নবীগঞ্জে দিনদুপুরে দুঃসাহসিক চুরি, স্বর্ণসহ সাড়ে ৪ লক্ষ টাকার মালামাল লুট

নবীগঞ্জে দিনদুপুরে দুঃসাহসিক চুরি, স্বর্ণসহ সাড়ে ৪ লক্ষ টাকার মালামাল লুট

নবীগঞ্জে দিনদুপুরে দুঃসাহসিক চুরি, স্বর্ণসহ সাড়ে ৪ লক্ষ টাকার মালামাল লুট
নবীগঞ্জে দিনদুপুরে দুঃসাহসিক চুরি, স্বর্ণসহ সাড়ে ৪ লক্ষ টাকার মালামাল লুট

নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জ উপজেলার বাউশা ইউনিয়নের চৌধুরী বাজারস্থ সাবেক মেম্বার শাহ্ মরতুজ আলীর বাসার তালা ভেঙ্গে গত বুধবার দিনদুপুরে দূর্বৃত্তরা ঘরে প্রবেশ করে সাড়ে ৭ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার স্টিলের আলমিরায় রক্ষিত ৫০ হাজার টাকা দুঃসাহসিক ভাবে চুরি করে নিয়ে যায় চোরেরা। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃস্টি হয়।
পরের দিন স্থানীয় এলাকাবাসী একই এলাকার নিজ চৌকি গ্রামের তওফিক চৌধুরীর পুত্র চিহ্নিত সিচকে চোর ওমর চৌধুরী নামের যুবককে ধরে উত্তম মধ্যম দিলে সে চুরির কথা শিকার করে। এসময় তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক তার কাছথেকে ৪ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয় বলে বাড়ীর গৃহকর্তা সাবেক মেম্বার মরতুজ আলী  সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।
অবশিষ্ট চোরাই মালামাল টাকা ও স্বর্ণালংকার তার পিতা তওফিক চৌধুরীর মাধ্যমে ফেরৎ দেবার অঙ্গীকার করে তার পুত্রকে সামাজিক বিচার থেকে ছাড়িয়ে নেন।
জানাযায়, উপজেলার বাউশা ইউনিয়নের চৌধরী বাজারস্থ নিজস্ব বাসা তালাবদ্ধ করে সাবেক মেম্বার শাহ্ মরতুজ আলী তাঁর গ্রামের বাড়ী নিজ চৌকি গ্রামে স্ব-পরিবার নিয়ে চলে যান,ওই দিন তিনির এক আপন ভাতিজা হঠাৎ মারা যান, এতে তাদের পরিবারে শোকের ছায়া নেমে আসে। এরই সুবাদে চোর চক্র  সু-কৌশলে বাসার তালাভেঙ্গে ঘরে প্রবেশকরে বিছানার নীচথেকে স্টীলের আলমিরার চাবি সংগ্রহ করে শান্ত মাথায় স্টীলে রক্ষিত সাড়ে ৭ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ও ৫০ হাজার টাকা সহ দামী মালামাল নিয়ে যায় চোরেরা। বাসার মালিক (গৃহকর্তা)  তার পরিবার নিয়ে বাসায় ফিরে দেখেন তার বাসার তালাভেঙ্গে ঘরে কে বা কারা প্রবেশকরে সবকিছু এলোমেলো করে উল্লেখিত পরিমান মালামাল চুরি করে নিয়ে যায় চোরেরা।
এই অবস্থা দেখে তিনি হতভম্ব হয়ে পড়েন এবং স্থানীয় মেম্বার সহ পাড়া প্রতিবেশীদের বিষয়টি অবগত করেন। এক পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন তাদের বাসায় ওমর চৌধরী নামের যুবক সহ কয়েকজন মিলে তারা দিনদুপুরে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটিয়েছে। পরে স্থানীয় লোকজন ওমর চৌধুরী নামের যুবককে ধরে নিয়ে উত্তম মধ্যম দিলে সে এই বাসায়  চুরির কথা স্বীকার করে।  ওমর আরো জানায় তার সাথে ধুলচাতল গ্রামের আনোয়ার মিয়ার পুত্র মামুন এবং বিলপাড় গ্রামের আঃ নূরের পুত্র জুবায়েল নামের আরো ২ জন সহযোগী জড়িত আছে।
এরপর তার দেওয়া স্বীকারোক্তি মোতাবেক ৪ভরি স্বর্ণালংকার ফেরত ও দেয় ওমর।
এসময় উপস্থিত স্থানীয় মেম্বার মোঃ ফিরোজ মিয়া সহ  এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের নিকট ওমরের পিতা তওফিক চৌধুরী চোরাই মালামাল ফেরৎ দেবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার ছেলেকে ছাড়িয়ে নেন। তবে এ ঘটনায় ৭দিন গত হলেও অবশিষ্ট সাড়ে ৩ ভরি স্বর্ণালংকার ও ৫০ হাজার টাকা এখনো ফেরৎ দেয়া হয়নি।  এঘটনায় স্থানীয় মেম্বার মোঃ ফিরোজ মিয়া সহ বাজার এলাকাবাসীর সাথে আলাপকালে সবাই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন, এমনি সিচকে চোর ওমর চৌধুরীর পিতা তওফিক মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনিও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সংবাদ প্রকাশ না করার জন্য অনোরোধ করেন এবং বলেন এই ছেলেটি তার ২য় স্ত্রীর গর্ভের সন্তান হওয়াতে তার তেমন কথাবার্তা শুনেনা।
এই আলোচিত চুরির ঘটনায় এলাকায় তুলপাড় চলছে।  গ্রামবাসী অনেকেই আরো অভিযোগ করে বলেন সিচকে চোর ওমর চৌধুরী অল্প বয়সেই এলাকায় আরো অহরহ চুরির ঘটনা ঘটিয়েছে।

