তারা সবাই পুলিশের নারী সদস্য। যেখানে ভিকটিমরা নির্দ্বিধায় তাদের সমস্যাগুলো বলতে পারবেন। সাইবার জগতে অপরাধ দিন দিন বেড়েই চলেছে। এখন পর্যন্ত সাইবার অ্যাক্টে ছয় হাজার ৯৯টি মামলা হয়েছে। এ অপরাধগুলো নিয়ে ডিএমপি, ডিবি, সিআইডি, পিবিআই কাজ করছে। আপনারা যারা সাইবার জগতে প্রবেশ করছেন, সাইবার জগতের ঝুঁকির বিষয়ে সচেতন হয়েই এটি ব্যবহার করা উচিত। তারপরও যদি কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত সমস্যা তৈরি হয়। সে বিষয়ে আমরা কাজ করব। এ ক্ষেত্রে ভিকটিমের সর্বোচ্চ গোপনীয়তা রক্ষা করেই তাকে সেবা দেব আমরা। ’

 

‘কোনো ভিকটিম চাইলে দেশের যে কোনো প্রান্ত থেকে ৯৯৯ এ কল দিয়ে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবেন। আমরা চাই, আজ এটি উদ্বোধন হওয়ার পর থেকে যারা চাইবেন, তারা যেন আমাদের থেকে সেবা নেন। আমরা সাইবার ওয়ার্ল্ডকে নিরাপদ করতে চাই,’ যোগ করেন তিনি।

সাইবার স্পেসে ভার্চ্যুয়াল জগতে নারীরা ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিকসহ নানাভাবে সাইবার অপরাধের শিকার হচ্ছেন। এ ধরনের অপরাধ দমনে নারী ভুক্তভোগীদের আইনি সহায়তা দিতে পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেন ইউনিটের যাত্রা শুরু হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নারীরা সাইবার বুলিং, আইডি হ্যাক, স্পর্শকাতর তথ্য, ছবি, ভিডিও প্রকাশ, সাইবার স্পেসে যৌন হয়রানি ইত্যাদি অপরাধের শিকার হলে ভুক্তভোগীরা সাইবার স্পেস নারী সেবা ইউনিটে অভিযোগ জানাতে পারবেন।

এ ইউনিটটি সম্পূর্ণ নিরাপত্তার সঙ্গে ভুক্তভোগীদের তথ্য গোপন রেখে প্রয়োজনীয় সেবা ও আইনি সহায়তা দেওয়া হবে। পাশাপাশি নিরাপদ সাইবার স্পেস তৈরি করায় প্রয়োজনীয় তথ্য ও সচেতনামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।

ভিশন- নারীর জন্য নিরাপদ সাইবার স্পেস তৈরিকরণ, সাইবার স্পেসে শুধু নারীর বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত ও আইনি সহায়তা দেওয়া এবং সাইবার নিরাপত্তা সম্পর্কিত সচেতনতা বৃদ্ধি করা।

মিশন- সাইবার স্পেসে শুধু নারীর বিরুদ্ধে সংঘটিত সাইবার অপরাধের ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত ও আইনি সহায়তা দেওয়া এবং সাইবার নিরাপত্তা সম্পর্কিত সচেতনতা বৃদ্ধি করা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com