‘নবীগঞ্জে বউ-শাশুড়ীকে হত্যার পর লাশ পুড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলো খুনিরা’

‘নবীগঞ্জে বউ-শাশুড়ীকে হত্যার পর লাশ পুড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলো খুনিরা’

'নবীগঞ্জে বউ-শাশুড়ীকে হত্যার পর লাশ পুড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলো খুনিরা'
'নবীগঞ্জে বউ-শাশুড়ীকে হত্যার পর লাশ পুড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করেছিলো খুনিরা'

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা : হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার সাদুল্লাপুর গ্রামে বউ-শাশুড়ির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাদেরকে হত্যার পর লাশ পুড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয় বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

রোববার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ লাশ দুটি উদ্ধার করে। খবর পেয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরির্দশন করেছেন। ইতোমধ্যে তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

নিহতরা হলেন- ওই গ্রামের ইংল্যান্ড প্রবাসী আখলাক চৌধুরীর স্ত্রী রুমি বেগম (২২) ও আখলাকের মা মালা বেগম (৫০)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ওই গ্রামের মৃত রাজা মিয়ার ছেলে আখলাক মিয়া দীর্ঘ দিন ধরে ইংল্যান্ডে বসবাস করছেন। দুই বছর পূর্বে একই গ্রামের ডা. নজরুল ইসলামের ছোট বোন রুমি বেগমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকে বাড়িতে শুধু মা মালা বেগম ও স্ত্রী রুমি বেগম থাকতেন।

রোববার রাত ১১টার দিকে হঠাৎ ‘আগুন’, ‘আগুন’ চিৎকার শুনে গ্রামের লোকজন বেরিয়ে এসে তাদেরকে রক্তাক্ত অবস্থায় অচেতন পড়ে থাকতে দেখেন। পরে স্থানীয়রা ঘরের বাইরে থেকে গৃহবধূ রুমি বেগম ও ভেতর থেকে মালা বেগমকে উদ্ধার করে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে লাশ দুটির সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে।

পুলিশ জানিয়েছে, উভয় লাশের গায়ে ধারালো অস্ত্রের একাধিক আঘাত রয়েছে। কী কারণে এই হত্যাকাণ্ড, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

নিহত রুমি বেগমের বড় ভাই পল্লী চিকিৎসক নজরুল ইসলাম জানান, প্রতিদিনই তিনি তার বোনের বাড়ির লোকজনের খোঁজ খবর রাখতেন। গতকাল রাতে বোন রুমি মোবাইল ফোনে কল দিয়ে জানায় চোখে আঘাত পেয়েছে ঔষধ দেওয়ার জন্য। পরে বোনের পাশের বাড়ির জনৈক তালেব মিয়ার মাধ্যমে রাত ১০ টার দিকে বোনের জন্য ঔষধ দিয়ে পাঠান নজরুল। এরপর রাত ১১ টার দিকে নির্মম এ ঘটনার খবর পান।

এদিকে লাশ উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসা কয়েকজন স্থানীয় লোক জানান, চিৎকার শুনে তারা বাড়িতে গিয়ে লাশ দুটি দেখতে পান। এ সময় ঘরের একটি টেবিলে ৪ টি চায়ের কাপও ছিল। ঘটনাস্থল থেকে এক জুড়া জুতা ও ১টি ঘড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। এতে স্থানীয় লোকজন ধারনা করছেন হত্যাকারীরা ঘটনার পুর্বেই বাড়িতে অবস্থান করে চা চক্র করে। তবে ঘরের কোন মালামাল খোয়া যায়নি বলে নিহতের স্বজনরা জানিয়েছেন।

এদিকে কোন কারনে পরিকল্পিতভাবে বউ-শাশুড়ীকে হত্যা করা হয়েছে এ নিয়ে মূখরোচক আলোচনা চলছে। ধারনা করা যাচ্ছে, হত্যাকারীরা পুর্ব পরিচিত। গ্রামবাসী নির্মম এই হত্যাকান্ডের সুষ্ট বিচার দাবী করছেন। অপর দিকে হাসপাতালে লাশের সুরতহাল রিপোর্টের সময় নিহতের শরীরে স্বর্ণের চেইন ও আংটি ছিল বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তালেব মিয়া (১৮) নামের ওই যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

এ ব্যাপারে আজ সোমবার ভোর সাড়ে টার দিকে এ প্রতিনিধির সাথে আলাপকালে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আ.স.ম.শামছুর রহমান ভূইয়া জানান, ঘটনার পরপর বিভিন্ন আলামত সংগ্রহসহ প্রাথমিক তদন্ত কাজ চলছে। খুব শীঘ্রই অপরাধীদের আইনের আওতায় আনা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com