!  নগদ টাকা স্বর্ণালংকার সহ  সাড়ে ৪লক্ষাধিক টাকার মালামাল খোয়া! ১ চোরকে আটক করে উত্তম মাধ্যম দেয়ায় চোরাইকৃত  ৪ ভরি স্বর্ণালংকার ফেরৎ পেয়েছেন গৃহকর্তা।

নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জ উপজেলার বাউশা ইউনিয়নের চৌধুরী বাজারস্থ সাবেক মেম্বার শাহ্ মরতুজ আলীর বাসার তালা ভেঙ্গে গত বুধবার দিনদুপুরে দূর্বৃত্তরা ঘরে প্রবেশ করে সাড়ে ৭ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার স্টিলের আলমিরায় রক্ষিত ৫০ হাজার টাকা দুঃসাহসিক ভাবে চুরি করে নিয়ে যায় চোরেরা। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃস্টি হয়।
পরের দিন স্থানীয় এলাকাবাসী একই এলাকার নিজ চৌকি গ্রামের তওফিক চৌধুরীর পুত্র চিহ্নিত সিচকে চোর ওমর চৌধুরী নামের যুবককে ধরে উত্তম মধ্যম দিলে সে চুরির কথা শিকার করে। এসময় তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক তার কাছথেকে ৪ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয় বলে বাড়ীর গৃহকর্তা সাবেক মেম্বার মরতুজ আলী  সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।
অবশিষ্ট চোরাই মালামাল টাকা ও স্বর্ণালংকার তার পিতা তওফিক চৌধুরীর মাধ্যমে ফেরৎ দেবার অঙ্গীকার করে তার পুত্রকে সামাজিক বিচার থেকে ছাড়িয়ে নেন।
জানাযায়, উপজেলার বাউশা ইউনিয়নের চৌধরী বাজারস্থ নিজস্ব বাসা তালাবদ্ধ করে সাবেক মেম্বার শাহ্ মরতুজ আলী তাঁর গ্রামের বাড়ী নিজ চৌকি গ্রামে স্ব-পরিবার নিয়ে চলে যান,ওই দিন তিনির এক আপন ভাতিজা হঠাৎ মারা যান, এতে তাদের পরিবারে শোকের ছায়া নেমে আসে। এরই সুবাদে চোর চক্র  সু-কৌশলে বাসার তালাভেঙ্গে ঘরে প্রবেশকরে বিছানার নীচথেকে স্টীলের আলমিরার চাবি সংগ্রহ করে শান্ত মাথায় স্টীলে রক্ষিত সাড়ে ৭ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার ও ৫০ হাজার টাকা সহ দামী মালামাল নিয়ে যায় চোরেরা। বাসার মালিক (গৃহকর্তা)  তার পরিবার নিয়ে বাসায় ফিরে দেখেন তার বাসার তালাভেঙ্গে ঘরে কে বা কারা প্রবেশকরে সবকিছু এলোমেলো করে উল্লেখিত পরিমান মালামাল চুরি করে নিয়ে যায় চোরেরা।
এই অবস্থা দেখে তিনি হতভম্ব হয়ে পড়েন এবং স্থানীয় মেম্বার সহ পাড়া প্রতিবেশীদের বিষয়টি অবগত করেন। এক পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন তাদের বাসায় ওমর চৌধরী নামের যুবক সহ কয়েকজন মিলে তারা দিনদুপুরে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটিয়েছে। পরে স্থানীয় লোকজন ওমর চৌধুরী নামের যুবককে ধরে নিয়ে উত্তম মধ্যম দিলে সে এই বাসায়  চুরির কথা স্বীকার করে।  ওমর আরো জানায় তার সাথে ধুলচাতল গ্রামের আনোয়ার মিয়ার পুত্র মামুন এবং বিলপাড় গ্রামের আঃ নূরের পুত্র জুবায়েল নামের আরো ২ জন সহযোগী জড়িত আছে।
এরপর তার দেওয়া স্বীকারোক্তি মোতাবেক ৪ভরি স্বর্ণালংকার ফেরত ও দেয় ওমর।
এসময় উপস্থিত স্থানীয় মেম্বার মোঃ ফিরোজ মিয়া সহ  এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের নিকট ওমরের পিতা তওফিক চৌধুরী চোরাই মালামাল ফেরৎ দেবার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার ছেলেকে ছাড়িয়ে নেন। তবে এ ঘটনায় ৭দিন গত হলেও অবশিষ্ট সাড়ে ৩ ভরি স্বর্ণালংকার ও ৫০ হাজার টাকা এখনো ফেরৎ দেয়া হয়নি।  এঘটনায় স্থানীয় মেম্বার মোঃ ফিরোজ মিয়া সহ বাজার এলাকাবাসীর সাথে আলাপকালে সবাই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন, এমনি সিচকে চোর ওমর চৌধুরীর পিতা তওফিক মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনিও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সংবাদ প্রকাশ না করার জন্য অনোরোধ করেন এবং বলেন এই ছেলেটি তার ২য় স্ত্রীর গর্ভের সন্তান হওয়াতে তার তেমন কথাবার্তা শুনেনা।
এই আলোচিত চুরির ঘটনায় এলাকায় তুলপাড় চলছে।  গ্রামবাসী অনেকেই আরো অভিযোগ করে বলেন সিচকে চোর ওমর চৌধুরী অল্প বয়সেই এলাকায় আরো অহরহ চুরির ঘটনা ঘটিয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com